বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ইসলামে সুসন্তানের গুরুত্ব

আপডেট : ১৯ আগস্ট ২০২২, ১২:০৮

প্রতিটি সন্তানই মা-বাবার জন্য সৃষ্টিকর্তার অপূর্ব দান। সন্তানকে ঘিরে জন্ম নেয় বাবা-মায়ের শত আশা, আকাঙ্ক্ষা। সন্তানের জীবনে সাফল্য আসে বাবা-মায়ের সঠিক লালন-পালনে। সন্তানকে স্বেচ্ছাচারিতার সুযোগ না দিয়ে প্রত্যেক বাবা-মায়েরই কিছু নিয়ম মেনে চলা উচিত। তবেই সন্তান হবে সুসন্তান।

সন্তান বিপথে গেলে বাবা-মায়ের চিন্তার অন্ত থাকে না। এজন্য প্রত্যেক ধর্মেই সন্তানকে সঠিকভাবে মানুষ করার প্রয়োজনীয়তার কথা বলা হয়েছে। সুসন্তানের ইসলামি পরিভাষা নেককার সন্তান।

হজরত আবু হুরাইরা (র.) থেকে বর্ণিত, ‘রসুল (স.) ইরশাদ করেছেন, যখন কোনো ব্যক্তি মারা যায়, তখন তার আমলের পথ বন্ধ হয়ে যায়। তবে তিনটি আমল কখনো বন্ধ হয় না ১. সাদকায়ে জারিয়া, ২. ঐ ইলম যা দ্বারা অন্যরা উপকৃত হয়, ৩. নেককার সন্তান যে তার জন্য দোয়া করে। (সহিহ মুসলিম-১৬৩১, সুনানে আবু দাউদ-২৮৮০)। অর্থাৎ, সৎ, ন্যায়বান, নীতিপরায়ণ সন্তান বাবা-মায়ের জন্য রহমতস্বরূপ। ইহকালে শান্তি পেতে এবং আখিরাতে চিরশান্তির জান্নাত পেতে সন্তানকে সঠিক পথে পরিচালিত করুন। বর্তমানে মাদক, অসৎ সঙ্গসহ বিভিন্ন বিপথগামী উপাদান রয়েছে, যা সন্তানের মানসিক দিক বিকাশে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। সেসব বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে। বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে সন্তানের সঙ্গে।

লেখক: শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

ইত্তেফাক/এমআর

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন