শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

আমার লেখাপড়া কেবল শুরু: ভাবনা

আপডেট : ১২ মে ২০২২, ১৬:৪৮

আশনা হাবিব ভাবনা। একাধারে তিনি একজন চিত্রশিল্পী, নৃত্যশিল্পী, মডেল ও অভিনেত্রী। অভিনয়ে ব্যস্ত সময় পার করলেও একাডেমিক পড়াশোনা চালিয়ে গেছেন ঠিকই। যুক্তরাজ্যের ওয়েলসে অবস্থিত গ্লিন্ডউর ইউনিভার্সিটি থেকে বিজনেস বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেছেন এই অভিনেত্রী।

গত বুধবার (১১ মে) সমাবর্তন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে ভাবনার হাতে তুলে দেওয়া হয় গ্র্যাজুয়েশন সার্টিফিকেট। সশরীরে লন্ডনে উপস্থিত থেকে মাথায় হ্যাট, গায়ে গাউন পরে নিজের কাঙ্ক্ষিত সার্টিফিকেট গ্রহণ করেন তিনি। সোশ্যাল মিডিয়ায় সেই মুহূর্তের তোলা কিছু ছবি পোস্ট করেছেন অভিনেত্রী। অনুরাগীরা তাকে শুভেচ্ছাবার্তা জানাচ্ছেন।

ছবিটি আশনা হাবিব ভাবনার ফেসবুক থেকে নেওয়া

ওই পোস্টে ভাবনা লিখেছেন, ‘কেউ বিশ্বাস করুক আর না করুক, নিজে নিজেকে বিশ্বাস করা সবচাইতে জরুরি। কেউ পাশে থাকুক না থাকুক নিজের পাশে নিজের থাকাটা জরুরি। খুবই জরুরি। আমার জীবনে আমি অনেকবার আমার মা-বাবাকে খুশী করতে পেরেছি তবুও যেন পরিবারের অন্যরা সব সময় মা-বাবাকে আমার পড়াশুনা নিয়ে একটু খোঁচা কথা বলতে ছাড়ত না। কারণ, মেয়ে নাচ করে, অভিনয় করে, পড়াশুনা তো আমাকে দিয়ে হবেই না।’

জীবনের বাবা-মায়ের অবদানও উল্লেখ করেছেন এই অভিনেত্রী। তার কথায়, ‘আমার মা-বাবা আমাকে জীবনে কোনোদিন ক্লাসে ফার্স্ট হওয়ার জন্য বলেনি। সব কিছুতেই মা-বাবা আমার পাশে ছিল। যতবার আমি হেরে যাই আম্মু-আব্বু আমাকে সাহস দেয়। আমার লেখাপড়ার জার্নিটা একদম সোজা ছিল না, অনেক কাজ মিস হয়েছে, অনেক কঠিন হয়েছে। বিশেষ করে করোনার সময়। তবুও আমি লেগে ছিলাম। শুটিংয়ের সময়ও অনলাইনের ক্লাস মিস করিনি। আমার মা-বাবা,আমার বোন যাদের কারণেই আমার মনে হয়েছে পড়তে হবে। আমার বোন না থাকলে যে আমার যে কি হতো আমি ভাবি মাঝে মাঝে। এবং আমার London School of Commerce, Dhaka-র সকল শিক্ষকেরা, যাদের জন্যে আমার লেখাপড়ার পথ সোজা হয়েছে।'

সবশেষে এই অভিনেত্রী লিখেছেন, ‘আমি তাদেরকে বেশি করে ধন্যবাদ দিতে চাই, যারা আমাকে জাজ করে, যারা আমাকে ছোট করে কথা বলতে ভোলে না। যারা আমাকে টেনে ফেলে দিতে চায়, যাদের আমাকে দেখলে অনেক হাসি পায়, আমি সত্যি আপনাদের বেশি ভালোবাসি। আপনাদের কারণেই আমি চলতে থাকি নিজের মতো করে। আমি শুধু এতটুকু বলব আমার লেখাপড়া কেবল শুরু। আরও অনেক কাজ করতে চাই। একটি দিনও আমি বসে থাকতে চাই না। আপনারা আমাকে আশির্বাদ করবেন।’

ছবিটি আশনা হাবিব ভাবনার ফেসবুক থেকে নেওয়া

প্রসঙ্গত, ২০১০ সালে বাংলাদেশ রাইফেলস স্কুল অ্যান্ড কলেজ (বর্তমানে বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ পাবলিক কলেজ) থেকে এসএসসি পাস করেন ভাবনা। ২০১২ সালে এইচএসসি পাস করেন তিনি। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার কথা থাকলেও তা হয়নি। দুই বছরের গ্যাপ দিয়ে ২০১৪ সালে ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি বিষয়ে ভর্তি হন ভাবনা। এ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দুটি সেমিস্টার শেষ করার পর ‘ভয়ংকর সুন্দর’ সিনেমায় নাম লেখান তিনি। যার কারণে পড়াশোনা চালিয়ে নেওয়া আর সম্ভব হয়নি এই অভিনেত্রীর।

সর্বশেষ ২০১৭ সালের নভেম্বরে যুক্তরাজ্যে গিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন ভাবনা। সেখানে স্থায়ীভাবে থেকে প্রায় দুই বছর ক্লাস করেন তিনি। এরপর করোনা সংকট নেমে আসে। এজন্য বাকি দুই বছর দেশ থেকে অনলাইনে ক্লাস করেছেন। নানা সংকট কাটিয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জনের পর দারুণ উচ্ছ্বসিত ভাবনা।

ইত্তেফাক/বিএএফ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

‘ছবিটির জন্য অপেক্ষায় ছিলাম’

‘এখন সংখ্যা নয়, মানের দিকে নজর দিচ্ছি’

শাহরুখের ছেলে আরিয়ান নির্দোষ, শাস্তি পেতে যাচ্ছেন সমীর!

মা হলেন মারিয়া নূর

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

গোপনে বিয়ে করলেন সানাই

‘ইচ্ছে আছে মূল চরিত্রে অভিনয় করার’ 

‘বোঝা কাঁধে নিতে চাইনি’

অভিনেতা কেভিন স্পেসির বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ