শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

মরিয়ম মান্নানের আবেগঘন স্ট্যাটাস, ফেসবুকে সমালোচনার ঝড়!

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:৫৮

টানা ২৯ দিন আত্মগোপনে থাকা রহিমা বেগমকে অবশেষে ফরিদপুর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাতে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. মাসুদুর রহমান ভূঞা এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এদিকে মাকে ফিরে পাওয়ায় উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) সকালে নিজের ফেসবুক পেজে আবেগঘন একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন মেয়ে মরিয়ম মান্নান।

তিনি লিখেছেন, ‘এইমাত্র দূর থেকে আমি আমার মাকে খুলনা ভিকটিম সেন্টারে দেখলাম। আমি আমার মাকে খুঁজেছি, পেয়েছি। আমার কলিজা শান্ত হয়েছে। আজকে ২৯ দিন পরে আমি জানলাম আমার মা ভিকটিম সেন্টারে আছেন। আমি নিজের চোখে মাকে দেখেছি, এটাই আমার শান্তি। এর থেকে শান্তি আমার আর কিছুই নেই। আমি চাই আমার মায়ের সঙ্গে কথা বলতে, আমি চাই আমার মাকে জড়িয়ে ধরতে।

মরিয়ম আরও লিখেছেন, ধন্যবাদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, র‌্যাব-৬, খুলনার পুলিশ ও প্রশাসনকে এবং ধন্যবাদ প্রশাসনিক সকলকে যারা আমার মাকে উদ্ধারে কাজ করেছেন। আজকে আমি ২৯দিন পরে স্বাভাবিক জীবনে ফিরব, ইনশাআল্লাহ।’

কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখা যাচ্ছে তার ভিন্ন চিত্র।মরিয়ম মান্নানের পেজে দেওয়া স্ট্যাটাসগুলোতে হাসির প্রতিক্রিয়ার ছড়াছড়ি। এমনকি মন্তব্যের ঘরেও চলছে তীব্র সমালোচনা। এছাড়া অনেকেই যারা মরিয়মের দুঃসময়ে তার পাশে থেকে সহানুভূতি জানিয়ে স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন তারা তার ব্যাপক সমালোচনা করছেন। 

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সিএসই বিভাগের শিক্ষার্থী কানিজ ফাতেমা শান্তা তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে পুরো বিষয়টির সমালোচনা করেছেন। বিষয়টিকে তিনি ওয়েব সিরিজের সঙ্গে তুলনা করে লিখেছেন, ‘সাবস্ক্রিপশন ছাড়াই একটা থ্রিলার ওয়েব সিরিজ দেখে ফেললাম। আপনার এহেন কাজ হাজার হাজার অভিযোগ সন্দেহের চোখে হাল্কা হয়ে যাবে। অভিনন্দন আপনাকে এতো সুন্দর অভিনয় করার জন্য। এখন আমার প্রশ্ন আপনার মা আসলেই এতদিন কোথায় ছিলেন? এতদিনের আত্নগোপনের এতো নিরাপদ জায়গা কোথায়?

রুয়েল মাহমুদ নামে এক ছাত্রলীগ নেতা মরিয়মের গত প্রায় এক মাসের কার্যক্রম নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। ফেসবুকে তিনি লিখেছেন, ‘পৃথিবীতে এই একটা মেয়ে মরিয়ম মান্নানকে দেখেছি যে তার মাকে হারানোর পরেও অনলাইনে দফায় দফায় প্রোফাইল পিকচারে তার কান্নার ছবি দিতো! এক অজ্ঞাত মহিলার লাশকে খুব কনফিডেন্সলি তার মা বলে দাবি করলো! ইভেন তখন ওই লাশের কাছে থাকাকালিন সময়েও তাকে নিয়ে যেই পোস্ট করেছে সেখানে সে কমেন্টস করছে রিপ্লে দিচ্ছে!! কিভাবে সম্ভব ২৭ দিন পর মায়ের লাশ (তার ভাষ্যমতে) পেয়েও এভাবে অনলাইনে এতো এক্টিভ থাকা? আচ্ছা যাই হোক, উনি নাকি ওনার মাকে চিনতে ভুল করেননি! করবেনও না!  তাহলে এখন কিভাবে তার মাকে জীবিত অক্ষত উদ্ধার করা হলো? সব যেনো কেমন  রহস্যময়!!
 
‘যে টার্গেট ছিল অবশ্যই পূরণ হয়ছে সাথে ২৫০০ থেকে ২৫০০০ ফলোয়ার! Our real Moriom Mannan. So proud of you girl. যেই নাটক দেখালেন, দেশবাসী মুগ্ধ হয়ে গেছে।’

ইত্তেফাক/কেকে