বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ইউক্রেনের হামলায় রুশ নিয়ন্ত্রিত খেরাসন বিচ্ছিন্ন

রাশিয়ার সব পরিকল্পনা নস্যাৎ করে দেবো: জেলেনস্কি

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২২, ০৬:২০

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছেন, তাদের বিরুদ্ধে রাশিয়ার যে কোনো পরিকল্পনা নস্যাৎ করে দেবে তার দেশ। বুধবার দিবাগত রাতে ভিডিও ভাষণে বলেন, আমাদের ভূখণ্ডে দখলদাররা যেন কোনো লজিস্টিক সুযোগ না পায় সেজন্য সবকিছু করছি আমরা।

ইউক্রেনের সেনাবাহিনী আক্রমণকারী রুশ সেনাদের বিরুদ্ধে বড় আকারের পালটা হামলার প্রস্ত্ততি নিয়েছে। গত কয়েক সপ্তাহ ধরে ইউক্রেনের কামান দল, স্পেশাল ফোর্স ও সমর্থকরা পালটা হামলা চালানোর পটভূমি তৈরি করেছে। রুশ বাহিনীর দখলে থাকা কেন্দ্র, গুরুত্বপূর্ণ রেললাইন ও সেতু ধ্বংস করেছে ইতিমধ্যে। এ নিয়ে ভাষণে ইউক্রেনীয় প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি বলেন, খেরসনের কৌশলগত মূল সেতুতে (আন্তোনোভস্কি সেতু) হামলা চালিয়েছে আমাদের যোদ্ধারা। রাশিয়ার যে কোনো পরিকল্পনা থাকুক না কেনো, তা আমরা ব্যাহত করব। আমাদের ভূখণ্ড অবশ্যই মুক্ত করব।

খেরাসন বিচ্ছিন্ন: ইউক্রেনের একটি পালটা হামলায় রাশিয়ার দখলে থাকা দক্ষিণাঞ্চলীয় খেরাসন শহর কার্যত বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। এর ফলে ডিনিপ্রো নদীর কাছে অবস্থান নেওয়া কয়েক হাজার রুশ সেনা চরম ঝুঁকিতে রয়েছে। বৃহস্পতিবার ব্রিটিশ প্রতিরক্ষা ও গোয়েন্দা কর্মকর্তারা এমন দাবি করেছেন। খেরাসনকে রুশ দখলমুক্ত করার অঙ্গীকারের কথা স্পষ্টভাবে ঘোষণা করেছে ইউক্রেন। ২৪ ফেব্রুয়ারি রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের নির্দেশে অভিযান শুরুর প্রথম দিকে খেরাসন দখলে নিয়েছিল রাশিয়া।

দ্বিতীয় বৃহত্তম বিদ্যুৎকেন্দ্র বেদখল: ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে রুশ বাহিনী। একই সঙ্গে দক্ষিণাঞ্চলীয় তিনটি এলাকায় ‘ব্যাপক হারে পুনরায় সেনা মোতায়েন করছে’ মস্কো। ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের একজন উপদেষ্টা এ কথা জানিয়েছেন। এসব এলাকায় ইউক্রেনীয় বাহিনী পালটা হামলা শুরু করতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। গতকাল বুধবার রুশ বাহিনী জানিয়েছে, তারা সোভিয়েত আমলের ভুলেহিরস্ক কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র অক্ষত অবস্থায় দখল করেছে। তিন সপ্তাহের বেশি সময়ের মধ্যে এটি রুশ বাহিনীর উল্লেখযোগ্য সফলতা হিসেবে দেখা হচ্ছে।

কিয়েভে বিয়ে বেড়েছে আট গুণ: যুদ্ধের মধ্যেও সেখানে বিয়ের নিবন্ধন বেড়েছে ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে। গত পাঁচ মাসে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় বিয়ে বেড়েছে আট গুণ। এ সময়ে সেখানে ৯ হাজার ১২০টি বিয়ে নিবন্ধন হয়। গত বছরের একই সময়ে ১ হাজার ১১০টি বিয়ে নিবন্ধন হয়েছিল। সে হিসাবে এই পাঁচ মাসে নিবন্ধিত বিয়ের সংখ্যা বেড়েছে আট গুণের বেশি। তেতিয়ানা নামে একজন সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘মে মাসে আমরা বুঝতে পারি, এই যুদ্ধ আরো দীর্ঘ সময় ধরে চলবে। আমরা সিদ্ধান্ত নিলাম, পরে বিয়ে করব বলে জীবনকে আটকে রাখা যাবে না। এই যুদ্ধ আমাদের শিখিয়েছে, এই সুযোগ আর কখনো নাও আসতে পারে।’

ইত্তেফাক/এএইচপি