সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

‘হাওয়া বাংলা সিনেমার ইতিহাসে অন্যরকম জায়গা দখল করবে’

আপডেট : ২২ জুলাই ২০২২, ১০:৪৭

‘পরাণ’ সিনেমা দিয়ে বেশ আলোচনায় রয়েছেন এ প্রজন্মের অভিনেতা শরীফুল রাজ। এছাড়া চলতি মাসে মুক্তি পাচ্ছে তার নতুন আরও একটি সিনেমা। এই সিনেমাগুলোর পাশাপাশি নিজের অভিনয় ভাবনা এবং সংসার জীবন নিয়ে কথা বললেন ইত্তেফাক’র সঙ্গে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন এ এম রুবেল

আপনার ‘পরাণ’ সিনেমাটি নিয়ে নানা মাধ্যমে বেশ আলোচনা চলছে। আসলে বিষয়টি আপনার চোখে কেমন দেখছেন?
সবাই যেভাবে সাড়া দিয়েছেন তা অভাবনীয়, আমরা মুগ্ধ। কখনও ভাবিনি এতটা সাড়া দর্শকদের কাছ থেকে পাবো। দর্শক টিকেট পাচ্ছে না, অগ্রীম টিকেট কাটছে। আমার মনে হয়, বাংলা সিনেমা দেখার একটা নতুন অভ্যাস তৈরি হলো। এটা আমাদের ইন্ডাস্ট্রির জন্য ইতিবাচক। কৃতজ্ঞতা যারা কষ্ট করে টিকেট কেটে হলে যাচ্ছে তাদের সবার প্রতি।

সিনেমাটির এমন সাফল্য শরীফুল রাজের ক্যারিয়ারে টার্নিং পয়েন্ট হতে যাচ্ছে কি-না?
অবশ্যই আমার ক্যারিয়ারে নতুন একটি মাত্রা যুক্ত করলো ‘পরাণ’। কারণ এর আগে আমার অন্য সিনেমাগুলো দিয়ে এতটা সাফল্য আমি পাইনি। এই সিনেমাটিতে আমার চরিত্রটি সবাই পছন্দ করেছেন। এছাড়া ভালো গল্পের এই সিনেমাটিতে সবাই নিজেদের সেরাটা দিয়ে অভিনয় করেছেন। সব কিছু মিলিয়ে এই সিনেমাটি আমার ক্যারিয়ারে অন্যতম জায়গা জুড়ে থাকবে।

আসছে ২৯ জুলাই আপনার ‘হাওয়া’ মুক্তি পাচ্ছে। একটি সিনেমার সাফল্যের মাঝে নতুন সিনেমা মুক্তি নিয়ে প্রত্যাশা কতটুকু থাকছে?
পরাণ যেভাবে দর্শকরা পছন্দ করেছেন সেভাবেই হাওয়া সিনেমাটি পছন্দ করবেন। কারণ সিনেমাটি আমাদের দেশের একটি গল্পে নির্মিত হওয়ার পাশাপাশি বিগ কাস্টিং রয়েছে সিনেমাটিতে। আমার বিশ্বাস, হাওয়া সিনেমায় আমার অভিনীত ইব্রাহিম চরিত্র সবার মন ছুঁয়ে যাবে। আমার মনে হয় ‘হাওয়া’ বাংলা সিনেমার ইতিহাসে অন্যরকম জায়গা দখল করবে।

চঞ্চল চৌধুরী মানেই দর্শকদের কাছে এক মুগ্ধতার নাম। এমন গুণী অভিনেতার সঙ্গে সিনেমাটিতে অভিনয় করেছেন। অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?
চঞ্চল ভাই আমার অনেক পছন্দের একজন অভিনেতা। তার সঙ্গে পারফর্ম করা আমার জন্য অন্যরকম প্রাপ্তি ছিল। কাজের ক্ষেত্রে অনেক সহযোগিতা পেয়েছি তার কাছ থেকে।

ঈদে মুক্তি পাওয়া সিনেমাগুলো নিয়ে নানা তর্ক-বির্তক, ট্রল চলছে। বিষয়টি নিয়ে কী মন্তব্য করবেন?
দেখুন, আমি তো ইন্ডাস্ট্রিতে জুনিয়র। সবে যাত্রা শুরু করেছি। দিনশেষে আমি চেয়েছি আমার সিনেমাটির প্রচারণায় যুক্ত থাকতে, মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে। আমি তো আসলে সুস্থধারার মানুষের সঙ্গে কাজ করে অভ্যস্থ। সেই জায়গায় এ ধরনের আচরণ নেওয়ার মতো এনার্জি আমার কাম্য না। তাছাড়া বড়দের কাছ থেকে এমন কথাবার্তা কখনও প্রত্যাশা করি না। আমরা নতুন যারা কাজ করছি তারা বড়দের সুস্থভাবে পাশে চাই।

এর বাইরে নতুন কোন কাজগুলো নিয়ে ব্যস্ত আছেন?
বর্তমানে হাতে দুটি সিনেমার কাজ রয়েছে। এরইমধ্যে সিনেমাগুলো অর্ধেক শুটিং শেষ করেছি। পাশাপাশি বেশ কিছু কাজের কথাবার্তা চলছে।

ওটিটিতেও বেশকিছু কাজ করেছেন। মাধ্যমটির ভবিষ্যত্ কেমন দেখছেন?
আমি তো ওটিটির ভবিষ্যত্ খুবই ভালো দেখছি। কারণ এই মাধ্যমটিতে কাজ করলে বেশিসংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছানো যায়। এখানে সময় এবং বাজেট ভালো থাকায় মান ধরে রেখে কাজও করা যায়। ভালো গল্প চরিত্র পেলে আবারও ওটিটিতে কাজ করার ইচ্ছে আছে।

অনেকেই বলেন, নতুনদের কাজের ক্ষেত্র ততটা অনুকূল নয়। আপনার অভিজ্ঞতা কেমন?
আমার অবশ্য তেমন প্রতিকূলতা মোকাবেলা করতে হয়নি। শুরু থেকেই আমি ভালো ভালো নির্মাতার সঙ্গে কাজের সুযোগ পেয়েছি। তবে পরাণ মুক্তির পর দেখছি ইন্ডাস্ট্রির সবাই সবার পাশে দাঁড়ায় না, এটা দেখে বিস্মিত হয়েছি। কিন্তু সবার একে অন্যের পাশে থাকা প্রত্যাশা করি।

তারকা দম্পতি হিসেবে পরীমনি কাজে কেমন অনুপ্রেরণা জোগাচ্ছেন? সব মিলিয়ে সংসার জীবন কেমন কাটছে?
আমি আসলে ঘরে বাইরে সব জায়গাতেই পরীর সাপোর্ট পাচ্ছি। এমনকি আমার সিনেমার প্রচারণায়ও অংশ নিচ্ছে। সংসার জীবনও দারুণ কাটছে। আমাদের বেবি আসছে। সব মিলিয়ে খুবই সুখে আছি আমরা।

ইত্তেফাক/এসজেড