মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

‘সিনেমার উন্নয়নে ভালোমানের একটি ফেস্টিভ্যালের গুরুত্ব অনেক’ 

আপডেট : ২৫ মার্চ ২০২২, ০৬:৩৮

লন্ডন-বাঙালি ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের পরিচালক ও প্রধান সমন্বয়ক হিসেবে এখন কাজ করছেন অভিনেত্রী দিলরুবা ইয়াসমিন রুহী। ঈদের পরেই বসবে এই উত্সবের ৫ম আসর। বাংলাদেশি লাল মোরগের ঝুঁটি, রেহানা মরিয়ম নুরসহ বেশকিছু ছবি প্রদর্শন করা হবে এই উত্সবে। উত্সব, উদ্যোগসহ বিস্তারিত ভাবনা নিয়ে কথা বলেছেন তিনি।

লন্ডন বাঙালি ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল শুরু করেছিলেন কোন ভাবনা থেকে?

আজ থেকে ৬ বছর আগে আমরা যখন এটা শুরু করি তখন একটিমাত্র উদ্দেশ্য ছিল আমাদের, তা হলো সঠিক পথে বাংলা চলচ্চিত্রকে একটা আন্তর্জাতিক প্লাটফর্মে প্রমোট করা। কারণ সারাবিশ্বের চলচ্চিত্র বিশ্ব বাজার তৈরি করে নিয়েছে। শুধু আমাদেরটা এখনও অনেক পিছিয়ে। যা সফলতা দেখছি তা ব্যক্তিগত উদ্যোগে। কোনো প্লাটফর্ম তাকে হেল্প করছে না। একটি দেশের সিনেমার উন্নয়নে ভালোমানের একটি ফেস্টিভ্যালের গুরুত্ব অনেক। বিচ্ছিন্নভাবে চলচ্চিত্র পরিচালক বা প্রযোজকরা নিজ উদ্যোগে বেশ কিছু দেশে নিজেদের ছবি পাঠাচ্ছেন মাত্র। সেই ক্ষেত্রটি তৈরি করাই আমাদের মূল উদ্দেশ্য। নির্মাতা মুনসুর আলী এটির প্রথম উদ্যোক্তা ও প্রতিষ্ঠাতা। ওর স্বপ্ন বাংলা চলচ্চিত্র একটি বিশ্বে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে। এ কারণে সবারই সবাইকে সাপোর্ট দেওয়াটা জরুরি।

সেক্ষেত্রে নিজেদের কতটা সফল বলে মনে করেন?

দেখুন, প্রথমত একটি উদ্যোগ শুরু করাটাই একটা বড় সফলতা। এর বাইরে বাংলাদেশ সম্পর্কে বিশ্ব সিনেমা বাজারে একটা ধারণা নেওয়া। আমি প্রতিবছর গুণী চলচ্চিত্রকার, কর্মীদের এই ফেস্টিভ্যালে আনতে চাই। কারণ এ ধরনের ফেস্টিভ্যালে আসলে স্বপ্নগুলো বড় হয়। আর বিগত উত্সবগুলোর সফলতা অনেক। আমরা প্রতিবছরই একটি শ্লোগান নিয়ে উত্সবটি শুরু করি। যেমন রোহিঙ্গা নিয়ে আমাদের এক বছর উত্সব হয়েছে। তা আন্তর্জাতিকভাবে নাড়া দিয়েছিল। এখানে বিএফআই (ব্রিটিশ ফিল্ম ইনস্টিটিউট)-এর কলাকুশলীরা আমাদের বিচারক হিসেবে থাকেন। তাই এর গুরুত্বটা অনেক। তারা মুগ্ধ হয়ে দেখেছে আমাদের দেশেও এমন দারুন দারুণ ছবি নির্মাণ হয়। এছাড়া মুনসুর আলী ‘সংগ্রাম’ ছবিটা নিয়ে তো আমাদের দারুণ এক অভিজ্ঞতা হয়েছে। ছবিটি যেহেতু মুক্তিযুদ্ধের। ছবিটির প্রদর্শনীর পর একজন গুণী পাকিস্তানি ক্রিটিক মঞ্চে গিয়ে বাংলাদেশকে সম্মান ও নিজের দেশের ভুলের জন্য ক্ষমা চেয়েছে। এর চেয়ে বড় প্রাপ্তি আর কী হতে পারে! বিশ্ব বিপণন সংস্হাগুলোকে আমরা রাখার চেষ্টা করি। তারা আমাদের ছবি নিয়ে এখন বিশ্ববিপণনের কথা ভাবছেন। সবকিছুই দারুণ ধারাবাহিকতায় এগুচ্ছিল। মাঝে করোনার সংক্রমণটা আমাদের ২ বছর যেমন পিছিয়ে দিলো। ছন্দপতন করে দিলো। আমরা আবারও একইভাবে কাজগুলো শুরু করার উদ্যোগ নিচ্ছি।

এবারের ৫ম আসরটি কী কারণে বিশেষ বলে মনে করছেন?

অনেক কারণেই বিশেষ। প্রথমত দারুণ চলচ্চিত্র নির্মাণ হচ্ছে এখন বাংলাদেশে। যা বিশ্ববাজারে ফাইট করার মতো। আর এবারের উত্সবের মূল থিম হলো মুক্তিযুদ্ধ। গত দুই বছরে দারুণ সব মুক্তিযুদ্ধ কেন্দ্রিক ছবি নির্মাণ হয়েছে। আমরা সেগুলোকে গুরুত্ব দেওয়ার চেষ্টা করছি।

প্রতি উত্সবে কেমন ছবি জমা পড়ে বা কতটি ছবি আপনারা প্রদর্শন করছেন?

আমরা এখন দেশের গুণী নির্মাতাদের নক করছি। তারাও সাড়া দিচ্ছেন। দেখুন, আমি কাউকেই খাটো করবো না। কিন্তু আমেরিকাসহ প্রবাসের কিছু ফেস্টিভ্যাল বা বাঙালি তারকাদের নিয়ে অনুষ্ঠানে আমি নিজেও পারফর্ম করেছি। সেগুলো মোটেও আন্তর্জাতিকমানের মনে হয়নি। আমরা চাই লন্ডন বাংলা ফেস্টিভ্যালকে সেই মানে নিয়ে যেতে।

এছাড়া আপনার অভিনয় বা নতুন কাজ প্রসঙ্গে বলুন

— আমার পরিবার, দুই সন্তানকে ঘিরে যেহেতু এখানেই থাকতে হচ্ছে। তাই দেশে গিয়ে বেশিদিন থাকাটা সম্ভব হয় না। তবে এবারে বাছ-বিচার করে ভালোমানের কিছু কাজ করতে চাই। এর বাইরে এই যে সংগঠক হিসেবে কাজগুলোও সিনেমাকে ঘিরেই। তাই সিনেমার বাইরে নেই আমি।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

বর্ষা বললেন, একসঙ্গে ৫ সিনেমায় লগ্নি করতে পারবো

অভাবের কথা বলতে গিয়ে কেঁদে ফেললেন আমির খান

অভিনেত্রী শিমু হত্যা মামলার প্রতিবেদন দাখিল পেছালো

প্রতারকের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ ছবি নিয়ে যা বললেন জ্যাকলিন

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

ভক্তের আচরণে উত্তেজিত শাহরুখ খান!

ভক্তের কাণ্ডে অবাক মিম!

বঙ্গমাতাকে নিয়ে অবন্তী সিঁথির দুই গান

বন্ধু দিবসে কাকে শুভেচ্ছা জানালেন পরীমণি?