মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

মির্জাপুরে ৩ ইউনিয়নে পানিতে ডুবলো ৪০০ হেক্টর বোরো ধান  

আপডেট : ২৬ এপ্রিল ২০২২, ১৪:৫৮

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে অসময়ে উজান থেকে নেমে আসা পানি এবং বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে কয়েকশ হেক্টর কাঁচা-আধপাকা বোরো ধান। বোরো ধান পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় চরম বিপাকে পরেছেন প্রান্তিক কৃষক।

উপজেলা কৃষি বিভাগ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেছেন, পানিতে তলিয়ে যাওয়া আধা পাকা ধান কেটে ফেলার জন্য কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাগন সর্বদা এলাকার কৃষকদের সঙ্গে যোগাযোগ করে যাচ্ছে।

মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) উপজেলা কৃষি অফিস জানায়, মির্জাপুর পৌরসভা এবং ১৪ ইউনিয়নে চলতি বছর বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় একুশ হাজার হেক্টর। প্রথম দিক থেকে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এ বছর উৎপাদন বেশী হয়েছে। ফতেপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মো. আব্দুর রউফ জানান, অসময়ে উজান থেকে নেমে আসা পানি এবং বৃষ্টিতে তার ইউনিয়নের থলপাড়া, ঘোনাপাড়া, পারদিঘি, বৈলানপুরসহ ১০-১২ টি গ্রামের কয়েক হেক্টর বোরো ধান  তলিয়ে গেছে। ফলে চরম বিপাকে পরেছেন প্রান্তিক কৃষকরা। একই ভাবে উপজেলার লতিফপুর, আজগানা, বহুরিয়া এবং ভাওড়া ইউনিয়নেও কয়েক শত হেক্টর বোরো ধান তলিয়ে গেছে বলে ইউপি চেয়ারম্যান মো. জাকির হোসেন, মো. রফিকুল ইসলাম সিকদার এবং আমজাদ হোসেন জানিয়েছেন।

লতিফপুর এলাকার কৃষক মোবারক হোসেন (৪৬) ও আজগানা এলাকার কৃষক ফারুক মিয়া (৬০) অভিযোগ, অসময়ে নদীতে পানি আসায় এবং বৃষ্টির পানিতে তাদের স্বপ্ন ভেঙ্গে গেছে। কাঁচা ও আধা পাকা ধান তলিয়ে গিয়ে তারা এ বছর একমুঠো বোরো ধানও ঘরে তুলতে পারবে না। ধার দেনা করে বোরো আবাদ করলেও এখন তারা হতাশার মধ্যে পরেছেন। সারা বছর কি খাবে এ নিয়ে দুশ্চিন্তার শেষ নেই। তাদের মত শতশত কৃষকের এমন অভিযোগ।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার মি. সঞ্জয় কুমার পালের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বেলন, অসময়ে উজান থেকে নদীতে পানি আসায় এবং বৃষ্টির পানিতে কয়েকটি ইউনিয়নের নিচু এলাকার বোরো ধান তলিয়ে গেছে। পানিতে বোরো ধান তলিয়ে গেলেও কাঁচা ও আধা পাকা ধান কেটে ফেলার জন্য ঐ সব এলাকার কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাগন প্রতিটি এলাকার কৃষকদের নানা ভাবে পরামর্শ ও সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছেন বলে উল্লেখ করেন।

ইত্তেফাক/এআই

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

মির্জাপুরে ক্ষতিপূরণ না দিয়েই উচ্ছেদের অভিযোগ ৩৩ পরিবারের

নিজের বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেই বিনা বেতনে পড়ালেখার সুযোগ

মির্জাপুরে বিক্রির জন্য প্রস্তুত ৫ হাজার কোরবানির পশু 

জরাজীর্ণ ক্রীড়া সংস্থার ভবন যেন মরণ ফাঁদ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

মির্জাপুরে কাঁঠালের ফলন ও দাম ভালো

মির্জাপুরের কাঁঠাল যাচ্ছে অন্য জেলায়, ভালো দাম পাচ্ছেন কৃষকরা 

৯ কিলোমিটার রাস্তাই যেন মরণ ফাঁদ  

২৫ গ্রামের মানুষের দুঃখ আট কি.মি. কাচা সড়ক