শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

বিশ্বকাপের আগে কোন পরীক্ষা-নিরীক্ষা চান না গাভাস্কার

আপডেট : ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৬:৫১

এশিয়া কাপের চলমান ১৫তম আসরের সুপার ফোর থেকেই বিদায় নিয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারত। গ্রুপ পর্বে দুর্দান্ত খেলে সুপার ফোরে উঠলেও পাকিস্তান আর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টানা দুই ম্যাচ হেরে ফাইনালে ওঠার স্বপ্ন নস্যাৎ হয়ে গেছে ভারতের। রোহিত শর্মার দলের এমন পারফরম্যান্সেই চটেছেন ভারতের সাবেক অধিনায়ক সুনীল গাভাস্কার। দলের এমন ব্যর্থতার পর অধিনায়ক বা কোচ কারো কাছ থেকেই কোনো অযুহাত শুনতেও রাজি নন গাভাস্কার।  

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে গাভাস্কার জানান, এশিয়া কাপে ভারতের এমন পারফরম্যান্স খুবই হতাশাজনক। কোন রকম ওয়ার্কলোড ম্যানেজমেন্ট বা বিশ্বকাপকে লক্ষ্য করেই দলকে যাচাই বাচাই করা হচ্ছে, এমন কোন অজুহাত রোহিত-দ্রাবিড়ের কাছে থেকে আর শুনতে রাজি না।

ছবি-- ইএসপিএন ক্রিকইনফো

গত বছরের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভ থেকেই বিদায় নিয়েছিলো ভারত। এরপর ভারতীয় দলে ব্যাপক রদবদল হয়েছে। অধিনায়ক হিসেবে দলকে শিরোপা এনে দিতে পারেন না বিরাট কোহলি, এমন অজুহাতে স্বেচ্ছায় অধিনায়কত্ব ছাড়েন তিনি। এরপর কোচের পদ থেকে সরে দাঁড়ান রবি শাস্ত্রীও। এতে কোহলি-শাস্ত্রীর পরিবর্তে দলের দায়িত্ব পান রোহিত ও দ্রাবিড়।
আগামী অক্টোবর-নভেম্বরে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠেয় টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপকে সামনে রেখে দলকে ঢেলে সাজাতে শুরু করেন রোহিত ও দ্রাবিড়। কিন্তু বিভিন্ন সিরিজে দলে ব্যাপক পরিবর্তন করেছেন রোহিত-দ্রাবিড় জুটি।

‘ওয়ার্কলোড ম্যানেজমেন্ট’ বিবেচনায় এক একটি সিরিজে ভিন্ন-ভিন্ন দল নিয়েছে খেলেছে ভারত। তাই এসব ভিন্ন-ভিন্ন সিরিজে অধিনায়কও হয়েছে ভিন্ন-ভিন্ন। গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর বিভিন্ন ফরম্যাটে সাত অধিনায়কের অধীনে খেলেছে ভারত। যা নিয়ে সমালোচনা হলেও, এসব বিষয়কে বিশ্বকাপের পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই দেখিয়েছেন রোহিত-দ্রাবিড়।

ছবি- ইএসপিএন, ক্রিকইনফো

কিন্তু এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠতে না পারার ব্যর্থতায়, এসব অজুহাত শুনতে চান না গাভাস্কার। তার পরামর্শ, আর কোন পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করে বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে শক্তিশালী একটি দল চূড়ান্ত করা।

তিনি বলেন, ‘গত এক বছরে একই দল খেলানো হয়নি। যখন এক দল দীর্ঘ দিন ধরে খেলে, তখন ক্রিকেটারদের মধ্যে ভাল বোঝাপড়া তৈরি হয়। পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার মধ্যে কোন ভুল নেই। কিন্তু সেটা করতে গিয়ে, বারবার দল পরিবর্তন করা হচ্ছে। কোনও ক্রিকেটার দলের সাথে মানিয়ে নিতে পারছে না। তার আগেই সেই ক্রিকেটারের জায়গায় অন্য কেউ চলে আসছে।’

এশিয়া কাপের আগে সর্বশেষ জিম্বাবুয়ে সিরিজে দলের বেশিরভাগ সিনিয়ররা বিশ্রামে ছিলেন। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে খেলা, মাত্র দু’জন এশিয়া কাপের দলে ছিলেন। ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্টের এমন চিন্তা-ভাবনা মোটেও পছন্দ হয়নি গাভাস্কারের। তিনি বলেন, ‘আমি ভেবেছিলাম, এশিয়া কাপের আগে জিম্বাবুয়েতে সিনিয়রা খেলতে যাবে। কিন্তু এশিয়া কাপের দলে থাকা বেশির ভাগ ক্রিকেটার সেই সিরিজে খেললো না। আবার সেখানে গিয়ে যারা ভাল খেললো তারা এশিয়া কাপের দলে সুযোগ পেলো না। তাহলে কিভাবে দলের মধ্যে বোঝাপড়া তৈরি হবে?’

ছবি- ইএসপিএন, ক্রিকইনফো

দলের এমন অবস্থায় কিছুটা চিন্তিত হলেও গাভাস্কারকে আশা দিচ্ছে, বিশ্বকাপের আগে ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়া-দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৩ ম্যাচ করে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে ভারত। এছাড়া প্রোটিয়াদের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজও আছে টিম ইন্ডিয়ার।

ভারতের সাবেক এই অধিনায়ক বলেন, ‘হ্যাঁ, কিছুটা চিন্তিত। তবে আমি খুব বেশি চিন্তিত নই, কারণ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে ঘরের মাঠে আমাদের বেশ কয়েকটি ম্যাচ রয়েছে। আমি আশা করি, ঐ দু’টি সিরিজে কোন পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানো হবে না।’

গাভাস্কার আরও বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়ায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে যাওয়া দলই বেছে নেয়া হবে। ওয়ার্কলোড ম্যানেজমেন্টের অজুহাত ও পরীক্ষা-নিরিক্ষার কোন দরকার নেই এখন। ভারতের হয়ে খেলার সময় কোন কাজের চাপ থাকে না। আসন্ন ম্যাচগুলি থেকে ভারতের সেরা দল বের করে আনতে হবে।’

ইত্তেফাক/এসএস

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন