বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ২০ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

বিমানের কাছে সিভিল অ্যাভিয়েশন পাবে প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকা

আপডেট : ৩০ জুলাই ২০২২, ০৫:০০

বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) বকেয়া অর্থের পরিমাণ ক্রমাগত বেড়ে চলেছে। রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস এবং বেসরকারি বিভিন্ন এয়ারলাইনসের কাছে ৪ হাজার কোটি টাকার বেশি বকেয়া পড়ে আছে। বিমান এবং অন্য সংস্হাগুলোর কাছে চিঠি দিয়ে বার বার তাগাদা দিলেও কোনো সাড়া মিলছে না। বছরের পর বছর ধরে কেবল বিমানের কাছেই বেবিচকের বকেয়া আটকে আছে ৩ হাজার ৯২ কোটি ৬৬ লাখ ৭০ হাজার ৪৫২ টাকা। 

সংশ্লিষ্ট সূত্র অনুযায়ী, বিমানের কাছে বেবিচকের বর্তমান পাওনার মধ্যে মূল বিল ৯৮৬ কোটি ৪৬ লাখ ৬৬ হাজার ৮৭৮ টাকা। ভ্যাট ও আয়কর ২৭১ কোটি ৮৬ লাখ ৫০ হাজার ২৯৯ টাকা। এর বাইরে বকেয়ার ওপর অতিরিক্ত চার্জ (সারচার্জ) ৩ হাজার ১৯২ কোটি ৪৩ লাখ ২৩ হাজার ৫০০ টাকা। বেবিচকের অধীনে বর্তমানে তিনটি আন্তর্জাতিকসহ মোট আটটি বিমানবন্দর রয়েছে। তাদের আদায় করা অ্যারোনটিক্যাল চার্জগুলোর মধ্যে রয়েছে—বিমানের ল্যান্ডিং চার্জ, রুট নেভিগেশন সার্ভিস চার্জ, বোর্ডিং ব্রিজ ব্যবহার চার্জ ও এমবারকেশন। নন-অ্যারোনটিক্যাল চার্জগুলো হলো—গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং, চেক-ইন কাউন্টার ভাড়া, কার পার্কিং ও এভিয়েশন ক্যাটারিং সার্ভিস। পুরোনো বকেয়া নিয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) শরণাপন্ন হলেও এখনো সুফল মেলেনি। 

সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে বকেয়া কেন আদায় হচ্ছে না, সে বিষয়ে বিস্তারিত প্রতিবেদন চেয়ে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছিল দুদক। ২০২০ সালের ১৪ অক্টোবর প্রথম দফায় চিঠি দেওয়া হলেও কোনো প্রতিক্রিয়া বা জবাব দেয়নি মন্ত্রণালয়। প্রায় ১৯ মাস অপেক্ষার পর দ্বিতীয় দফায় চিঠি দেয় দুদক। কিন্তু কোনো ফল হয়নি। চিঠিতে বলা হয়, পুঞ্জীভূত বকেয়ার কারণ, বকেয়া আদায়ের জন্য গৃহীত ব্যবস্হার বিবরণ দুর্নীতি দমন কমিশনকে অবহিত করার জন্য সূত্রস্হ স্মারকমূলে অনুরোধ করা হয়েছিল। কিন্তু কোনো জবাব পাওয়া যায়নি। ঐ বকেয়া আদায়ের জন্য কী কী ব্যবস্হা গ্রহণ করা হয়েছে তা জানানোর জন্য কমিশন কর্তৃক চিঠি পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ অবস্থায় সাত কার্যদিবসের মধ্যে বকেয়া আদায়ের জন্য কী কী ব্যবস্হা নেওয়া হয়েছে তার জবাব পাঠানোর প্রয়োজনীয় ব্যবস্হা গ্রহণের জন্য পুনরায় অনুরোধ করা হলো।’ সেই সাত কর্মদিবস বহু আগে পার হলেও সাড়া মেলেনি। চিঠির বিষয়ে জানতে চাইলে দুদক সচিব মো.মাহবুব হোসেন বলেন, যে কোনো অভিযোগের বিষয়ে দুদক বিধি অনুযায়ী ব্যবস্হা নিয়ে থাকে। সে অনুযায়ী ব্যবস্হা নেবে দুদক। 

এদিকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস বেবিচকের পাওনা পরিশোধ না করেই চলতি বছর সর্বোচ্চ লাভ দেখিয়েছে। বিমান বলছে, এই সব বকেয়া অনেক পুরোনো। গত দুই বছরে তারা বেবিচকের কোনো ধরনের চার্জ বকেয়া রাখেনি। পরিশোধ করেছে জেট ফুয়েলের (পদ্মা অয়েল) সব খরচ। তবে, এর আগের বকেয়া পরিশোধের পরিকল্পনা নেই তাদের। অন্যদিকে বেবিচক বলছে, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস থেকে অ্যারোনটিক্যাল ও নন-অ্যারোনটিক্যাল মিলে ৩ হাজার ৯২ কোটি টাকা পাওনা রয়েছে। কিন্তু পাওনা পরিশোধ না করেই চলতি বছর সর্বোচ্চ লাভ দেখিয়েছে। বিপুল অঙ্কের এই দেনা পরিশোধের চিন্তা ছাড়াই টানা দ্বিতীয় বছরের মতো লাভ দেখিয়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০২০-২১ অর্থবছরে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ১৫৮ কোটি ৪০ লাখ টাকা নিট লাভ দেখায়। ২০২১-২২ অর্থবছরের আট মাসে (ফেব্র‚য়ারি-ডিসেম্বর পর্যন্ত) প্রতিষ্ঠানটি লাভ দেখায় ৩২৮ কোটি টাকা। সর্বশেষ ২০১৪-১৫ অর্থবছরে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ৩২৪ কোটি টাকা মুনাফা করে। গত ১২ বছরের হিসাব করলে এটাই বিমানের সর্বোচ্চ মুনাফা। তবে, বেবিচকের দেনার বিষয়ে তথ্য নেই তাদের কাছে।

বিমানের সাবেক পরিচালনা পর্ষদের সদস্য ও বিশিষ্ট এভিয়েশন বিশেষজ্ঞ কাজী ওয়াহিদুল আলম বলেন, বেবিচকের দেনা বাদ রেখে বিমানের লাভ-ক্ষতি হিসাবের কোনো সুযোগ নেই। একটি এয়ারলাইনসের খরচের ৫০ ভাগই যায় বেবিচকের চার্জ ও তেলের দামের পেছনে। এই দেনা বাদ দিয়ে লাভ-ক্ষতির হিসাব করতে গেলে সেটা কিন্তু জাস্টিফায়েড (ন্যায়সঙ্গত) হবে না। বুঝতে হবে তারা লাভটা টুইস্ট করছে। পৃথিবীর সব দেশের এয়ারলাইনসগুলো তাদের আর্থিক প্রতিবেদন পাবলিকলি (সর্বসমক্ষে) প্রকাশ করে। কিন্তু বাংলাদেশে এটা করা হয় না। ২০০৮ সালে প্রায় ১ হাজার ৮০০ কোটি টাকার পাহাড়সম দেনায় পড়ে বিমান। ওই সময় অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে আবেদন করে ১ হাজার ২১৬ কোটি টাকার সারচার্জ মওকুফ পায় প্রতিষ্ঠানটি। বাকি ৫৭৩ কোটি টাকা পরিশোধ করে দায়মুক্তি পায় বিমান।

ইত্তেফাক/এএইচপি