বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৬ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে বাড়ছে গুচ্ছের ফি, এগুচ্ছে পরীক্ষার তারিখ

আপডেট : ২৮ মে ২০২২, ১২:৩৮

২২টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি পরীক্ষার ফি গতবারের চেয়ে এবার বাড়ছে। এ ছাড়া ৩ সেপ্টেম্বর থেকে পরীক্ষা নেওয়ার কথা থাকলেও শিক্ষার্থীদের সেশন জট কমাতে আগেই নেওয়া হবে বলে উপাচার্যদের মধ্যে আলোচনা হয়েছে। 

গতকাল শুক্রবার (২৭ মে) জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষাবিষয়ক উপাচার্যদের কমিটির এক সভা শেষে এসব বিষয় জানান কমিটির যুগ্ম-আহ্বায়ক ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. ড. ইমদাদুল হক। 

উপাচার্য বলেন, ‘করোনার-পরবর্তী সময়ে বর্তমানে সব জিনিসের দাম বেশি। সবকিছু বিবেচনা করে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার ফি বাড়তে পারে। এছাড়া ৩ সেপ্টেম্বর থেকে পরীক্ষা নেওয়ার যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল, তার পূর্বে যেন নেওয়া যায়, সে বিষয়ে আমরা সভায় আলোচনা করেছি। পরীক্ষার তারিখ ও ফি আগামী ৩০ মে তারিখের সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’ 

অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হক আরও বলেন, গতবার পরীক্ষার কেন্দ্র চয়েজ (পছন্দ) দিতে হয়েছিল অনেকগুলো। কিন্তু এবার একটি বিশ্ববিদ্যালয় চয়েজ দিতে হবে। যে বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্র চয়েজ দেওয়া হবে, সেই বিশ্ববিদ্যালয় সিদ্ধান্ত নেবে কীভাবে তাদের ক্যাম্পাসে পরীক্ষা নেওয়া যায়। নিজ এলাকার বাইরে গিয়ে ভোগান্তি নিয়ে যেন পরীক্ষা দিতে না হয়, সেটাই আমাদের উদ্দেশ্য।’ 

তিনি বলেন, ‘পরীক্ষার পর রেজাল্ট অনুসারে কেন্দ্রীয়ভাবে বিশ্ববিদ্যালয় সিলেক্ট করে দেওয়া হবে। আলাদা করে বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করে ফি দেওয়া লাগবে না। মেডিক্যালে ভর্তি পরীক্ষার মতো ফলাফলের ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয় সিলেক্ট করে দেওয়া হবে। গতবার যে ভোগান্তি ছিল তা যেন এবার না থাকে, সেই চেষ্টা আমরা করছি। কারণ গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি লাঘবের পরীক্ষা।  আগামী সভায় আমরা চূড়ান্তভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে ফি, পরীক্ষার তারিখ জানিয়ে দেব।’

এদিকে গত ৮ এপ্রিল গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের এক সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল—আগামী ৩, ১০ ও ১৭ সেপ্টেম্বর তিনটি ধাপে এই গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হবে। গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলো হলো—জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাকা), ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (কুষ্টিয়া), শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (সিলেট), খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় (খুলনা), হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (দিনাজপুর), মওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (টাঙ্গাইল), নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (নোয়াখালী), কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুমিল্লা), জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় (ময়মনসিংহ), যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (যশোর), বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় (রংপুর), পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (পাবনা), বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (গোপালগঞ্জ), বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় (বরিশাল), রাঙ্গামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রাঙ্গামাটি), রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ (সিরাজগঞ্জ), বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি (গাজীপুর), শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় (নেত্রকোনা), বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (জামালপুর), পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (পটুয়াখালী), কিশোরগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। শেষ দুটি বিশ্ববিদ্যালয় এ বছর নতুন করে গুচ্ছের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে।

ইত্তেফাক/ইআ