রোববার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

চলতি মাসে উত্তর ও দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে বন্যা হতে পারে

আপডেট : ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:০৩

বর্ষা মৌসুমে সারা দেশে কাঙ্ক্ষিত স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হয়নি এ বছর। অনাবৃষ্টি-খরার কারণে চাষাবাদ সংকটে পড়েছে কৃষককুল। এর নেপথ্যে দুর্বল মৌসুমি বায়ু এবং জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবকে অনেকাংশে দায়ী করা হচ্ছে। জুলাই-আগস্টের মতো সেপ্টেম্বরেও স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা কম বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। তবে এই মাসে দেশের উত্তর ও দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে বন্যার পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়ার মডেলগুলো। 

পূর্বাভাসে আবহাওয়া অধিদপ্তর বলেছে, চলতি মাসে বঙ্গোপসাগরে এক থেকে দুটি লঘুচাপের সম্ভাবনা রয়েছে; যার মধ্যে একটি নিম্নচাপে রূপ নিতে পারে। ইতিমধ্যে ভারত থেকে নেমে আসা ঢল ও টানা বৃষ্টিপাতের ফলে উত্তরাঞ্চলের তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্রের পানি বাড়ছে। ফলে রংপুর, গাইবান্ধা ও লালমনিরহাটে আবার বন্যা দেখা দিয়েছে। নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে ভাঙনও বাড়ছে। ভাঙনের আতঙ্কে দিন কাটছে নদী পাড়ের বাসিন্দাদের। 

পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান ভুঁইয়া বলেন, উত্তরাঞ্চলের তিস্তা, ধরলা, দুধকুমার এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চলের যাদুকাটা, সোমেশ্বরী, সারিগোয়াইন ও ভোগাই-কংস নদীর পানি দ্রুত বাড়তে পারে এ সময়ে। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় তিস্তার পানি দ্রুত বাড়তে পারে। তিনি জানান, ব্রহ্মপুত্র-যমুনার পানির সমতল বাড়ছে। এছাড়া গঙ্গা নদীর পানির সমতল বাড়ছে। পদ্মার পানির সমতল স্থিতিশীল আছে।

অধিদপ্তরের পরিচালক মো. আজিজুর রহমান জানান, এ মাসে দেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে ভারী মৌসুমি বর্ষণে স্বল্প থেকে মাঝারি মেয়াদি বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। তবে সামগ্রিকভাবে সেপ্টেম্বরে স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা কম বৃষ্টিপাত হতে পারে। দেশে বিচ্ছন্নভাবে কিছু এলাকায় মৃদু তাপপ্রবাহ (৩৬-৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস) বয়ে যেতে পারে এ মাসে। সেই সঙ্গে দিন ও রাতের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা বেশি থাকতে পারে। তিনি জানান, সারা দেশে জুলাই মাসে স্বাভাবিকের চেয়ে প্রায় ৫৮ শতাংশ কম বৃষ্টিপাত হয়েছে এ বছর। আগস্টে প্রায় ৩৬ শতাংশ কম বৃষ্টিপাত হয়েছে স্বাভাবিকের তুলনায়।

আবহাওয়া সংস্থাগুলোর তথ্যানুযায়ী, আগামী ৭২ ঘণ্টায় দেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও তৎসংলগ্ন ভারতের বিভিন্ন স্থানে ভারী বৃষ্টিপাত হতে পারে। ফলে এ সময়ে উত্তরাঞ্চলের তিস্তা, ধরলা, দুধকুমার ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সিলেট, সুনামগঞ্জ এবং নেত্রকোনা জেলার প্রধান নদনদীর পানির সমতল সময় বিশেষে দ্রুত বৃদ্ধি পেতে পারে। এদিকে দীর্ঘমেয়াদি পূর্বাভাস দিতে আবহাওয়া অধিদপ্তরের গঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটি জানিয়েছে, চলতি সেপ্টেম্বরে দিন ও রাতে তাপমাত্রা বেশি থাকবে। এ মাসে দেশের উত্তর ও মধ্যাঞ্চলে দুই থেকে তিন দিন বিজলি চমকানোসহ মাঝারি ধরনের বজ্রঝড় এবং সারা দেশে তিন থেকে চার দিন বিজলি চমকানোসহ হালকা বজ্রঝড় হতে পারে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মৌসুমি বায়ু দুর্বল থাকার কারণে ৫, ৭, ১৭ থেকে ১৯, ২২ এবং ৩০ থেকে ৩১ আগস্ট রাজশাহী, রংপুর, খুলনা, ঢাকা ও সিলেট বিভাগে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যায়। এ মাসে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে ২ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে ০ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি ছিল।

ইত্তেফাক/ইআ