শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

নেতা-কর্মীদের বন্যার্তদের পাশে থাকতে বলেছেন খালেদা জিয়া: ফখরুল

আপডেট : ১১ জুলাই ২০২২, ০৮:৫০

কষ্ট লাঘব না হওয়া পর্যন্ত বিএনপির সকল স্তরের নেতা-কর্মীদের বন্যার্তদের পাশে থাকতে বলেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। রবিবার (১০ জুলাই) রাতে গুলশানের বাসায় দলের চেয়ারপারসনের সাথে সাক্ষাতের পর দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের কাছে এ কথা জানান।

মির্জা ফখরুল বলেন, দেশনেত্রী খালেদা জিয়া সিলেট, সুনামগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, নেত্রকোনায় যেখানে মানুষ বন্যা প্লাবিত হয়েছে, সেসব দুর্গত মানুষের খবর আমাদের কাছ থেকে নিয়েছেন।

তিনি আমাদের বলেছেন, তোমরা বন্যা দুর্গত মানুষের পাশে থাকবে তাদের কষ্ট লাঘব না হওয়া পর্যন্ত। তিনি মনে করেন বন্যার্তদের সেবা করা মানে হচ্ছে মানুষের সেবা করা এবং এটাই রাজনীতির প্রধান লক্ষ্য হওয়া উচিত।

খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার বিষয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, তিনি এখন যে অবস্থায় আছেন তাতে তার ইমিডিয়েট কোনো বিপদ না থাকলেও তিনি এখনো অসুস্থ। আমরা বার বার বলে আসছি, বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য বাইরে নেয়া জরুরি। এখানকার ডাক্তাররা বার বার করে বলেছেন যেরকম উন্নত চিকিৎসা তার (খালেদা জিয়া) দরকার, সেই উন্নত চিকিৎসা কেন্দ্র এখানে নেই। যে কারণে তারা (চিকিৎসকরা) মনে করেন, ম্যাডামের সম্পূর্ণ রোগমুক্ত করার জন্য অবশ্যই দেশের বাইরে উন্নত চিকিৎসা কেন্দ্রে নেয়া প্রয়োজন। আমরা সেই কথা আবারও আপনাদের কাছে তুলে ধরছি।

রবিবার রাত ১০টায় গুলশানের ‘ফিরোজা’য় যান মির্জা ফখরুল ইসলাম।

দেশের রাজনীতি নিয়ে কোনো কথা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘উনি আমাদের দলের প্রধান, দলের চেয়ারপারসন, তিনবারের প্রধানমন্ত্রী। এখনো তিনি দেশের চলমান যে গণতান্ত্রিক আন্দোলন তার খোঁজ-খবর রাখছেন। তিনি মনে করেন, বাংলাদেশের গণতন্ত্রকামী মানুষ নিশ্চয়ই গণতন্ত্রকে প্রতিষ্ঠা করবে।

খালেদা জিয়া দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বলেও জানান বিএনপি মহাসচিব।

এর আগে রোববার রাত সোয়া ৮টায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাথে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতারা। গুলশান-২ এর ৭৯ নম্বর সড়কে গুলশানের বাসা ফিরোজায় যান দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ সিনিয়র নেতারা। মির্জা ফখরুলের সাথে যান বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও সেলিমা রহমান।

 

ইত্তেফাক/ইআ