সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

বাসাবাড়ির জমা পানিতে বাড়ছে কিউলেক্স মশা

৪২ শতাংশ লার্ভাই তৈরি হচ্ছে নির্মাণাধীন ভবনে, মশার লার্ভা নিয়ন্ত্রণে গাপ্পি মাছ ছেড়েছে ডিএনসিসি

আপডেট : ০৮ মে ২০২২, ০৭:১২

রাজধানীতে বেড়েছে মশার উপদ্রব। দুই সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন এলাকায় কিউলেক্স মশার উপদ্রবে অতিষ্ঠ ঢাকাবাসী। কিউলেক্স মশার কারণে ফাইলেরিয়া ও ম্যালেরিয়া রোগ ছড়ায়। নভেম্বর থেকে শুরু করে মার্চ পর্যন্ত এর উৎপাত থাকে বেশি। তবে এখনো কমছে না কিউলেক্স মশার উপদ্রব। এতে ভোগান্তিতে পড়ছে রাজধানীবাসী। এদিকে মশার লার্ভা নিয়ন্ত্রণে ড্রেন ও জলাশয়ে গাপ্পি মাছ ছেড়েছে ডিএনসিসি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার উদ্যোগে জাতীয় ম্যালেরিয়া নির্মূল ও এডিসবাহিত রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির আওতায় ‘প্রাক মৌসুম এডিস সার্ভে-২০২২’ দেখা যায়, রাজধানীতে এখন যে মশা রয়েছে তার ৯৪ দশমিক ৯ শতাংশ কিউলেক্স মশা আর বাকি ৫ দশমিক ১ শতাংশ এডিস মশা।

কীটতত্ত্ববিদরা বলছেন, জুন থেকে সেপ্টেম্বর মাসে এডিসের প্রকোপ বাড়তে থাকে। তাই সময় আসার আগেই আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। আর এজন্যই এই জরিপ। তবে কিউলেক্স মশা নিয়ন্ত্রণে লার্ভা ধ্বংস করতে উদ্যোগ নিতে হবে।

পঁচা পানিতে জন্মায় কিউলেক্স মশা। ছবি: সংগৃহীত

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জরিপ অনুযায়ী সবচেয়ে বেশি লার্ভা পাওয়া যায়, নির্মাণাধীন ভবনে, যা ৪২ দশমিক ১১ শতাংশ, বহুতল ভবনে ৩১ দশমিক ৫৮ শতাংশ, একক ভবনসমূহে ১৫ দশমিক ২০ শতাংশ, সেমিপাকা/বস্তি এলাকায় ৯ দশমিক এবং পরিত্যক্ত (ফাঁকা) জমিসমূহে ১ দশমিক ১৭ শতাংশ মশার লার্ভা পাওয়া যায়।

আর দুই সিটি করপোরেশন এলাকার মধ্যে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩৮, ৪০, ৪৫ নম্বর ওয়ার্ডে মশার ঘনত্ব বেশি পাওয়া গেছে। এসব ওয়ার্ড হলো: পুরান ঢাকার দয়াগঞ্জ ও তার আশপাশের এলাকা, মদন মোহন বসাক রোডসহ আশপাশের এলাকা, ডিস্ট্রিলারি রোড, দীননাথ সেন রোডসহ আশপাশের এলাকা। এসব এলাকায় মশার ঘনত্ব ২০ শতাংশের বেশি। আর কোনো এলাকায় ২০ শতাংশের বেশি হলে ঝুঁকিপূর্ণ উপস্থিতি বিবেচনা করা হয়।

ঢাকা

এসব এলাকার বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এখানে সিটি করপোরেশনের লোকেরা ওষুধ কখন ছিটায়, তারা তা বলতে পারবে না। এখানে দিনের বেলায়ও মশার জ্বালায় তারা অতিষ্ঠ। দক্ষিণ সিটির শুধু এই তিন ওয়ার্ডেই নয়, ডিএসসিসির ২১, ১৫, ২৩, ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে ব্রুটো ইনডেক্স মশার ঘনত্ব ১০ শতাংশের বেশি এবং ৮, ১৪, ২০, ৩৫, ৪৬ এবং ৫১ নম্বর ওয়ার্ডে ব্র‚টো ইনডেক্স পাওয়া গেছে ১০ শতাংশ। এসব এলাকায়ও কিউলেক্স মশার উপদ্রব অত্যন্ত বেশি।

অন্যদিকে উত্তর সিটি করপোরেশনের ডিএনসিসির ৬ নম্বর ওয়ার্ড মিরপুরের পল্লবী ও আশপাশের এলাকা, ২০ নম্বর ওয়ার্ড মহাখালী ও তার আশপাশের এলাকা, ৩২ নম্বর ওয়ার্ড লালমাটিয়া ও মোহাম্মদপুর এলাকায় ব্রুটো ইনডেক্স মশার ঘনত্ব পাওয়া গেছে ১০ থেকে ১৯ শতাংশের মধ্যে। এসব এলাকার বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সন্ধ্যা না নামতেই এসব এলাকায় মশার উপদ্রব বেড়ে যায়। এছাড়া ডিএনসিসির ১০, ১৩, ১৬, ২৭, ৩০ এবং ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডে ব্রুটো ইনডেক্স ১০ শতাংশ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

ছবি: সংগৃহীত

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ও কীটতত্ত্ববিদ কবিরুল বাশার জানান, বৃষ্টিপাত হলেই মশার লার্ভার ঘনত্ব বেড়ে যায়। তাই পাত্রে জমে থাকা পানিতে লার্ভা বাড়তে থাকে। এ ছাড়া নির্মাণাধীন ভবন, বাসাবাড়ি আঙিনায় জমা পানি, সড়কে জমা পানি, নর্দমা, ডোবা, বিলঝিলে জমা পানিতে লার্ভা থেকে বয়স্ক মশার জন্ম নেয়। আর কিউলেক্স মশার উপদ্রব ঠেকাতে এসব জায়গায় স্প্রে ও লার্ভা ধ্বংসে উদ্যোগ নিতে হবে। কিউলেক্স মশা সারা বছরই থাকে। তবে সামনে এডিসের উপদ্রব বাড়বে। তাই এখন থেকেই সতর্ক হতে হবে।

তিনি বলেন, নির্দিষ্ট কোনো কীটনাশক একটানা পাঁচ বছরের বেশি ব্যবহার করা হলে মশার মধ্যে সেই কীটনাশকের বিপক্ষে সহনশীলতা তৈরি হয়। আর এজন্যই মশা নিয়ন্ত্রণে প্রতি পাঁচ বছর পরপর কীটনাশক পরিবর্তন করা দরকার। তিনি আরো বলেন, মশা নিধনে প্রশিক্ষণ ও পরিকল্পনা দরকার।

বিভিন্ন পাত্রে জমে থাকা পানিতে মশা জন্মায়। ছবি: সংগৃহীত

এ বিষয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জোবাইদুর রহমান বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জরিপে যেসব এলাকায় মশার ঘনত্ব বেশি পাওয়া গেছে সেসব এলাকা আমরা আলাদা করে বিশেষভাবে ব্যবস্থা নিচ্ছি। এছাড়া মশা নিয়ন্ত্রণে আমাদের কর্মীদের ঈদের দিন ছাড়া ছুটি ছিল না। আমরা আলাদা করে নির্মাণাধীন ভবন তদারক করছি।

এছাড়া বিভিন্ন ড্রেন ও জলাশয়ে আমরা গাপ্পি মাছ ছাড়ছি। খুব শিগ্গির আমরা ডিএনসিসির শতভাগ জলাশয় ও ড্রেনের মধ্যে গাপ্পি মাছ ছাড়তে পারব। এতে মশার লার্ভা অনেকটা নিয়ন্ত্রণে আসবে। এ বিষয়ে জানার জন্য দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ফজলে শামসুল কবিরকে ফোন দিলেও তিনি ধরেননি।

ইত্তেফাক/এএএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

বিশেষ সংবাদ

লাউ, কুমড়া, মাছ ও মরিচে ঢুকিয়ে মাদক পাচার!

এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব

মিডিয়া ডেলিগেশনের নামে নতুন ষড়যন্ত্র করছে পাকিস্তান: মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ

ভূমি সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির ছায়া সংসদ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

বিশেষ সংবাদ

থানার জব্দ গাড়িতে দখল গোলারটেক খেলার মাঠ

শ্যামপুরে ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ

বিশেষ সংবাদ

ক্রেডিট কার্ড জালিয়াতি: ব্যাংক কর্মকর্তারাই তথ্য দিচ্ছে প্রতারক চক্রকে

‘নগদ কাপ গলফ টুর্নামেন্ট’র পুরস্কার বিতরণ