সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

এটিএম বুথে ডাকাতির পরিকল্পনা, নরসিংদীতে আটক ১১

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৭:৫১

ঢাকা-কিশোরগঞ্জ মহাসড়ক এবং ব্যাংকের এটিএম বুথে ডাকাতির প্রস্তুতি নেয়ার সময় দেশীয় অস্ত্র, ককটেল ও খেলনা পিস্তলসহ সংঘবদ্ধ ডাকাত চক্রের ১১ সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব-১১।

রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) দিবাগতরাতে নরসিংদী জেলার মনোহরদী থানাধীন আতুশাল এলাকা হতে তাদের আটক করা হয়। সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে আদমজী নগর র‌্যাব-১১ এর প্রধান কার্যালয়ে অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তানভীর মাহমুদ পাশা সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

আটকরা হলেন, সর্দার মো. আবু বক্কর সিদ্দিক (৫৮), মো. আনোয়ার হোসেন ওরফে বাবুল (৩৫), মো. জব্বার ওরফে লিটন (৪৮), মো. রবিউল ইসলাম (৪৭), রাশেদুল ইসলাম (৩৬), সজিব খান (৩০), মো. জাকির (২৮), মো. হোসেন মিয়া (৫২), মো. জাকির হোসেন (৩২), মো. রিপন (২৭) ও মো. সবুজ (৩৮)।

এ সময় তাদের কাছ হতে ৫৪টি ককটেল, ৪টি রামদা, ১টি চাইনিজ কুড়াল, ৩টি চাপাতি, ১টি খেলনা পিস্তল এবং ১টি হায়েস মাইক্রোবাস উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব অধিনায়ক জানান, ডাকাত চক্রটি এর আগেও পরস্পর যোগসাজশে পূর্ব-পরিকল্পনামাফিক ঢাকা-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কে চলাচলকারী গাড়ি এবং আশে-পাশের বিভিন্ন বাসা ও দোকানে তাদের ডাকাতির কাজ পরিচালনা করেছে। রোববার রাতে তাদের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল ঢাকা-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কে নরসিংদী জেলার মনোহরদী থানার বিভিন্ন নির্জন স্থানে গাড়ি ও একই এলাকায় বিভিন্ন ব্যাংকের এটিএম বুথ ডাকাতি করা। তাদের ডাকাতি কাজের ধরন ছিল ব্যবহৃত মাইক্রোবাস দিয়ে ব্যারিকেড সৃষ্টি করে চলন্ত গাড়ির গতিরোধ করে অতর্কিতভাবে হামলা এবং দেশীয় ধারালো অস্ত্র, ককটেল ও খেলনা পিস্তল দেখিয়ে চলাচলরত যাত্রীদের ভয়ভীতি, আতঙ্ক সৃষ্টি শেষে মাইক্রোবাসযোগে দ্রুততার সঙ্গে ঘটনাস্থল হতে পালিয়ে যাওয়া।

দুষ্কৃতিকারী এই ডাকাত দলের সদস্যরা ডাকাতি করতে গিয়ে কখনও কখনও জনসাধারণকে মারধর, ছুরিকাঘাত ও গাড়ি ভাংচুরসহ গুরুতর জখম এমনকি প্রাণনাশের মতো ঘটনাও ঘটিয়ে থাকে। ডাকাত সর্দার আবু বক্কর সিদ্দিকের বিরুদ্ধে ইতোপূর্বে ৪টি, আনোয়ার হোসেন ও রাশেদুল ইসলামের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি