শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

শোকাবহ আগস্ট

‘শেখ মুজিবের কানে এসেছিল ক্যান্টনমেন্টে কিছু একটা ঘটছে’

আপডেট : ০৪ আগস্ট ২০২২, ০১:৩৭

‘মুজিব জানতে পারেননি মেজররা কী করছে। যদিও তার কানে খবর এসেছিল যে, ক্যান্টনমেন্টে কিছু একটা ঘটছে। পাকিস্তানি অভিজ্ঞতা থেকে মুজিবের ধারণা জন্মেছিল যে, বিপদ সব সময় সেনাপতিদের দিক থেকেই আসে। কাজেই তিনি তার গোয়েন্দা বিভাগকে কেবল সেই দিকে বিশেষ নজর রাখতে নির্দেশ দিয়েছিলেন।  তিনি জুনিয়র অফিসারদের মোটেই পাত্তা দেননি। ঐ ভুলের মাশুল তাকে জীবন দিয়েই দিতে হয়েছিল।’ সাংবাদিক অ্যাম্হনি মাসকারেনহাস রচিত ‘এ লিগ্যাসি অব ব্লাড’ গ্রন্থে এভাবেই সে সময়কে তুলে ধরা হয়েছে।

এদিকে, ১৯৭৬ সালের ২ আগস্ট যুক্তরাজ্যের আই টিভিতে প্রচারিত গ্রানাডা টেলিভিশনের ‘ওয়ার্ল্ড ইন অ্যাকশন’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে অ্যাম্হনি ম্যাসকারেনহাসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তৎকালীন মেজর রশীদ ও তার ভায়রা ভাই মেজর ফারুক সাক্ষাতকার দেয়। এতে মাসকারেনহাস এক পর্যায়ে উল্লেখ করেন, ‘ঢাকায় কর্নেল ফারুক ও কর্নেল রশীদ অবস্থান করছিল। রাজধানীর সুবিধাজনক স্থানে নিয়োজিত সেকেন্ড ফিল্ড আর্টিলারির কমান্ডার ছিল রশীদ এবং বাংলাদেশের একমাত্র ট্যাংক রেজিমেন্ট বেঙ্গল ল্যান্সারসদের নেতৃত্বে ছিল ফারুক। তাদের দুজনের গোলাগুলি চালনার ক্ষমতা নস্যাৎ করার কথা মুজিবের ভাবনাতেই আসেনি।’

সাক্ষাৎকারে ফারুক বলে, ‘সে সময় আমি ধারাবাহিকভাবে ট্রেনিং পরিচালনা করছিলাম। প্রত্যেক মাসে দুদিন রাতের বেলা এসব ট্রেনিং অনুষ্ঠিত হতো।’ এসময় ফারুক আরো বলে, ‘আমাদের অপারেশনের কথা মনে রেখে ট্রেনিং শুরু করেছিলাম। কারণ, এটা আমাদের জন্য প্রয়োজনীয় ছিল। হঠাৎ কোনো এক রাতের বেলা অপ্রয়োজনীয় চলাচল কিংবা অপরিকল্পিত কার্যকলাপ দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারে। কাজেই ১ মার্চ থেকে আমি মাসে দুবার নৈশ ট্রেনিং পরিচালনা করতে শুরু করি (কর্নেল ফারুকের বেঙ্গল ল্যান্সারস এবং কর্নেল রশীদের ফিল্ড আর্টিলারি রেজিমেন্ট একযোগে ট্রেনিং)’।

এ সময় কর্নেল রশীদ জানায়, তারা ২৮টি ট্যাংক, ১৮টি ১০৫ মি.মি. কামান এবং ৭০০ সৈন্য নিয়ে মুজিবকে ক্ষমতাচ্যুত করার পরিকল্পনা করেছিলেন।

ফারুক বলে, কর্নেল রশীদ ভেবেছিল, যাদের ব্যক্তিগত ক্ষোভ রয়েছে এমন কয়েক জন অফিসারকে সঙ্গে নেওয়া উচিত হবে। কাজেই ১৪ আগস্টের রাতের বেলা সময়ের আগেই যে অফিসারদের পদচ্যুত করা হয়েছিল তাদের মধ্যে থেকে কয়েক জনকে সঙ্গে নিয়েছিলাম। তাদের বলা হয়েছিল, আমরা কিছু একটা করছি, তোমরা নতুন বিমানবন্দরে এসো।

ফারুক বলে, ‘আমি শতকরা ৯৯ ভাগ নিশ্চিত ছিলাম, শেখ মুজিব, সেরনিয়াবাত ও শেখ মনিকে হত্যা করা সম্ভব হবে। কিন্তু তারপর কী হবে সে সম্পর্কে আমি নিশ্চিত ছিলাম না। এজন্য মনস্তাত্ত্বিক চাপ সৃষ্টির উদ্দেশ্যে ট্যাংকগুলো ব্যবহার করেছিলাম।...ট্যাংকগুলোতে কোনো গোলাবারুদ ছিল না।’ এই ট্যাংক দিয়েই রক্ষীবাহিনীর ৩ হাজার সদস্যকে ঠেকিয়ে দেয় ফারুক।

ফারুক এ সাক্ষাৎকারে আরো জানায়, ‘এটা ছিল নৈশ ট্রেনিং। আগস্টের ১৪-১৫ তারিখ ছিল নৈশ ট্রেনিং এর রাত। মৌসুমি ঋতুতে বাংলাদেশ আক্রমণ করা খুব কঠিন এবং ভারত যদি আক্রমণ করে তা হলে তাদের ছয় থেকে আট ডিভিশন সৈন্য জড়িত হবে।’

মাসকারেনহাস এ সময় জানতে চায়, আপনি ভেবেছিলেন, ১৫ আগস্ট মৌসুমি ঋতুর মাঝামাঝি সময় মুজিবকে উৎখাত করা হলে ভারত প্রয়োজনীয় দ্রুততার সঙ্গে প্রত্যুত্তর দিতে পারবে না। উত্তরে ফারুক সম্মতি জানায়। মাসকারেনহাস আবারও জানতে চায়, আপনি ভারতের কথা কেন ভেবেছিলেন? আপনি ভারত থেকে কোনো রকম বিপদের আশঙ্কা করছিলেন? ফারুক বলে, হ্যাঁ, কারণ, ভারতের সঙ্গে মুজিব সাক্ষরিত চুক্তিগুলির মধ্যে একটি ধারা অনুযায়ী তিনি বিপদ দেখা দিলে ভারতীয় সেনাবাহিনীকে আমন্ত্রণ জানাবেন।

ইত্তেফাক/ইআ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

খুনিরা বেতারের নাম রেডিও পাকিস্তানের আদলে ঘোষণা করে রেডিও বাংলাদেশ

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯২তম জন্মবার্ষিকী আজ

‘ইন্দিরা গান্ধী বঙ্গবন্ধুকে বললেন, আপনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হচ্ছে’

‘মোশতাক জানতেন বঙ্গবন্ধুকে যে কোনো সময় হত্যা করা হতে পারে’

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

বঙ্গবন্ধুর জীবনালেখ্য নিয়ে ঘুরবে ভ্রাম্যমাণ রেল জাদুঘর

শোকাবহ আগস্টের প্রথম দিন আজ

তরুণ উদ্যোক্তাদের এগিয়ে নিতে ‘ঐক্য’

৬ দফা বাংলাদেশের স্বাধীনতার ‘ম্যাগনা কার্টা’ ছিল: প্রধানমন্ত্রী