শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

স্থানীয়দের ওপর ভরসা বরিশালের, সালাউদ্দিনের চিন্তার কারণ সাকিব

আপডেট : ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ০৫:২৯

বিপিএলের অষ্টম আসর শুরুর আগেই সাকিব আল হাসান বলেছিলেন, এবার বরিশালবাসীকে ট্রফি উপহার দিতে চান। টুর্নামেন্ট জুড়ে সবচেয়ে ধারাবাহিক দলের প্রমাণ দিয়েছে ফরচুন বরিশাল। দলটির সাফল্যের মূলে মূলত স্হানীয় ক্রিকেটাররা। ব্যাটিংয়ে মুনিম শাহরিয়ার, সাকিবই বড় ভূমিকা রাখছেন। বোলিংয়ে ডোয়াইন ব্র্যাভো, মুজিব উর রহমানদের সঙ্গে সাকিব, মেহেদী হাসান রানাও অবদান রেখেছেন।

স্বপ্নের ট্রফি থেকে মাত্র এক ম্যাচ দূরে বরিশাল। ট্রফি জয়ে স্হানীয় ক্রিকেটারদের ওপরই ভরসা করছেন দলটির কোচ খালেদ মাহমুদ সুজন। বড় তারকা ক্রিস গেইল এখনো নিজের নাম অনুযায়ী খেলতে পারেননি। ফাইনালের মঞ্চে ক্যারিবিয়ান ব্যাটিং দানবের জেগে উঠার অপেক্ষায় আছেন সুজন।

বিপিএলের ফাইনালে এর আগেও কুমিল্লা-বরিশাল লড়াই হয়েছে। ২০১৫ সালে সেবার ফাইনালে প্রথম ট্রফি জিতেছিল কুমিল্লা। বরিশালের ঐ দলে ছিলেন সাকিব-সুজনরা। এবার বরিশালের হয়ে শিরোপা জিততে মরিয়া তারা।

গতকাল অনুশীলন শেষে কোচ সুজন বলেছেন, টুর্নামেন্টে এক নম্বর হওয়াই তার একমাত্র গন্তব্য। তিনি বলেন, ‘ফাইনাল তো ফাইনালই। এটার ওপর তো কোনো কিছু নেই। আমরা কষ্ট করে এখানে এসেছি, ভালো ক্রিকেট খেলে এসেছি। এখানে এসে দ্বিতীয় হওয়ার কোনো মূল্য থাকে? সোজা কথা এটাই। লক্ষ্যটা অবশ্যই এক নম্বর হওয়ার।’

সাকিবের নেতৃত্বে দুরন্ত ধারাবাহিকতায় এগিয়ে চলা দলটা নিয়ে বেশ আত্মবিশ্বাসী সুজন। তিনি বলেন, ‘আমরা আত্মবিশ্বাসী। দল ভালো অবস্হানে আছে। বাড়তি একটা তাড়না আছে। আর অধিনায়ক যখন ভালো খেলে সবকিছু সহজ হয়। সাকিব সামনে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছে। ওর তাগিদটা বেশি ভালো খেলার।’

ফাইনালে কুমিল্লাকে হারাতে স্হানীয় ক্রিকেটাররাই সুজনের তুরুপের তাস। বরিশালের কোচ বলেন, ‘আমি এক দিক থেকে খুশি আসলে। আমার স্হানীয় খেলোয়াড়রা ভালো করেছে। গত ম্যাচে যেমন সাকিব পারফর্ম করেনি। কিন্তু মুনিম শাহরিয়ার ভালো খেলল, রানা যেভাবে শেষ করল আমি খুবই খুশি। আমি চাই স্হানীয়রা ভালো খেলে যদি জিতি তাহলে বেশি আনন্দিত হব।’

এদিকে চার ক্রিকেটার নিয়ে ঐচ্ছিক অনুশীলন শেষে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ফিরে গেছে দুপুরেই। পড়ন্ত বিকালে অনুশীলনের পর ফরচুন বরিশালের ক্রিকেটাররা কফিনগুলো রেখে গেলেন মিরপুর স্টেডিয়ামের শহীদ জুয়েল স্ট্যান্ডের পাশে ড্রেসিংরুমে। আজ ফাইনালে তাই কুমিল্লা শিবির থাকবে শহীদ মুশতাক স্ট্যান্ডের পাশের ড্রেসিংরুমে।  এই ড্রেসিংরুমটা কুমিল্লার জন্য সৌভাগ্যের প্রতীক। এই ড্রেসিংরুমে থেকেই দুই বার বিপিএল শিরোপা জিতেছে মোহাম্মদ সালাউদ্দিনের শিষ্যরা। 

গতকাল অনুশীলন শেষে কুমিল্লার কোচের ভাবনায় অবশ্য প্রতিপক্ষের ড্রেসিংরুমই বেশি গুরুত্ব পেল। বরিশালের ড্রেসিংরুমের কেন্দ্রীয় চরিত্র সাকিব আল হাসানের ‘মস্তিষ্ক’ই তার জন্য বড় চিন্তার কারণ। দলটার মূল শক্তিও নাকি সাকিব। তাই লড়াইটা কুমিল্লার সঙ্গে সাকিবের মস্তিষ্কের। এমনটাই মনে করেন সালাউদ্দিন।

চলমান টুর্নামেন্টে দুই দলের লড়াইয়ে স্কোরলাইন ২-১, দুই ম্যাচ জিতে এগিয়ে বরিশাল। কুমিল্লা নিশ্চিতভাবেই চাইবে সমতা ফেরাতে। এই মিশনে প্রিয় শিষ্য সাকিবকে নিয়েই ভয় সালাউদ্দিনের মনে। ঘরোয়া ক্রিকেটের অন্যতম সফল এই কোচ গতকাল বলেছেন, ‘আমার কাছে মনে হয় বরিশালের যে শক্তি সেটা হচ্ছে সাকিব আল হাসান। সাকিবের মাথার সঙ্গে আমাদের খেলতে হবে। আমার মনে হয় যে খুবই ভালো অধিনায়কত্ব করছে এবং তার যতটুকু সম্পদ আছে সেটা খুব ভালোভাবে ব্যবহার করছে। ও অনেক সময় যে কৌশলগুলো করে সেটা আসলে অনেক সময় ব্যাটসম্যানরা বুঝতে পারে না, সেটা যদি আমরা কাটিয়ে উঠতে পারি তাহলে আমার মনে হয় যে ব্যাটসম্যানরা ভালো করবে।’ 

মাঠে সাকিবের কৌশল বিনষ্ট করার দায়িত্বটাও ইমরুলদের ওপরই ছাড়ছেন সালাউদ্দিন। কুমিল্লার হয়ে দুই বার বিপিএল ট্রফি জিতেছেন তিনি। আজ তার তৃতীয় ফাইনাল। শতভাগ জয়ের রেকর্ডকে চাপ নয় প্রেরণা হিসেবেই দেখছেন তিনি।

যোগ্য দল হিসেবেই ফাইনালে এসেছে কুমিল্লা। তবে সালাউদ্দিনের মতে, এখনো দল হিসেবে সেরা খেলাটা হয়নি কুমিল্লার। ফাইনালে সেরা পারফরম্যান্সে চোখ তার। ফাইনালের মঞ্চে স্নায়ুর চাপ জয়কেই ট্রফি জেতার মূল অস্ত্র মানছেন সালাউদ্দিন। অধিনায়ক ইমরুল আশাবাদী সাহস, আত্মবিশ্বাস দিয়ে জয় করবেন চাপের সমুদ্র।

 

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন