বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

দেশে চাষ হচ্ছে সুপার ফুড কিনোয়া 

আপডেট : ৩০ জুলাই ২০২২, ১৫:৪৬

উত্তর আমেরিকার জনপ্রিয় ফসল সুপার ফুড কিনোয়া এখন বাংলাদেশে চাষ হচ্ছে। জনপ্রিয় ফসল কিনোয়াকে নিয়ে বাংলাদেশের শের-ই-বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে গবেষণা করা হয়েছে। দীর্ঘ গবেষণার পর মাঠ পর্যায়ে পাঁচটি প্লটে নতুন এই ফসলটির চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে লালমনিরহাটে দুটি, কুড়িগ্রামে একটি, পটুয়াখালীতে দুটি প্লটে চাষাবাদ হচ্ছে। দুটি প্লটে ৫০ শতাংশ জমিতে কিনোয়ার চাষ হচ্ছে লালমনিরহাটে। আশানুরূপ ফসল উৎপাদন হবে বলে আশা করছেন কৃষকরা।

কৃষি বিজ্ঞানীরা জানান প্রতি শতাংশ জমিতে কিনোয়া চাষ করতে ৫০০-৬০০ টাকা খরচ হয় এবং এতে ফসল উৎপন্ন হবে ৪-৬ কেজি কিনোয়া। কৃষকদের দিয়ে পরীক্ষামূলকভাবে কিনোয়ার চাষ করে সুফল পাওয়া গেছে।

বাংলাদেশে কিনোয়ার চাষের অনুকূলে পরিবেশ রয়েছে। আন্তর্জাতিক বাজারে কিনোয়ার ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। তবে বাংলাদেশের মানুষ কিনোয়ার ব্যাপারে এত বেশি অবগত নন। যে কারণে এখনো পর্যন্ত এখানে কিনোয়ার মার্কেট গড়ো ওঠেনি। তবে সীমিত পর্যায়ে কিনোয়ার চাহিদা রয়েছে। যে কারণে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বড় বড় শহরগুলোর সুপারশপে কিনোয়া পাওয়া যাচ্ছে। আগ্রহীরা সুপার শপগুলো থেকে কিনোয়া সংগ্রহ করে থাকেন। বর্তমানে বাংলাদেশে বিদেশ থেকে কিনোয়া আমদানি করে কিনোয়ার চাহিদা পূরণ করা হচ্ছে। আমদানিকৃত কিনোয়ার প্রতি কেজির দাম হচ্ছে ১ হাজার ৬০০ টাকা। দেশে ক্রমেই কিনোয়ার ক্রেতা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

কিনোয়ার চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় আগ্রহী চাষিরা কিনোয়া চাষে এগিয়ে আসছেন। লালমনিরহাটের বিভিন্ন এলাকায় কৃষি বিজ্ঞানীরা চাষিদেরকে কিনোয়া চাষে বিশেষ প্রশিক্ষণ প্রদান করে কিনোয়ার বীজ প্রদান করছেন। এতে কৃষকদের মাঝে আগ্রহের সৃষ্টি হচ্ছে। কোনো রাসায়নিক সার প্রয়োগ ছাড়া জৈব সার ব্যবহার করে এই ফসলের চাষ করা যায়।

এক কৃষক জানান, ২৫ শতাংশ জমিতে কিনোয়া চাষ করতে তার ১৩ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। উক্ত কৃষক ২৫ শতাংশ জমি থেকে ৮০-৯০ কেজি কিনোয়ার ফলন উৎপন্ন হবে। খরাপ্রবণ ও লবণাক্ত এই দুই ধরনের জমিতেই কিনোয়া চাষ করা সম্ভব। নভেম্বরের মাঝামাঝি এ ফসল চাষ করে মার্চের প্রথম সপ্তাহ থেকে মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত ফলন ঘরে তোলা যায়।

কিনোয়া হলো হাই প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার। এটিকে সুপার ফুডও বলা হয়। কিনোয়ায় অ্যামিনো এসিড থাকে এবং লাইসিন সমৃদ্ধ যা সারা শরীর জুড়ে স্বাস্হ্যকর টিসু্য বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। কিনোয়ায় আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন-ই, পটাসিয়াম এবং ফাইবারের একটি অন্যতম উত্স। কিনোয়া রান্না করা হলে এর দানাগুলো আকারে চার গুণ বড় হয়ে যায় এবং দেখতে প্রায় স্বচ্ছ হয়ে যায়।

ইত্তেফাক/এসজেড