মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

আমি বরাবরই আইন এবং সিনিয়রদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল: জায়েদ খান

আপডেট : ০৩ মার্চ ২০২২, ১০:১০

অবশেষে হাইকোর্টের রায়ে জায়েদ খান সাধারণ সম্পাদক হিসেবে চূড়ান্ত হয়েছেন। দীর্ঘ আলোচনা-গুঞ্জন আর নানা তর্ক-বিতর্ক শেষে সর্বশেষ পর্যায় নিয়ে কথা বললেন তিনি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন তারিফ সৈয়দ

  • আপনাকে অভিনন্দন। কিন্তু অভিনন্দন জানানোটাও তো এখন একটা সংশয়ে পৌঁছে গেছে। আজ আপনাকে জানাচ্ছে কেউ, কাল আবার নিপুনকে...

হ্যাঁ, এখন তো কোনো সংশয় থাকার কথা না। এটাই চূড়ান্ত রায়।

  • কিন্তু নিপুন তো আবারও আপিল করবেন বলে জানিয়েছেন

— সেটি তার ব্যাপার। আমি সবসময় বলি যে খারাপরা কখনও হার মানতে চায় না। আর ভালো কখনও হারে না।

  • এভাবে নিজেকে এতটা স্ব-স্বীকৃত ভালো হিসেবে দাবি করে ফেললেন!

ফেললাম, কারণ এটা আমার কথা না। উক্তিটি বিখ্যাত মানুষের। আর আমার ক্ষেত্রে আমি বলবো, আমি কখনও কারো হক মেরে খাইনি। সবসময় শিল্পীদের পাশে দাঁড়িয়েছি সবসময়। শিল্পীদের কাছে আমার জনপ্রিয়তাই কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ কারণেই আমি সবার শত্রু হয়ে গিয়েছি। এটা স্রেফ জেলাসি ছাড়া আর কিছু নয়। আর আমার কাজকর্ম দেখেই কিন্তু সোহেল রানা, চিত্রনায়ক ফারুক ভাই, উজ্জ্বল ভাইসহ সকলের সামনে আমার কাজের প্রশংসা করেন। এটাই আমার অর্জন। ওনাদেরকে টাকা খাইয়ে কিন্তু কোনোকিছু বলানো সম্ভব না। এটা পৃথিবীর সবাই জানে।

  • তাহলে আপনাদের ভেতরে সম্প্রীতি আর কখনও হবে না?

না, আমরা তো এক আছি। ইলিয়াস কাঞ্চন ভাইসহ সকলের সঙ্গেই আমার কোনো সমস্যা নেই। মিশা ভাই হেরে যাওয়ার পর প্রথম কাঞ্চন ভাইকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। এখানে কে বড় হলো? আজ কাঞ্চন ভাই-জায়েদ খান এই পরিষদকে অভিনন্দন জানালে নিপুনেরই সবাই প্রশংসা করতেন। কিন্তু তা না করে জোর-জবরদস্তি করতে গেলেন তিনি।

  • এর ভেতরে রুবেল ভাই, রোজিনা আপাসহ অনেকেরই পদত্যগের কথা চলল। তবে কী আপনাদের ঐক্যে একটা ভাটা পড়েছিল?

দেখুন, আমরা নিজেরা সবাই সবসময় এক। কিন্তু এই নোংরামি অস্থিরতা কার ভালো লাগে বলুন। ওনারা নিজেরাই বলছেন চেয়ার কিছু না। আবার নিজেরাই আটকে ধরে রাখতে চাইছেন। তাই খানিক বিরক্ত হয়েছিলেন। আমরা এই কারণেই সকলেই একসঙ্গে বসে সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

  • এছাড়া বিচ্ছিন্নভাবে অঞ্জনা আপাও শপথ নিলেন...

অঞ্জনা আপা সরল মনে গিয়েছেন। কাঞ্চন ভাই তার পুরনো কলিগ। তিনি আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। গিয়ে শপথ নিয়েছেন। এতে দোষের কিছু নেই। বরং সম্মান সৌহার্দ্যটা বেড়েছে পরস্পরের। আমি বরাবরই আইন এবং সিনিয়রদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রথমবার যখন আদালতের রায় পেলাম। তাত্ক্ষণিকভাবেই কিন্তু আমি গিয়ে চেয়ারে বসতে পারতাম। তা কিন্তু যাইনি। অপরপক্ষ তো একদিনের নোটিশ পেয়ে নেমপ্লেট পর্যন্ত পাল্টে ফেলেছিলেন। সবকিছুরই একটা সৌন্দর্য আছে। আপনারাই বলুন ওনারা এটা কী করলেন। শিল্পীদের কাছ থেকে মানুষ উদারতা শেখে। তিনি কী শেখালেন।

  • এখন কবে শপথ নিয়ে আপনারা দায়িত্ব পালন শুরু করবেন?

আমাদের সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন ভাইকে জানিয়েছি। সবাই মিলেই একসঙ্গে শপথ নিয়ে আমরা কার্যক্রম শুরু করবো। সবাইকে নিয়েই কাজ করতে চাই। এখন থেকে কোনো বিরোধ নেই আমাদের মাঝে। সবাই আমরা এক।

ইত্তেফাক/ ইআ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সিনেমাটি দর্শকদের নিরাশ করবে না : পূজা চেরী

লুঙ্গি পরেই স্টার সিনেপ্লেক্সে সিনেমা দেখলেন সেই বৃদ্ধ 

‘নায়ক’ না ‘অভিনেতা’ হতেই চাইছেন অনেকে!

তুষির অন্তরের ‘হাওয়া’

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সিনেমা হলে দর্শক ফেরাতে চলচ্চিত্র তারকারা এখন দেশব্যাপী প্রচারণায়!

‘হাওয়া’য় মাতলো বুয়েট

‘হরিবোল’ চলচ্চিত্রের প্রিমিয়ার শো

‘হাওয়া বাংলা সিনেমার ইতিহাসে অন্যরকম জায়গা দখল করবে’