বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৬ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

মাগুরায় এডিসি লাবণী, কুষ্টিয়ায় কনস্টেবল মাহমুদুলের দাফন সম্পন্ন

আপডেট : ২২ জুলাই ২০২২, ১৭:৩২

মাগুরায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার লাবনী আক্তার ও তার সাবেক দেহরক্ষী মাহমুদুল হাসানের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মাগুরা সদর হাসপাতালে উভয়ের ময়নাতদন্ত শেষে স্ব স্ব পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়।

বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে লাবনী আক্তারের লাশ তার বাড়িতে নেওয়া হয়। এরপর তার মৃতদেহ শ্রীপুরের সারঙ্গদীয়া গ্রামে প্রথম নামাজে জানাজা শেষে লাবনী আক্তারের বাড়ি শ্রীপুরের বরালীদহ গ্রামে নেওয়া  হয়। এখানে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা শেষে রাত ১১টার দিকে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। 
অন্যদিকে লাবনী আক্তারের  দেহরক্ষী মাহমুদুল হাসানের লাশ তার গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের পপুলবাড়িয়া গ্রামে নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার লাবনী আক্তারের দুটি শিশু কন্যা রয়েছে। একটির বয়স ৮ অন্যটির ৪ বছর। 

 অতিরিক্ত পুলিশ সুপার লাবনী আক্তার

লাবনী আক্তারের পারিবারিক সূত্রে দাবি- স্বামী-স্ত্রীর পারিবারিক দ্বন্দ্বে এই ঘটনা ঘটতে পারে। পুলিশ এই দুটি অপমৃত্যু নিয়ে তদন্ত করছে । তবে এখনো কোনো নতুন তথ্য পাওয়া যায়নি। লাবনী আক্তারের মৃত্যুর অপমৃত্যুর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই  নিলুফা জানান, জোর তদন্ত চলছে। নতুন কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

বৃহস্পতিবার সকালে মাগুরা পুলিশ লাইন্স ব্যারাকের ছাদ থেকে মাহমুদুল হাসান নামে এক পুলিশ কনস্টেবলের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করা হয়। তিনি মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। অন্যদিকে মাগুরার শ্রীপুরের সারঙ্গদিয়ায় গলায় ওড়না পেঁচিয়ে বুধবার রাতে আত্মহত্যা করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার লাবনী আক্তার। তিনি খুলনা মেট্রো পলিটন রেঞ্জে ডিবি পুলিশের এডিসি হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

 মাহমুদুল হাসান।

একই দিনে দুজনের আত্মহত্যার নেপথ্যে কোনো যোগসূত্র আছে কিনা সে বিষয়ে কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।

ইত্তেফাক/ইউবি