বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

জনগণের ভাগ্য ফেরাতে আমি জীবন দিতে প্রস্তুত: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ৩১ মার্চ ২০২২, ২৩:২১

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে প্রয়োজনে তিনি তার বাবার মতো জীবন উৎসর্গ করতে প্রস্তুত। তিনি বলেন, ‘আমি কক্সবাজারবাসী এবং সমগ্র বাংলাদেশের জনগণের কাছে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি, জনগণের ভাগ্য পরিবর্তন করতে প্রয়োজনে আমি আমার বাবার মতো জীবন উৎসর্গ করব।’ বৃহস্পতিবার (৩১ মার্চ) গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি কক্সবাজারে অনুষ্ঠিত ‘উন্নয়নের নতুন জোয়ার: বদলে যাও কক্সবাজার’ কর্মসূচিতে যোগ দিয়ে তিনি এ কথা বলেন। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের (ইউএনজিএ) বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃতি প্রদানের আনুষ্ঠানিক উদযাপনের অংশ হিসেবে কক্সবাজারে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এ সময় শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের জনগণ আমার সবচেয়ে কাছের ও প্রিয়জন। কারণ আমি ১৯৮১ সালে নির্বাসন থেকে দেশে ফেরার পর বৃষ্টি ও ঝড় উপেক্ষা করে হাজার হাজার মানুষকে স্বাগত জানাতে দেখেছি। বাংলাদেশের মানুষ আমার সবচেয়ে কাছের এবং তারাই আমার পরিবার। আমি আপনাদের মধ্যে আমার হারিয়ে যাওয়া বাবা, মা ও ভাইয়ের ভালোবাসা ও স্নেহ খুঁজে পেয়েছি।

তিনি আরও বলেন, আমি শেষ নিশ্বাস থাকা পর্যন্ত মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন এবং তাদের উন্নয়নের জন্য কাজ করব। আমার সরকারের অক্লান্ত পরিশ্রমে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পদাঙ্ক অনুসরণ করে বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশে রূপান্তরিত হয়েছে। উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হওয়ার ফলে দেশে-বিদেশে বাংলাদেশের মানুষ মাথা উঁচু করে ঘুরে বেড়াবে। আমার ওপর আপনাদের আস্থা ও বিশ্বাস না থাকলে এ সাফল্য অর্জন করা সম্ভব হতো না। জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস হচ্ছে তাদের কল্যাণে কাজ করার জন্য সরকারের চালিকাশক্তি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের দিক থেকে এমন অবস্থানে পৌঁছেছে যে, এ দেশকে কেউ পিছনে ঠেলে দিতে পারবে না। এখন, আমরা একটি উন্নয়নশীল জাতি হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছি এবং তা বজায় রেখে আমাদেরকে একটি উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশ গড়ে তুলতে হবে। 

অনুষ্ঠানে রবার্ট ফ্রস্টের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর সাক্ষাৎকারের কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, বাবা বাংলাদেশের মানুষকে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসতেন। ফ্রস্ট বঙ্গবন্ধুকে জিজ্ঞেস করেছিলেন যে, তার দুর্বলতা কী, উত্তরে জাতির পিতা বলেছিলেন, তিনি বাংলাদেশের মানুষকে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসেন।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু যাদেরকে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসতেন সেই দেশবাসীর ভাগ্য পরিবর্তন করাই আমার একমাত্র লক্ষ্য। ব্যক্তিগতভাবে আমার পাওয়ার কিছু নেই বরং দেশবাসীর মুখে হাসি ফোটানোই আমার কাছে সবচেয়ে বেশি মূল্যবান।

অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যোগ দিয়ে বক্তব্য রাখেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। সেই সঙ্গে কক্সবাজার থেকে অনুষ্ঠানে যোগ দেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী, জ্বালানি, বিদ্যুৎ ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী, নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী ও যুব প্রতিমন্ত্রী মো. এবং ক্রীড়া মো. জাহিদ আহসান রাসেল নিজ নিজ খাতের সার্বিক উন্নয়নে গৃহীত ব্যবস্থার সংক্ষিপ্ত বিবরণ দেন। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন কক্সবাজার প্রান্তে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। এছাড়াও কক্সবাজারে মন্ত্রীবর্গ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি ও উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তাসহ সর্বস্তরের হাজার হাজার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

- বাসস

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সারাদেশে আলোকসজ্জা বন্ধ

ঈদের নামাজে মানতে হবে যেসব স্বাস্থ্যবিধি

সেপ্টেম্বর পর্যন্ত লোডশেডিং চলতে পারে

ঈদের দিন রাত ১০টার মধ্যে কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণের নির্দেশ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নতুন ভবন আজ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

ঈদে ‘যাত্রীবাহী লঞ্চ-স্টিমারে’ মোটরসাইকেল পরিবহণ নিষিদ্ধ

বিশেষ সংবাদ

অসহনীয় লোডশেডিংয়ে বাড়ছে চার্জার ফ্যানের চাহিদা 

২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে আরও ৩২ ডেঙ্গু রোগী