সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

বাজারে সংকট তৈরি করে বাড়ানো হলো দাম

আপডেট : ০৬ মে ২০২২, ২১:২৬

ভোজ্যতেল আমদানিকারকরা ক্রেতাদের রীতিমতো জিম্মি করে সয়াবিনসহ অন্যান্য ভোজ্য তেলের দাম বাড়িয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ। দাম বাড়ানোর পরও কিন্তু বাজারে তেল মিলছে না!

তারা আন্তর্জাতিক বাজারের দোহাই দিলেও এখন যে তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে তা দুই তিন-চার মাস আগে আমদানি করা। এখন যে দাম সেই দামের তেল বাংলাদেশে আসতে আরও তিন-চার মাস লাগবে। এই বিষয়ে প্রশ্ন করলে সিটি গ্রুপের একজন কর্মকর্তা বেশ উত্তেজিত হয়ে পড়েন।

বাংলাদেশে ভোজ্য তেল, বিশেষ করে সয়াবিন আমদানি করে ছয়-সাত জন আমদানিকারক। ফলে পুরো ব্যবসা তাদের নিয়ন্ত্রণে। পুরান ঢাকার মৌলভী বাজারের সয়াবিন তেলের ডিলার (পাইকারি বিক্রেতা) গোলাম মাওলা বলেন, ‘রোজার মাঝামাঝি থেকেই আমদানিকারকরা মিল থেকে সয়াবিন তেল সরবরাহ বন্ধ করে দেয়। তখন থেকেই খুচরা বাজারে সয়াবিন তেলের সংকট তৈরি হয়। আমার জানা মতে, দেশে তেলের পর্যাপ্ত মজুত থাকার পরও তারা দাম বাড়ানোর জন্য চাপ দিতে সরবরাহ বন্ধ করে দেয়। এখন দাম বাড়ানোর পরও সরবরাহ শুরু হয়নি। দুই-একদিনের মধ্যে সরবরাহ স্বাভাবিক হবে বলে তারা জানিয়েছেন।’

ছবি: সংগৃহীত

কৃত্রিম সংকট তৈরির কারণেই ১৬০ টাকার বোতলজাত সয়াবিন তেলের লিটার ২২০ টাকায়ও বাজারে পাওয়া যাচ্ছিল না। আর এখন ১৯৮ টাকা লিটার বেঁধে দিলেও বাজারে সরবরাহ শুরু না হওয়ায় তেল পাওয়া যাচ্ছে না। পাওয়া গেলেও ২২০ টাকার নীচে এক লিটার সয়াবিন তেল কেনা যাচ্ছে না। কলাবাগানের খুচরা বিক্রেতা এফএনএফ শপের মিন্টু মিয়া বলেন, ‘১৫ দিন ধরে আমার দোকানে সয়াবিন তেল নেই। আমি বিক্রি করছি না। যাদের কাছে আছে, তারা ২২০ টাকার নীচে বিক্রি করছেন না।’

এখন বাজারে ভোজ্য তেলের যে দাম নির্ধারণ করা হয়েছে তা প্রতি টনের আমদানিমূল্য ফ্রেইট চার্জসহ দুই হাজার ১০০ ডলার হিসেবে। কিন্তু ইনডেক্স মুন্ডি জানাচ্ছে, আজও (শুক্রবার) আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতি টন ক্রুড সয়াবিন তেলের দাম এক হাজার ৯০৭ ডলার। আর বাংলাদেশে এখন যে তেল আছে, তা বছরের প্রথম দিকে ফেব্রুয়ারি মাসে এলসি খুলে আমদানি করা হয় বলে জানা গেছে। তখন আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতি টনের দাম ছিল এক হাজার ৬০০ ডলার।

কাওরান বাজার। ছবি: ইত্তেফাক

ভোজ্য তেলে প্রতি লিটারের খুচরা দাম নির্ধারণ করা হয়েছে খোলা সয়াবিন তেল ১৮০ টাকা, বোতলজাত সয়াবিন তেল ১৯৮ টাকা, খোলা পাম অয়েল ১৭২ টাকা। বোতলের সয়াবিন তেল লিটারে বেড়েছে ৩৮ টাকা, যা অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়েছে।

গত বছর বাংলাদেশে প্রায় ২০ লাখ টন সয়াবিন তেল আমদানি করা হয়েছে। চলতি বছরের জানুয়ারি মাস থেকে প্রতি মাসে গড়ে এক লাখ ৫০ হাজার টন সয়াবিন তেল আমদানি করা হয়। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, দেশে পর্যাপ্ত সয়াবিন তেলের মজুত আছে।

আমদানিকারকরা একই কথা বলছেন। সয়াবিন তেলের ৯৪ ভাগই আনা হয় আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল থেকে। এই তেল প্রায় পুরোটাই আমদানি করা হয়। এদিকে রোজার আগে সয়াবিন তেলের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে ৩০ ভাগ ভ্যাট প্রত্যাহার করা হয়।

কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)-এর এসএম নাজের হোসেন মনে করেন, ‘কয়েকজন ভোজ্য তেল আমাদানিকারকদের হাতে ভোক্তারা জিম্মি হয়ে আছে। তারা সরকারকে চাপ দিয়ে তেলের দাম বাড়িয়ে নিয়েছে। বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে তারা এই কাজ করেছে। এখন তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় এর প্রভাব অন্যান্য নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের ওপরও পড়বে।’

তিনি বলেন, ‘তারা কেনা দাম এক হাজার ৮০০ ডলার ধরেছে। কিন্তু এই তেল যখন আমদানি করা হয় তখন এক হাজার ৫০০ ডলার দাম ছিল। ফলে দাম নির্ধারণে ফাঁকি আছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ট্যারিফ কমিশনের সহায়তায় তারা এই কাজ করেছে। আবার যখন দাম কমবে, তখন তারা বলবে, আমরা তো বেশি দামে আমদানি করেছি।’

তিনি বলেন, ‘বাজারে মজুত আছে পর্যাপ্ত। আজকেও (শুক্রবার) চট্টগ্রাম বন্দরে এক হাজার ৫০০ টন সয়াবিন তেল খালাস করা হয়েছে।’

সিটি গ্রুপের চিফ ফিনান্সিয়াল অফিসার বিশ্বজিৎ সাহা বাজারে এখনো সয়াবিন তেলের সংকট নিয়ে খুচরা বিক্রেতা ও ডিলারদের দায়ী করেন। তিনি দাবি করেন, ‘তাদের কাছে তেল আছে তারা স্টক করে রেখেছে। আর দেশে সয়াবিন তেলের মজুতও পর্যাপ্ত আছে।’

আবার তিনিই বলেন, ‘ঈদ গেল তো দুই-এক দিনের মধ্যে সরবরাহ ঠিক হয়ে যাবে। আমরা সরবরাহ নিশ্চিত করবো।’

কাওরান বাজারের একটি দোকান। ছবি: ইত্তেফাক

কিন্তু ডিলাররা অভিযোগ করেন, ‘আমদানিকারকরা দাম বাড়ানোর জন্য রোজা থেকেই সয়াবিন তেল সরবরাহ বন্ধ রেখেছে। এখন দাম বেড়েছে। দুই-একদিনের মধ্যে সরবরাহ পাওয়া যাবে। আমরা তো কমিশন এজেন্ট। স্টক করে আমাদের কী লাভ? আমরা তো নির্ধারিত হারে কমিশন পাই।’

বিশ্বজিৎ সাহা দাবি করেন, ‘তারা আন্তর্জাতিক বাজারের সাথে মিল রেখেই তেলের দাম বাড়িয়েছেন। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ট্যারিফ কমিশন অনুমোদন করেছ।এখানে কোনো কারসাজি নেই।’

আগে দাম কম ছিল সেই তেলের ওপর এখন কেন দাম বাড়ানো হবে জানতে চাইলে তিনি বেশ উত্তেজিত হয়ে পড়েন। এবং জবাব না দিয়েই টেলিফোন লাইন কেটে দেন।

ইত্তেফাক/এএএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

ধান-চালের মানে কোনো অনিয়ম সহ্য করা হবে না: খাদ্যমন্ত্রী

রোহিঙ্গাদের বেদনার কথা শুনলেন ড্যানিশ রাজকুমারী

চৌগাছায় স্কুলছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে প্রাইভেটকার চালক গ্রেফতার

'শিগগিরই হাওরে উড়াল সড়কের কাজ শুরু হবে'

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র নৌবাহিনীর যৌথ প্রশিক্ষণ ও মহড়া সমাপ্ত

গোপালগঞ্জে হত্যা মামলায় ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড