শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১০ আষাঢ় ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

‘ইচ্ছে আছে মূল চরিত্রে অভিনয় করার’ 

আপডেট : ২৭ মে ২০২২, ০৯:০৭

শাহেদ আলী। এদেশের অন্যতম আন্ডাররেটেড অভিনেতা। নিজের মেধা মনন দিয়ে টিভি নাটক-চলচ্চিত্রে অগণিত কাজ করেছেন, করে যাচ্ছেন। স্বভাববিনয়ী মেধাবী এই শিল্পী কথা বলেছেন বিনোদন প্রতিদিনের সঙ্গে।

নিয়মিত কাজের পাশাপাশি আসছে ঈদের কোন কাজগুলো নিয়ে ব্যস্ত আছেন?

এরইমধ্যে ঈদের বেশ কয়েকটি নাটকের শুটিং শেষ করেছি। সামনে আরও কিছু কাজের কথা চলছে। মুক্তির অপেক্ষায় আছে ‘অমানুষ’, সিনেমাটি। সম্প্রতি শেষ করেছি ‘চক্র’ ও ‘এবার তোরা মানুষ হ’ সিনেমা দুটির কাজ। শুটিং চলছে ‘অন্তেষ্টিক্রিয়া’ সিনেমার। এছাড়াও বেশ কয়েকটি ধারাবাহিক, ওয়েব সিরিজের কাজ করছি।

আপনার সমসাময়িক অনেকেই নির্মাণে যুক্ত হয়েছেন। সেই জায়গা থেকে নির্মাণ নিয়ে আপনার পরিকল্পনা কী?

এখন পর্যন্ত ভিজু্যয়াল মিডিয়ায় নির্মাণ নিয়ে কোনো পরিকল্পনা নেই। তবে মঞ্চ নাটক পরিচালনার ইচ্ছে আছে। যদিও আমি আগে মঞ্চ নাটক নির্দেশনা দিয়েছি। ভবিষ্যতে সুযোগ পেলে আবারও থিয়েটারে নির্দেশনা দিতে চাই।

বেশিরভাগ নাটক-সিরিজের মূল চরিত্রে শাহেদ আলীর দেখা কমই মেলে। এর কারণ কী বা বিষয়টি নিয়ে কোনো আক্ষেপ আছে কি-না?

এর আগে, বেশ কিছু কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছি। আমারও ইচ্ছে আছে মূল চরিত্রে অভিনয় করার। তাই সুযোগ পেলে হাতছাড়া করি না। সামনেও যদি নির্মাতারা মনে করেন, আমাকে দিয়ে মূল চরিত্রটি করালে কাজটি ভালো হবে তাহলে নিশ্চয় আবার মূল চরিত্রে অভিনয় করা হবে।

ওটিটির কিছু কাজ প্রশংসিত হলেও মাতামাতি একটু বেশি হচ্ছে। ওয়েব সিরিজে নিয়মিত কাজ করা অভিনেতা হিসেবে বিষয়টি কীভাবে দেখছেন?

দেখুন, অনেকেই বলছেন ওটিটির কাজগুলো টিভি নাটকের ওপর প্রভাব ফেলবে। কিন্তু আমার সেটা মনে হচ্ছে না। কারণ দুটি আলাদা মাধ্যমে ভিন্ন ভিন্ন চিন্তাধারার কাজ হচ্ছে। আর মাতামাতি নিয়ে যদি বলি তাহলে বলবো, ওটিটিতে যারা ভালো কাজ করবেন দিনশেষে তারাই টিকে থাকবেন। কোয়ালিটি না থাকলে মাতামাতি যতই করুক হারিয়ে যাবেন।

ওটিটিতে গল্পকে প্রধান্য দিয়েই সিরিজগুলো নির্মিত হচ্ছে। এতে হিরো-হিরোইন নির্ভরতা কমার পাশাপাশি আপনাদের কাজের ক্ষেত্র প্রসারিত হচ্ছে কি-না?

এখানে কাজের ক্ষেত্র তেমন প্রসারিত হচ্ছে এটা বলা যাবে না। কারণ এখনও সেভাবে ওয়েব সিরিজ নির্মিত হচ্ছে না। আর হিরো-হিরোইন নির্ভর কাজ যারা করেন তারা ঠিকই তাদের নিয়ে কাজ করছেন। সেই কাজগুলোর আলাদা দর্শক আছে। তবে বর্তমানে দর্শকদের রুচির পরিবর্তন হওয়ায় কিছু কাজ গল্পকে প্রধান্য দিয়ে করা হচ্ছে। এতে আমার মনে হয় কাজের কোয়ালিটি সামনে দিনগুলোতে আরও বাড়বে। সেই সুযোগ তৈরি হচ্ছে।

সিনিয়র-জুনিয়রের সম্পর্ক নিয়ে নানা নেতিবাচক কথা শোনা যায়। আপনার কাছে এই সম্পর্কগুলো কেমন?

আমি আসলে সিনিয়র-জুনিয়র ভাগটাই করতে চাই না। আমার কাছে কাজটি কতটা দায়িত্ব নিয়ে করা হচ্ছে সেটাই মুখ্য। সো কলড সিনিয়র হয়ে কাজটি সততার সঙ্গে না করলে তো সম্পর্ক ভালো থাকবে না। আমার পরে আসা অনেকের কাজই আমাকে মুগ্ধ হই, আবার অনেক সিনিয়রের কাজ দেখে বিরক্ত হই। তাই আমার কাছে সিনিয়র-জুনিয়র বা অবমূল্যায়ন বলে কিছু নেই, কাজটি কে ভালো করলেন সেই দেখার চেষ্টা করি।

নাটকে একাধিক ভাষার ব্যবহারকে কীভাবে দেখছেন?

নাটকে ভাষার ব্যবহার নাট্যকার-নির্মাতার ওপর নির্ভর করে। গল্প বা চরিত্রের প্রয়োজনে একাধিক ভাষা থাকতেই পারে। তবে যদি অভিনেতার প্রয়োজনে একাধিক ভাষার ব্যবহার করা হয় তাহলে সেটা প্রশ্নবিদ্ধ হবেই।

ভিজু্যয়াল মিডিয়ার পাশাপাশি মঞ্চ নাটকের সঙ্গে যুক্ত আছেন। নতুন মঞ্চ নাটকে কবে দেখা যাবে?

প্রাচ্যনাটের ‘অচলায়তন’ নাটকটিতে অভিনয় করব। বর্তমানে নাটকটির প্রাথমিক পর্যায়ের কাজ চলছে। সব কিছু ঠিক থাকলে শিগগিরই নাটকটি মঞ্চে আসবে।

অনেকেই বলছেন, মঞ্চ নাটকের অবস্হা দিনদিন খারাপ হচ্ছে। আপনি কেমন দেখতে পাচ্ছেন?

দেখুন, মঞ্চ নাটকের দর্শক বরাবরই সিলেক্টটিভ। সবাইতো মঞ্চের অভিনয় দেখেন না। সেই জায়গা থেকে বলা যায়, ভালো নাটক হলে অবশ্যই দর্শকরা মঞ্চ নাটক দেখবেন।

ইত্তেফাক/কেকে

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

আমি এখন শামুকের মতো হয়ে গেছি: মৌসুমী

‘শাহরুখের প্রস্তাব ফেরাতে পারিনি’

‘নিমজ্জন’ নাটকের টিকিটের টাকা যাবে বন্যার্তদের মাঝে

বন্যার্তদের জন্য নিজের শিল্পকর্ম বিক্রি করবেন ভাবনা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

ছিলেন সিনেমার নায়িকা, এখন বিক্রি করছেন সাবান

হঠাৎ কেন যুক্তরাষ্ট্রে চঞ্চল-খুশি

অভিনয়ে অনবদ্য তারিন

শিগগিরই নির্মাণে আসবো: মারুফ