রোববার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

মানকাডিং নিয়ে হার্শার টুইটে স্টোকসের ঝাঁঝালো জবাব

আপডেট : ০২ অক্টোবর ২০২২, ১৯:৫০

মানকাডিং নিয়ে এখনও উত্তপ্ত ক্রিকেটবিশ্ব। এই বিতর্ক নিয়ে মন্তব্য করেছেন সাবেক থেকে বর্তমান অনেক ক্রিকেটার। এবার এই বিতর্ক নিয়ে টুইট করেছেন জনপ্রিয় ক্রিকেট বিশ্লেষক ও ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলে। আর সেই টুইটের ঝাঁঝালো জবাব দেন ইংল্যান্ডের অলরাউন্ডার বেন স্টোকস।

মানকাডিং বিতর্কের সূচনা হয় ভারত ও নারী ক্রিকেট দলের তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের শেষ ওয়ানডেতে। ভারতের দেওয়া ১৭০ রান তাড়া করতে নেমে ১১৮ রানে ৯ উইকেট হারায় ইংল্যান্ড। তবে শার্লি ডেন ও ফ্রেয়া ডেভিসের ব্যাটে ভর করে জয়ের পথেই ছিল ইংলিশরা। শেষ ৭ ওভারে ইংল্যান্ডের প্রয়োজন ছিল ১৭ রান। স্ট্রাইকে ছিলেন ফ্রেয়া ডেভিস।

তখন বোলিংয়ে আসেন ভারতের অফ স্পিনার দিপ্তি শর্মা। ৪৪তম ওভারের তৃতীয় বল করতে গিয়ে আচমকা থেমে যান তিনি। নন স্ট্রাইকে থাকা শার্লি ডেন বের হয়ে যান ক্রিজ থেকে। আর ঠিক সেই সময় স্ট্যাম্প ভেঙ্গে ডেনকে ‘মানকাড’ আউট করে দেন তিনি। ফলে ১৬ রানে ম্যাচ হেরে হোয়াইটয়াশের লজ্জা পায় ইংল্যান্ড। 

আর এরপর থেকেই মানকাডিং বিতর্ক নিয়ে মন্তব্য করতে থাকেন অনেকে। শুক্রবার (৩০ সেপ্টেম্বর) হার্শা ভোগলে টুইটারে লেখেন, 'এটা সংস্কৃতির বিষয়। ব্রিটিশরা এভাবে আউট করাকে ভুল মনে করে। আর তারা যেহেতু বেশির ভাগ ক্রিকেট খেলুড়ে দেশকে শাসন করেছে, তাই সবাইকে বলেছে এমন করাটা ভুল। তাদের ঔপনিবেশিক কর্তৃত্ব এতটাই শক্তিশালী ছিল, কেউ আর পাল্টা প্রশ্ন করেনি।’

হার্শা ভোগলের এমন টুইটের ঝাঁঝালো জবাব দেন স্টোকস। তিনি লেখেন, ‘এটা সংস্কৃতির বিষয়? অবশ্যই নয়। কারণ, শুধু ইংল্যান্ডের নয়, অন্য দেশের লোকেরাও এ নিয়ে কথা বলেছে।'

২০১৯ বিশ্বকাপের ব্যাটে বল লাগার সেই ঘটনায় ভারতীয় সমর্থকদের থেকে পাওয়া খোঁচা হার্শা ভোগলেকে মনে করিয়ে তিনি আরও লেখেন, ‘২০১৯ বিশ্বকাপ ফাইনাল হয়েছে দুই বছর আগে। আজকের দিনেও এ নিয়ে আমি অসংখ্য বার্তা পাই। এর বেশির ভাগই আসে ভারতীয় দর্শকদের থেকে। হার্শা, এটা কি আপনাকে বিরক্ত করে না?’

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন