বৃহস্পতিবার, ১৮ আগস্ট ২০২২, ৩ ভাদ্র ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

প্রথম চাপ কাজ করতো, এখন স্বাভাবিক: রাজ

আপডেট : ০৯ জুলাই ২০২২, ১৬:০৩

অভিনেতা শরীফুল রাজ। মডেলিংয়ের পাঠ চুকিয়ে এসেছেন সিনেমায়। ‘ন ডরাই’, ‘নেটওয়ার্কের বাইরে’, ওয়েব ফিল্ম ও ‘গুণিন’-এ অভিনয় করে বেশ আলোচনায় এসেছেন। তবে তার চেয়ে বেশি আলোচনায় এসেছেন চিত্রনায়িকা পরীমণিকে বিয়ে করে। আসন্ন ঈদুল আজহায় মুক্তি পাচ্ছে তার অভিনীত সিনেমা ‘পরাণ’। ঈদের পরেই মুক্তি পাবে তার আরও একটি সিনেমা। নতুন সিনেমা মুক্তি ও ব্যাক্তিগত বিষয় নিয়ে বুধবার ইত্তেফাকের সঙ্গে কথা বলেছেন শরীফুল রাজ।

ইত্তেফাক: ঈদে আপনার নতুন সিনেমা ‘পরাণ’ আসছে। অনুভূতি কেমন?
শরীফুল রাজ: সিনেমায় আসার পর সবসময়ই ভালো অভিনয় করে যাওয়ার চেষ্টা করেছি। এখনো করছি। ঈদে আমার প্রথম সিনেমা আসছে। খুবই উচ্ছ্বসিত আমি। এটা আসছে অন্যরকম অনুভূতি। এ ছবির দুটি গান ও টিজার প্রকাশের পর নতুন করে দর্শকের ভীষণ সাড়া পাচ্ছি। সেন্সরবোর্ডের সদস্যরা ছবিটি দেখার পর আমার প্রশংসা করেছেন। এটা আমার জন্য বড় পাওয়া। তবে এই ছবির প্রত্যেকেই দারুণ অভিনয় করেছেন। দর্শক ছবিটি দেখার পরই সেটা বুঝতে পারবেন।’

ইত্তেফাক: গুঞ্জন রয়েছে, বরগুনার আলোচিত মিন্নি-রিফাত-নয়ন বন্ডের ঘটনার ছায়া অবলম্বনে নির্মিত হয়েছে ঈদের ছবি ‘পরাণ’। আসলেই কি তাই?
শরিফুল রাজ: কই! আমার তো তেমন মনে হয়নি। আমি নয়ন বন্ডের চরিত্র রূপায়ন করিনি। রাফী আমাকে স্ক্রিপ্ট দিলে দুর্দান্ত একটি গল্প পাই। মূলত রোমান্টিক ও সুইট গল্প বলে আমার পছন্দ হয়ে যায়। ট্রেলার প্রকাশের পর মানুষ নয়ন বন্ডের সঙ্গে কিছুটা মিল পাচ্ছে। আসলেই সেই হত্যাকাণ্ড বা কী কাহিনি সেটা ‘পরাণ’ সিনেমাটা দেখলে বোঝা যাবে। মফঃস্বলের প্রেমিকরা এমনই। প্রেমে পড়লে নানা রকম ঘটনা ঘটায়। একইভাবে এই চরিত্রে আমি ডেসপারেট ছিলাম। এছাড়া আমি অভিনেতা। আমাকে পরিচালক যেভাবে বলে, সেভাবে নিজেকে মেলে ধরেছি। কাজটা করে আমার অভিজ্ঞতা একেবারে ব্রিলিয়ান্ট।

ইত্তেফাক: এই মাসে আপনার আরও একটি সিনেমা মুক্তি পাচ্ছে। এক মাসে দুই সিনেমা মুক্তি আপনার জন্য বাড়তি চাপ না?
শরিফুল রাজ: প্রথম প্রথম চাপ কাজ করতো। এখন স্বাভাবিক। সিনেমাটি দুটির কাজ অনেক আগেই শেষ করেছি। ‘পরাণ’ শেষ করেই ‘হাওয়া’র কাজ করেছি, সেভাবেই সিনেমা দুটি মুক্তি পাচ্ছে। আমরা পুরো টিম পরিশ্রম করেছি। দর্শক সিনেমা হলে গিয়ে সিনেমাগুলো দেখলেই আমাদের কষ্টটা সার্থক হয়।

শরিফুল রাজ। ছবি: ইত্তেফাক

ইত্তেফাক: অভিনেতা হিসেবে তো আপনার পরিচয় আছে কিন্তু এখন পরীমণির স্বামী হিসেবেই আপনাকে বেশি চিনছে। বিষয়টি আপনি কিভাবে নিচ্ছেন?
শরীফুল রাজ: অভিনেতা ও পরীমণির স্বামী দুই পরিচয়ই আমার ভালো লাগে। পরীমণি অবশ্যই তেমন মানুষ বলেই ওর স্বামী হিসেবে লোকে আমাকেও চিনছে। তবে একটা কথা বলি, পরীমণি অসাধারণ একজন মানুষ। ওর ভেতরে অসাধারণ একজন ভালো মানুষ বসবাস করে। খুব ভালোবাসে আমাকে। আমিও।

ইত্তেফাক: সংসার কেমন যাচ্ছে?
শরিফুল রাজ: জোস। আসলে পরী যে এত গোছালো, সেটা আমি আগে থেকে জানতাম না। ও ছোট ছোট বিষয়ে অনেক গোছালো কিন্তু আমি একদম উল্টো। আমার জীবনটা পুরোপুরি গুছিয়ে দিয়েছে। ওকে সামনাসামনি এভাবে দেখে মাঝেমাঝে বিব্রত হই। আমি ভাগ্যবান, ওর মতো পার্টনার আমার জীবনে পেয়েছি।

ইত্তেফাক: পরীমনিকে নিয়ে অনেক ধরনের বিতর্ক রয়েছে, আলোচনা হয়েছে। আপনি যখন তাকে বিয়ের সিদ্ধান্ত নিলেন, তখন এসব নিয়ে কে কী বলবে সেই বিষয়গুলো মাথায় কাজ করেছিল?
শরিফুল রাজ: আমি এসব বিষয় একদমই কেয়ার করি না। কে কী ভাববে, সেটা ভেবে যদি আমার সিদ্ধান্ত নিতে হয়, তাহলে মানুষ হিসেবে এটা হলো না। আসলে এটা আমার ব্যক্তিগত সিদ্ধান্তে হয়েছে।

ইত্তেফাক: আপনাদের নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে যখন নানা নেগেটিভ মন্তব্য দেখেন, তখন কি কষ্ট লাগে?
শরিফুল রাজ: মাঝে মাঝে খুব কষ্ট লাগে। কারণ আমার মনে হয়, তাদের ঘরে মাও নেই, বোনও নেই। আসলে মানুষকে মানুষ হিসেবে বিচার করে মন্তব্য করা উচিত। মন চাইলো ফেসবুকে কারও পোস্টে ঢুকে একটা মন্তব্য করে চলে এলাম, আনন্দ পেলাম; এটা বড় ক্রেডিটের জিনিস না, এটা খুব খারাপ জিনিস। মানুষের চিন্তাভাবনার জায়গাটা একটু পরিবর্তন করা উচিত।

ইত্তেফাক/বিএএফ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন