সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

বাংলাদেশের টেস্ট সংস্কৃতি নিয়ে যা বললেন সাকিব

আপডেট : ২৮ জুন ২০২২, ১৫:৪৫

সাদা পোশাকের ক্রিকেটে অভিষেকের পর থেকে এই আঙ্গিনায় ২২ বছর অতিক্রম করে ফেলেছে বাংলাদেশ। কিন্তু এখনো বলার মতো কোনো উন্নতি হয়নি। উল্টো দিনকে দিন কেবল পিছিয়েই যাচ্ছে মনে হয়। যা নিয়ে চিন্তিত ক্রিকেটমহল। সর্বশেষ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে শোচনীয় পরাজয়বরণ করেছে লাল সবুজের পতাকাধারীরা। এমন অবস্থায় আবারও নতুন করে পুরোনো প্রশ্ন উঠেছে, টাইগাররা আদৌ টেস্ট খেলার যোগ্য তো?

এ নিয়ে সেন্ট লুসিয়ায় সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত কথা বলেছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। কেন টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের এই হাল, এ থেকে উত্তরণের উপায় কি, আদৌ উত্তরণ করা সম্ভব? উপস্থিত বাংলাদেশি দুই সাংবাদিকের সব প্রশ্নেরই জবাব দেওয়ার চেষ্টা করেছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

সাকিব বলেন, ‌‘শুধু খেলোয়াড়দের দোষ দিলে হবে না, আমাদের দেশের সিস্টেমটাই এমন। আপনি কবে দেখছেন যে ৩০ হাজার দর্শক টেস্ট ম্যাচ দেখতেছে? ইংল্যান্ডে কিন্তু প্রতি ম্যাচেই এমন দেখা যায়। টেস্টের সংস্কৃতিটা আমাদের দেশে ছিল না কখনো, এখনো নেই। কিন্তু নাই বলে যে হবে না সেটাও না। ওই জিনিসটা চেঞ্জ করা আমাদের একটা বড় দায়িত্ব। সেটার জন্য সবাই মিলে একসঙ্গে যদি পরিকল্পনা করে এগোনো যায়, তাহলে কিছু হয়তো সম্ভব। তা না হলে আসলে খুব বেশিদূর আগানো সম্ভব হবে না। যেহেতু সংস্কৃতি নেই।’

তিনি বলেন, ‘টেস্ট ক্রিকেটকে যে আমরা খুব বেশি মূল্যায়ণ করি তা আমি বলবো না। এটা হতে পারে যে আমরা রেজাল্টও ভালো করি না। এ কারণে মূল্যায়ণ পাইনি। কিন্তু একটার সঙ্গে আরেকটার সম্পর্ক আছে। দুইটাকে একসঙ্গে যোগসূত্র করতে হবে। তখন ভালো কিছু করা সম্ভব।’

‘এটা নিশ্চিত করতে হবে যেন আমরা দেশের মাটিতে আগে ভালো খেলি, ধারাবাহিকভাবে। আমাদের জন্য এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। সবাই মিলে বসে যদি কোনো একটা পরিকল্পনা করে সামনের দিকে আগাই, তাহলে আমার ধারণা এক থেকে দেড় বছর সময় পেলে ধারাবাহিকভাবে ভালো রেজাল্ট করা সম্ভব। বলবো না যে টেস্ট ম্যাচ জিততেই হবে। পৃথিবীতে যদি দেখেন, যখনই কোনো দল অ্যাওয়ে সিরিজ খেলে, তারা কিন্তু আন্ডারডগ হিসেবেই খেলে। এখন নিউজিল্যান্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়ন। ওরাও বাইরের সিরিজগুলো খেলতে আসলে হেরে যায়। ইংল্যান্ডও যখন ওয়েস্ট ইন্ডিজে আসছে হেরে যাচ্ছে এবং অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের ক্ষেত্রে একই। আবার ভারতে অন্য দল গেলে তারাও হারে,’ যোগ করেন টেস্ট অধিনায়ক।

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা যেন ঘরের মাঠে না হারি এটা নিশ্চিত করতে হবে। হয় জিতবো নয়তো ড্র করবো। এই উন্নতিটা হলে এটা আমাদের অনেক দূর নিয়ে যাবে বাইরের পারফরম্যান্সগুলাতে। তখন হয়তো আমরা নাও জিততে পারি। কিন্তু অন্তত প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটটা খেলবো। যেটা খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়।’

ঘাটতির বিষয়ে সাকিব বলেন, ‘উন্নতি সব বিভাগেই করতে হবে। টেস্ট ম্যাচ জিততে হলে সব বিভাগেই উন্নতি করতে হবে। এটা ভালো যে সামনে বড় একটা গ্যাপ আছে (নভেম্বর পর্যন্ত)। টেস্টের জন্য আগ্রহী বা টেস্ট খেলতে চায় তাদের যার যার জায়গা থেকে এই উন্নতিগুলা করতে হবে। উন্নতি ছাড়া আর কোনো উপায় নেই আমাদের ভালো কিছু করার। এমন কোনো সেটাপ খেলোয়াড়ও নেই যে তাদের আনলে এসে ভালো করবে। যারা আছি, হয়তো বাইরে আরও ২-৪ জন আছি, সবাই মিলে যদি একসঙ্গে পরিকল্পনা করে আগাতে পারি, তাহলে হয়তো ভালো কিছু করা সম্ভব। তা না হলে এতদিন ধরে যা হয়ে আসছে, খুব বেশি পরিবর্তন হওয়ার সম্ভাবনা নেই।’

দেশের ইতিহাসের সেরা এই ক্রিকেটার বলেন, ‘আমাদের বেশকিছু জায়গায় পরিবর্তন আনতে হবে। সেটার জন্য আমাদের নিজেদের চিন্তাগত পরিবর্তনটাও খুব জরুরি। সেই জায়গাগুলো নিয়ে আসলে কাজ করার আছে। যেহেতু আমাদের হাতে পাঁচ মাসের মতো একটা সময় আছে। সবাই বসে, কথাবার্তা বলে সিদ্ধান্তগুলা নেওয়া যাবে।’

‘খেলায় সচেতনতা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ জিনিস। এই টেস্টের (সেন্ট লুসিয়া) কথাই যদি বলি ধরেন, পানি পানের বিরতির আগে, লাঞ্চ বিরতির আগে, ঠিক আগ মুহূর্তে, ঠিক এই সময়গুলোতে আমরা কিন্তু উইকেট দিয়ে আসছি। নাহলে কিন্তু পরিস্থিতি হয়তো অন্যরকম থাকতো। এই দুই টেস্ট শেষে আমার যা উপলব্ধি তা হলো, আমাদের যতটা ক্যারেক্টার শো করা দরকার ছিল, সেটা আমরা দেখাতে পারিনি।’

ইত্তেফাক/টিএ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

শুধুমাত্র পাকিস্তানের বিপক্ষে নয়, এশিয়া কাপও জিতবে ভারত: পন্টিং

ধারাভাষ্য থেকে বিদায় নিলেন চ্যাপেল

শুধুমাত্র পাকিস্তানের বিপক্ষে নয়, এশিয়া কাপও জিতবে ভারত: পন্টিং

ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে বাংলাদেশ ‘এ’ দলের ম্যাচ ড্র

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

‘শূন্যর’ কারণে আইপিএল দলের মালিক চড় মারেন টেইলরকে

এশিয়া কাপের দল ঘোষণা, তিন বছর পর ফিরলেন সাব্বির

টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপের নতুন অধিনায়ক সাকিব

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজে টিকে রইলো আফগানিস্তান