বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

শ্রীলঙ্কান প্রেসিডেন্টের বাড়িও জ্বালিয়ে দিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা

আপডেট : ১০ মে ২০২২, ০১:৪৭

সংঘর্ষে উত্তাল শ্রীলঙ্কা। সোমবার (৯ মে) সকালে দেশটির ক্ষমতাসীন রাজাপাকসের পরিবারের সমর্থকেরা বিক্ষোভকারীদের ওপর চড়াও হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কলম্বোয় প্রেসিডেন্ট কার্যালয়ের বাইরে নিরস্ত্র বিক্ষোভকারীদের ওপর তাণ্ডব চালায় সরকারপন্থী সমর্থকরা। 

এরপর সন্ধ্যার দিকে এর পাল্টা জবাব দেয় বিক্ষোভকারীরা। তারা বাসে আগুন ধরিয়ে দেয়। প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকসে ও তার ভাই মাহিন্দা রাজাপাকসের পিতামাতার জন্য নির্মিত স্মৃতিসৌধ ধ্বংস করে দিয়েছে। হামবানটোটায় তাদের পারিবারিক বাড়িতে আগুন জ্বালিয়ে দিয়েছে। এটি কলম্বো থেকে ২৫০ কিলোমিটার দূরে। 

এছাড়া তিন সাবেক মন্ত্রী ও দুই সংসদ সদস্যের বাড়িতেও অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, মাউন্ট লাভিনিয়া এলাকায় সাবেক মন্ত্রী জনস্টন ফেরনান্দোর আবাসিক ভবন ও বর্তমান এমপি সনাথ নিশানথার বাড়িতে হামলা চালায় বিক্ষোভকারীরা। এরপর তাতে আগুন ধরিয়ে দিয়েছেন। ভিডিওতে, জ্বলন্ত ঘর থেকে আগুনের শিখা উঠতে দেখা গেছে।

এছাড়া দেশটির কর্মকর্তারা বলেন, কলম্বোর কাছের নিত্তামবুয়া এলাকায় বিক্ষোভকারীদের সামনে পড়েন এমপি অমরাকীর্থি আথুকোরালা। আন্দোলনকারীরা গাড়িটি আটকে দেওয়ার চেষ্টা করলে তিনি গুলিবর্ষণ করেন। এতে দুই জন গুরুতর আহত হলে এক পর্যায়ে সংলগ্ন একটি ভবনে আশ্রয় নেওয়ার চেষ্টা করেন তিনি। পরে সেখানেই তার মরদেহের সন্ধান মেলে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পুলিশ বিক্ষোভকারীদের ওপর টিয়ার গ্যাস ও জল ক্যানন নিক্ষেপ করে। এরপর কলম্বোজুড়ে কারফিউ জারি করে। পরবর্তীতে তা দেশজুড়ে জারি করা হয়। 

প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া বলেছেন, আগামীকাল মঙ্গলবার সকাল ৭ টা পর্যন্ত কারফিউ চলবে।

ইত্তেফাক/এসআর

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

শ্রীলঙ্কায় ব্যক্তিগত গাড়িতে তেল বিক্রিতে সীমা নির্ধারণ

শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রীই অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পেলেন

ভারতের কাছে ৫০ কোটি ডলার ঋণ চায় শ্রীলঙ্কা

শ্রীলঙ্কায় জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধির সর্বোচ্চ রেকর্ড

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ খাদ্য সংকটের হুঁশিয়ারি

শ্রীলঙ্কায় স্কুল বন্ধ, জ্বালানি ঘাটতির কারণে কার্যক্রম সীমিত

ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ঋণখেলাপিতে শ্রীলঙ্কা

পেট্রল ফুরিয়ে গেছে, সামনে আরও ভয়াবহ দিনের শঙ্কা: শ্রীলঙ্কান প্রধানমন্ত্রী