বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ভালো অবস্থান তৈরি করা খুব কঠিন না: ইয়াস রোহান

আপডেট : ১৪ আগস্ট ২০২২, ১৬:১৫

অভিনেতা ইয়াশ রোহান। গত ঈদে মুক্তি পাওয়া ‘পরাণ’ সিনেমায় তার অভিনয় দারুণ প্রশংসিত হয়েছে। বর্তমানে একাধিক নতুন সিনেমার কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকা এই অভিনেতা নিজের অভিনয় ব্যস্ততা ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে কথা বললেন ইত্তেফাকের সঙ্গে। 

বর্তমান কাজের ব্যস্ততা নিয়ে জানতে চাই।

সরকারি অনুদানের ‘দেশান্তর’ সিনেমার পোস্ট প্রোডাকশনের কাজ চলছে। ‘পর্দার আড়ালে’ সিনেমাটির দ্বিতীয় লটের কাজ সামনের মাস থেকে শুরু করব। পাশাপাশি ওটিটির একটি কাজ নিয়ে প্রস্ত্ততি চলছে।

আপনার ‘পরাণ’ দারুণ প্রশংসিত হয়েছে। সিনেমাটি রোহানের ক্যারিয়ারের মোড় ঘুরিয়ে দিলো কি-না?

হ্যাঁ, পরাণ শুধু আমার ক্যারিয়ার নয়, জীবন বদলে দিয়েছে। পরাণ ক্যারিয়ারে প্রথম সিনেমা, যেটি ঈদে মুক্তি পেয়েছে। পাশাপাশি সফল সিনেমার তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে। যা আমার জন্য বিরাট পাওয়া।

ইয়াস রোহান

সিনেমাটিতে আপনার অভিনয় দারুণ প্রশংসিত হলেও ফোকাসের জায়গায় একটু কমতি লক্ষ্য করা গেছে। এতে কোনো আক্ষেপ রয়েছে কী?

না, আমি সেটা ফিল করছি না। আমি মনে করি, চরিত্র, অভিনয় অনুযায়ী যতটুকু ফোকাস আমার প্রাপ্য তার সবটাই দেওয়া হয়েছে। আমি কখনোই এটা ভাবছি না যে, রাজ ভাইকে বেশি এবং আমাকে কম ফোকাস দেওয়া হচ্ছে।

প্রতিটি সিনেমায় ভদ্র ছেলের চরিত্রে রোহানের দেখা মেলে। চরিত্র নিয়ে একটু এক্সপ্রেরিমেন্ট করা প্রয়োজন মনে করেন কি-না?

এ বিষয়ে নির্মাতারা ভালো বলতে পারবেন। আমি যে চরিত্রগুলোতে মানানসই বা ভালো করতে পারব নির্মাতা আমাকে সেই চরিত্রগুলোতেই নেবেন, এটাই স্বাভাবিক। তাছাড়া যতদিন আমি ভিন্নধর্মী কিছু করতে পারি এটা প্রমাণ করতে না পারব ততদিন তো চাইলেও সব সম্ভব হবে না। এমনও না যে প্রতিদিন নতুন নতুন চরিত্র আমাকে অফার করা হচ্ছে! তবে সেই সুযোগ এলে এবং আমি যদি সুযোগটি কাজে লাগাতে পারি তবে অবশ্যই ভদ্র ছেলের চরিত্রের বাইরে সবাই আমাকে দেখতে পাবেন।

অভিনয় নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী?

দেখুন, আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতে অভিনয় নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা করা আসলে খুব কঠিন। কারণ ১০ বছর পর কী হবে বা করব কেউ বলতে পারি না। এমনকি সামনের মাসে কী কাজ করব সেটাই বলতে পারি না। হয়তো রাতে কল পাবো এবং ৭ দিনের মাঝে শুটিং শুরু করব। আবার এমনও হতে পারে যে, দু-মাস কোনো কাজ নেই। আসলে সামনে কী কাজ করব এটা নিয়ে আমরা একটু অন্ধকারে থাকি।

ইয়াস রোহান

অনেকেই বলেন, নতুনদের সেভাবে সুযোগ দেওয়া হয় না। সেই জায়গায় আপনার অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?

শুধু আমাদের ইন্ডাস্ট্রি নয়, পৃথিবীর সব ইন্ডাস্ট্রিতেই নতুনদের জায়গা তৈরি করতে সময় লাগবেই। নিজেকে প্রমাণ করতে কষ্ট, পরিশ্রম করতেই হবে। তবে নিজেকে প্রমাণ করতে পারলে অবস্হান তৈরি করা খুব কঠিন না। তবে বর্তমানে নানা ধরনের কাজ হচ্ছে, শিল্পীরা বিভিন্ন ধরনের চরিত্রে কাজ করার সুযোগ পাচ্ছে।

ঈদের মুক্তি পাওয়া সিনেমাগুলো নিয়ে শিল্পীদের নানা তর্ক-বির্তক আমরা দেখেছি। এটাকে ব্যক্তি আক্রোশ নাকি প্রচারণার অংশ বলবেন?

দেখুন, আমি ব্যক্তিগতভাবে কখনোই কারও বিরুদ্ধে বা কোনো সিনেমার বিপক্ষে কথা বলিনি বা বলতেও চাই না। আমি ঈদে মুক্তি পাওয়া সবগুলো সিনেমাই দর্শকদের দেখার আহ্বান জানিয়েছি।

ওটিটির কাজেও যুক্ত হচ্ছেন। মাধ্যমটির ভবিষ্যৎ কেমন দেখছেন বা চলচ্চিত্রের জন্য কতটা সহায়ক হবে বলে মনে করছেন?

আমি তো মাধ্যমটির নেতিবাচক কিছু দেখছি না। প্রেক্ষগৃহের জন্য সিনেমা নির্মিত হলে সেটা দেশের গণ্ডিতে সীমাবদ্ধ থাকে। কিন্তু ওটিটির জন্য নির্মাণ করলে সেটা সারাবিশ্বের মানুষের কাছে পৌঁছে যাচ্ছে। এতে মার্কেটটা গ্লোবাল হয়ে যায়। তাই আমার মনে হয়, সিনেমা হল এবং ওটিটি, দুটি মাধ্যমেরই আলাদা গুরুত্ব রয়েছে।

ইত্তেফাক/বিএএফ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন