মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

খিলগাঁওয়ে পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

আপডেট : ২৭ আগস্ট ২০২২, ২১:২৭

রাজধানীর খিলগাঁওয়ে তিলপাপাড়ার একটি বাসা থেকে পুলিশের বিশেষ শাখার উপ-পরিদর্শক বজলুর রশিদের স্ত্রী নীলা আক্তার আঁখির (৩৬) ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার (২৪ এপ্রিল) দুপুরের দিকে খিলগাঁওয়ের তিলপাপাড়া এলাকার ১১ নম্বর রোডের ১৮৫/৩/এ নম্বর বাড়ির নিচতলার ফ্ল্যাট থেকে তার লাশটি উদ্ধার করা হয়। 

ময়নাতদন্তের জন্য এদিন বিকেলে লাশ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহত নীলা পাবনার সুজানগর উপজেলার মো. হাতেম আলীর মেয়ে। এক ছেলে ও দুই মেয়ে নিয়ে স্বামীর সঙ্গে খিলগাঁও এলাকায় থাকতেন। মৃতের পরিবার বলছে, নীলুফা দীর্ঘদিন ধরে মানসিক সমস্যায় ভুগছিলেন। এ কারণে সে আত্মহত্যা করতে পারে। এ বিষয়ে তাদের কোনো অভিযোগও নেই। 

নীলুফার বড় ভাই বিপ্লব জানান, নীলা শারীরিকভাবে দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন। তার মানসিক সমস্যাও ছিল। এসব কারণে তিনি আত্মহত্যা করে থাকতে পারেন। তিনি জানান, শুক্রবার সকালে ঘটনার সময় নীলার স্বামী বজলুর রশিদ করোনা টেস্ট করাতে রাজারবাগ পুলিশ লাইনস হাসপাতালে যান। এসময় তাদের ছেলে ছিল উত্তরায়। দুই মেয়ে বাসায় থাকলেও তারা ছোট। বড় মেয়ে ৭ম শ্রেণিতে পড়ে। বাসা একরকম ফাঁকা পেয়ে রুমের ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস নেন নীলা। পরে দুই মেয়ে দেখে দা দিয়ে ওড়না কেটে তাকে নিচে নামায়। কিন্তু এর আগেই নীলা মারা যান। পরে খবর পেয়ে আমরা সবাই ছুটে যাই। নীলা মানসিকভাবে অসুস্থ থাকার কারণেই আত্মহত্যা করতে পারে। এ বিষয়ে আমাদের কোন অভিযোগ নেই। 

এসআই বজলুর রশিদ বলেন, আমি সকালে করোনা টেস্ট করার জন্য বাসা থেকে বের হই। পরে বাড়ির মালিক আমাকে ফোন করলে আমি বাসায় এসে দেখি সে (স্ত্রী) গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলছে। পরে পুলিশকে খবর দিই। পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যালের মর্গে পাঠায়। 

তিনি আরও বলেন, নীলা’র ডায়াবেটিস সবসময় ২০-২৫ থাকত। সে কয়েকবার স্ট্রোকও করেছে। আমার সঙ্গে তার কোনো মনোমালিন্য বা ঝগড়া কোনো কিছুই হয়নি। কী কারণে সে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করল, সেটাই বুঝতে পারছি না। 

খিলগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফারুকুল আলম বলেন, আমরা খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের মর্গে পাঠিয়েছি। প্রাথমিকভাবে আমরা জানতে পেরেছি, তিনি ডায়াবেটিস ও হার্টের সমস্যায় ভুগছিলেন। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।

তিনি আরো বলেন, মৃতের পরিবারের সদস্যরা দাবি করেছেন, ওই নারী দীর্ঘদিন ধরে নানা রোগে আক্রান্ত ছিলেন। এ কারণে আত্মহত্যা করেছেন। তাছাড়া স্বজনদের কোন অভিযোগও নেই।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন