শনিবার, ২০ আগস্ট ২০২২, ৪ ভাদ্র ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

চবিতে স্কলারশিপ প্রাপ্ত ৫৫ শিক্ষার্থী ও ১০ গবেষককে সংবর্ধনা

আপডেট : ৩১ জুলাই ২০২২, ১৯:৪৯

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) বিদেশে উচ্চশিক্ষায় স্কলারশিপপ্রাপ্ত শিক্ষার্থী ও বিগত বছরের সর্বোচ্চ ইমপ্যাক্ট ফ্যাক্টরধারী গবেষণাপত্র প্রকাশকদের জন্য শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় রিসার্চ অ্যান্ড হায়ার স্টাডি সোসাইটি (সিইউআরএইচএস) রবিবার (৩১ জুলাই) বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্জিনিয়ারিং অনুষদের ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে এই সংবর্ধনা এবং পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

সংগঠনটির সহ-সম্পাদক কাবেরী দাস ও মো. আল আমিনের সঞ্চালনায় সভাপতিত্ব করেন সিইউআরএইচএসের মডারেটর ও জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. আদনান মান্নান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিইউআরএইচএসের সভাপতি তাকবির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক শরীফ মাহমুদ ও  সহ-সম্পাদক ইকবাল হোসেন নাফিজ।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এ বছর ৫৫ জন শিক্ষার্থী স্নাতকোত্তর পর্যায়ে অধ্যয়নের জন্য বিশ্ব র‍্যাংকিং এ শীর্ষ ৫০০ টি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে স্কলারশিপ অর্জন করেছে। এ ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গবেষণা প্রকাশনার সংখ্যা দ্বিগুণ হয়ে ৫৫০ এ উন্নীত হয়েছে।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক বেনু কুমার দে।

অধ্যাপক বেনু কুমার দে বলেন, তোমাদের এই অর্জনে আমরা গৌরবান্বিত হই। আমরা প্রায় সময়ই দেখি চবি নেগেটিভ শিরোনামে পরিচিত হচ্ছে। এই পরিচিতি আমাদের হতাশ করে। কিন্তু যখন তোমাদের মতো উজ্জ্বল নক্ষত্রগুলো দেখি আমরা প্রাণ ফিরে পাই। আমি স্বপ্ন দেখি তোমরা যদি এইভাবে এগিয়ে যাও তাহলে ৫ বছরের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের র‍্যাংকিং এ আমরা প্রবেশ করতে পারবো।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার। তিনি বলেন, চবির ছাত্র শিক্ষকরা বিদেশ গিয়েও সাফল্য অর্জন করেছে যা গৌরবের। তাদের সাফল্যের গল্প অনুপ্রেরণা দিবে আগামী প্রজন্মকে। তবে জামাল নজরুল স্যারের কথা স্মরণ করিয়ে তিনি বলেন শেকড় কে যেন ভুলে না যায়। যারা বাইরে যাচ্ছে তাদেরকে দেশের মানুষের কথা স্মরণ করে দেশে ফিরে এসে কাজ করার আহ্বান জানান।

তিনি সিইউআরএইচএস এর ভূয়সী প্রশংসা করে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এতো সুন্দর করে বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্জন ফুটিয়ে তোলার জন্য৷ এর পাশাপাশি আগামীতে সেরা গবেষক এবং উচ্চশিক্ষায় আগ্রহ বৃদ্ধির জন্য তিনি ডিন'স অ্যাওয়ার্ড চালু করার ঘোষণা দেন। তরুণরা যেন আরো গবেষণামুখি হয় এবং বিশ্বে বিচরণ করে নিজ বিশ্ববিদ্যালয়সহ পুরো দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করবে সেই আশা ও কামনা ব্যক্ত করেন। 

২০২১ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রকাশিত বিভিন্ন অনুষদের 'সর্বোচ্চ ইমপ্যাক্ট ফ্যাক্টরধারী গবেষণাপত্র প্রকাশক' সম্মাননাপ্রাপ্ত শিক্ষকরা হলেন কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ড. মোহাম্মদ খায়রুল ইসলাম ও ড. ফারাহ জাহান, ফরেস্ট্রি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সেস বিভাগের ড. তড়িৎ কুমার বল, বায়োকেমিস্ট্রি অ্যান্ড মলিকুলার বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আতিয়ার রহমান, ফার্মেসি বিভাগের মো. গিয়াস উদ্দিন, নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. খাদিজা মিতু, হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আফতাব উদ্দিন, মার্কেটিং বিভাগের ড. শান্ত বণিক, মেরিন সায়েন্সেস বিভাগের অধ্যাপক ড. এস.এম. শরীফুজ্জামান।  

স্কোপাস ইনডেক্সড জার্নালে চবির শীর্ষ প্রকাশক শিক্ষার্থী পুরস্কার পায় ফার্মেসি বিভাগের সাদ আহমেদ সামি, রসায়ন বিভাগের লাকি দে, জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের আবু তায়েব মঈন, উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের সজিব রুদ্র, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের মো. আব্দুল কাইউম খান। জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এবং বায়োটেকনোলজি বিভাগের সাগুফতা মিজান এবং ফিসারিজ বিভাগের ইস্তিউক আহমেদ রুবি। 

প্রসঙ্গত, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় রিসার্চ অ্যান্ড হায়ার স্টাডি সোসাইটি (সিইউআরএইচএস) ২০১৯ সাল থেকে শুরু করে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণা বিষয়ে শিক্ষার্থীদের যথাযথ তথ্য, দিকনির্দেশনা ও বিভিন্ন সেমিনার এবং ওয়ার্কশপ আয়োজন করার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মাঝে গবেষণার আগ্রহ বাড়িয়ে তুলতে কাজ করছে।

ইত্তেফাক/এআই