শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

চবিতে ছাত্রলীগের ২ গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ১৩

আপডেট : ১৯ জানুয়ারি ২০২২, ১৯:০১


চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ছাত্রলীগের বিজয় ও সিএফসি গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ১৩ জন আহত হয়েছেন।  মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) দিবাগত মধ্যরাতে সোহরাওয়ার্দী হল মোড়ে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। চবি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ কবির হোসাইন এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ বলেন, আধঘণ্টা ধরে চলা সংঘর্ষে উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও ইট পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। পরবর্তীতে প্রক্টরিয়াল বডি ও পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনার পর থেকে ক্যাম্পাসে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। 

এ ঘটনায় সহকারী প্রক্টর রামেন্দু পারিয়ালকে আহ্বায়ক ও এসএএম জিয়াউল ইসলামকে সদস্য সচিব করে ৪ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

সংঘর্ষে আহত ১৩ জনের মধ্যে ৫ জনের নাম পরিচয় জানা গেলেও বাকিদের নাম পরিচয় জানা যায়নি। আহতরা হলেন সিএফসি গ্রুপের ১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের ইসলামের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী নাসির উদ্দিন, একই বিভাগের সাত্তার শান্ত, ১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের ইতিহাস বিভাগের আপন ইসলাম মেঘ, বিজয় গ্রুপের ১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী মো. ফয়সাল ও একই শিক্ষাবর্ষের আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী সন্ধানী জিকু।

এ বিষয়ে বিজয় গ্রুপের নেতা ও শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ ইলিয়াস বলেন, ‘আমরা শাখা ছাত্রলীগের কমিটি পূর্ণাঙ্গ করার জন্য ২৫ জানুয়ারি পর্যন্ত আল্টিমেটাম দিয়েছিলাম। এই সময়ের মধ্যে তারা কমিটি পূর্ণাঙ্গ করতে ব্যর্থ হবে জেনেই বিলম্বিত করার জন্য সভাপতি রুবেলের নেতৃত্বে  আমাদের কর্মীদের ওপর অতর্কিত হামলা চালিয়েছে।’

ছাত্রলীগের সভাপতি ও সিএফসি গ্রুপের নেতা রেজাউল হক রুবেল বলেন, ‘সিএফসি ছাত্রলীগের বাইরের একটি বগিভিত্তিক সংগঠন। তাদের করা কোনো অপকর্মের দায়ভার ছাত্রলীগ নেবে না।’ তিনি আরও বলেন, ‘ইলিয়াসের দাবি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও অযৌক্তিক। তিনি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য বারবার ক্যাম্পাসে  এই ধরনের অরাজকতা সৃষ্টি করার চেষ্টা করছেন। তিনি তার কর্মীদের টাকা দিয়ে তার নোংরা খেলায় ব্যবহার করছেন।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর ড. শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘১৭ জানুয়ারি রাতে ছাত্রদের জড়ো হওয়া ও ১৮ জানুয়ারি দুই গ্রুপের মধ্যে মারামারি ঘটনায়  তদন্ত কমিটি গঠন করেছি। দ্রুত কমিটিকে রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়েছে। কোনো অপরাধীকে ছাড় দেবো না।’

চবির পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ কবির হোসাইন বলেন, ‘সংঘর্ষের পর আমরা সতর্ক অবস্থানে আছি। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনা মোকাবিলায় আমরা প্রস্তুত।’

ইত্তেফাক/এসটিএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

ছাত্রলীগের হামলার মুখে পিছু হটলো ছাত্রদল

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগ-ছাত্রদল সংঘর্ষ, আতঙ্কে সাধারণ শিক্ষার্থীরা

চবিতে জামাল নজরুল ইসলাম জাতীয় তরুণ গবেষক সম্মেলন

সংঘর্ষ থামাতে এসে তোপের মুখে ছাত্রলীগ সম্পাদক

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

নেতাকর্মীদের প্রশিক্ষণ দেবে জবি ছাত্রলীগ

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা পেলেই সম্মেলনের প্রস্তুতি: ছাত্রলীগ সভাপতি

রমজানে সুবিধাবঞ্চিতদের পাশে নর্দান বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

এ বছরেই পঞ্চম সমাবর্তন: উপাচার্য