বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

জিএম কাদেরকে রাঙ্গার হুঁশিয়ারি

‘তাকে (কাদের) যদি লালমনিরহাট যেতেই হয়, হেলিকপ্টারে যেতে হবে।’

আপডেট : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২০:২০

জাতীয় পার্টি থেকে অব্যাহতি দেওয়া চেয়ারম্যান জিএম কাদেরের স্বেচ্ছাচারিতা, অগণতান্ত্রিক ও গঠনতন্ত্রবিরোধী বলে মন্তব্য করেছেন পার্টির সাবেক মহাসচিব ও বিরোধী দলের চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা।

অব্যাহতির পর তাৎক্ষণিক ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানান তিনি। ইত্তেফাককে বলেন, জিএম কাদেরের এই সিদ্ধান্তের কারণে নেতাকর্মীরা তাকে রংপুরে নামতে দেবে না। বিরোধী দলের চিফ হুইপ রাঙ্গা বলেন, ‘তাকে (কাদের) যদি লালমনিরহাট যেতেই হয়, হেলিকপ্টারে যেতে হবে।’

রাঙ্গা বলেন, ‘আমি যা বলেছি সত্য বলেছি এবং বলব। পার্টির বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলার রাইট আমার আছে। আমাকে অব্যাহতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত জিএম কাদেরের স্বেচ্ছাচারিতা এবং অগণতান্ত্রিক ও গঠনতন্ত্রবিরোধী।’

মশিউর রহমান রাঙ্গা

জাপার সাবেক এই মহাসচিব আরো বলেন, ‘জিএম কাদের আমাকে কি অব্যাহতি দেবেন? তাকে তো এরশাদ সাহেব অনেকবার বহিষ্কার করেছেন।’
সম্প্রতি বেসরকারি ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় জিএম কাদের সম্পর্কে নেতিবাচক মন্তব্য করেন মসিউর রহমান রাঙ্গা। পার্টির চেয়ারম্যান বিভিন্ন ইস্যুতে যে সরকারবিরোধী অবস্থান নিয়েছেন তার মধ্যে জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট কিছু ইস্যুর সাথে একমত হলেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ভিন্নমত রয়েছে রাঙ্গার।

রাঙ্গা বলেন, ‘আমাকে রওশন এরশাদের লোক বলা হয়। আমাকে জিএম কাদেরের প্রতিদ্বন্দ্বী ভাবা হয়। আসলে আমি রাইভাল নই।’
মশিউর রহমান রাঙ্গা জাতীয় পার্টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদপন্থি বলে আলোচনা আছে। দীর্ঘদিন ধরে বিদেশে চিকিৎসাধীন রওশন এরশাদ সম্প্রতি দলের জাতীয় সম্মেলন আহ্বান করেন ও নিজেকে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক করে আট সদস্যের একটি কমিটিরও ঘোষণা দেন। তার সঙ্গে জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান জি এম কাদেরপন্থিদের মধ্যে দ্বন্দ্ব এখন প্রকাশ্যে।

জিএমকাদের ও মশিউর রহমান রাঙ্গা

সম্প্রতি গণমাধ্যমকে জি এম কাদের বলেন, কখনো কখনো রওশন এরশাদকে দিয়ে কিছু মহল কিছু বক্তব্য, বিবৃতি ও বিজ্ঞপ্তি দেওয়ার ব্যবস্থা করছে, যা সার্বিকভাবে দলীয় অবস্থানের বিপক্ষে চলে যাচ্ছে। অসুস্থতা ও বয়সের কারণে তিনি (রওশন এরশাদ) বিরোধী দলের নেতার ভূমিকা সঠিকভাবে পালন করতে পারছেন না।
এ অবস্থার মধ্যে রওশনপন্থি বলে পরিচিত মশিউর রহমান রাঙ্গাকে অব্যাহতি দেওয়া হলো।

ইত্তেফাক/এসসি