বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

নারী চিকিৎসকদের টয়লেট বিড়ম্বনা, মানা হচ্ছে না হাইকোর্টের নির্দেশ

আপডেট : ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ১০:৫১

নানা রকম বৈষম্যের অভিযোগ করেছেন দেশের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) কার্ডিওলজি বিভাগের নারী চিকিত্করা। এই বিভাগে একজন নারী অধ্যাপকসহ মোট ৬ নারী চিকিৎসক কর্মরত। তাদের জন্য আলাদা কোনো টয়লেটের ব্যবস্থা নেই। নারী সহযোগী অধ্যাপক পাননি আলাদা কোনো কামরা। অথচ পুরুষ অবসরপ্রাপ্ত ও সহযোগী অধ্যাপকের জন্য টয়লেটসহ রুম আছে। এ বিষয়ে হাইকোর্টের নির্দেশনা অমান্য করাসহ নানা রকম বৈষম্যের অভিযোগ করেছেন নারী অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক ও চিকিৎসকরা।

বিএসএমএমইউ-এর কার্ডিওলজি বিভাগে গিয়ে দেখা যায় এখানে নারী চিকিৎসকদের জন্য আলাদা কোনো টয়লেট নেই। অধ্যাপক ডা. জাহানারা আরজু ইত্তেফাককে জানান, তিনি ২০১১ সাল থেকে কার্ডিওলজি বিভাগে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বলেন, বর্তমানে তিনি বিভাগের অধ্যাপক পদে দায়িত্বরত। তিনি এ ব্যাপারে লিখিত ও মৌখিক আবেদন করেও কোনো সাড়া পাননি। তিনি বলেন, নারী হিসেবে আমাদের অনেক সময় টয়লেটের গুরুতর প্রয়োজন থাকে। আমাদের মধ্যে বয়স বড় সহযোগী অধ্যাপক নাভীন শেখের শারীরিক অসুস্থতার জন্য বাধ্য হয়ে আমরা একদিন একজন অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপকের জন্য বরাদ্দ তালা দেওয়া টয়লেট ব্যবহার করি। তখন কেন আমরা এই টয়লেট ব্যবহার করলাম সে বিষয় তদন্ত হয় এবং আমাদের লিখিতভাবে বলা হয় আর যেন আমরা কোনো দিন এই কাজ না করি।

কনসালটেন্ট ডা. নিলুফার ফাতেমা বলেন, প্রতিদিনই আমরা টয়লেটের সমস্যায় বিব্রতকর পরিস্থিতির শিকার হই।

অধ্যাপক ডা. জাহানারা আরজু ইত্তেফাককে বলেন, আমি অনেকবার আবেদন করি। ২০২১ সালের ১৪ জুলাই আমার আবেদনের প্রেক্ষিতে বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ আমাকে লিখিতভাবে জানায়, ‘আপনার আবেদন কর্তৃপক্ষ কর্তৃক গৃহীত হয় নাই।’ অধ্যাপক হিসেবে আমাকে কোনো কালার কোড দেওয়া হয়নি। অথচ পুরুষ সহযোগী অধ্যাপক কালার কোডসহ (নিজের দায়িত্বে রোগী ভর্তি করাসহ কিছু কাজ করার অধিকার) টয়লেটযুক্ত রুম পাচ্ছে। আমি এই লিখিত কাগজ নিয়ে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হই। হাইকোর্ট ২০২১ সালের ৯ ডিসেম্বর ১৪ দিনের মধ্যে একটি টয়লেটসহ রুম বরাদ্দ ও কালার কোড দেওয়ার নির্দেশ দেয়। এর পর ৪ জানুয়ারি ২০২২ সালে বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ আমাকে লিখিতভাবে জানায়, ‘সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের নির্দেশনা মোতাবেক কার্ডিওলজি বিভাগের জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে কালার কোড বণ্টনের ব্যবস্থা নেওয়া হবে এবং আপনাকে অ্যাটাস্ট বাথসহ স্বাস্থ্যসম্মত রুমের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করা হবে।’ কিন্তু আজ অবধি কোনো ব্যবস্হা নেওয়া হয়নি।

এ বিষয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ)-এর ভিসি অধ্যাপক ডা. মো শারফুদ্দিন আহমেদ ইত্তেফাককে বলেন, হাইকোর্ট বিভাগের নির্দেশনা মতে হাসপাতালের প্রকৌশল বিভাগকে বাথরুমসহ রুম করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রকৌশল বিভাগ দেখে শুনে জানাবে কোথায় নারী অধ্যাপকের জন্য বাথরুমসহ রুম করা যায়। কেন নারী অধ্যাপক ‘কালার কোড’ এবং সহযোগী অধ্যাপক আলাদা কক্ষ পাচ্ছেন না এসব বিষয়ে তিনি কোনো কথা বলতে চাননি।

ইত্তেফাক/ আরাফাত

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

কোরবানির পশুর হাটে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা

বিশেষ সংবাদ

করোনা সংক্রমণে আবারও ঊর্ধ্বগতি

অবৈধ ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিক সেন্টার: অধিকাংশেরই মালিক ডাক্তার ও রাজনৈতিক নেতা

বিএসএমএমইউতে মাঙ্কিপক্স শনাক্তের খবর সঠিক নয়

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

বিশেষ সংবাদ

ষাটগম্বুজ ইউনিয়নে মা ও শিশুর মৃত্যুর হার শূন্য হলো যেভাবে

বাংলাদেশি চিকিৎসকদের ইন্টার্নশিপের সুযোগ দিচ্ছে রাশিয়া 

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস আজ

ডায়াবেটিসের নতুন কারণ উদ্ভাবন বাংলাদেশি বিজ্ঞানীদের