শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশুদের ৪২ শতাংশই রক্তের অক্সিজেন ঘাটতিতে ভোগে

আপডেট : ১০ নভেম্বর ২০২২, ০০:০৫

চিকিৎসাবিজ্ঞান নিয়ে আন্তর্জাতিক গবেষণাবিষয়ক পত্রিকা দ্য ল্যানসেটের ২০২৪ সালের মেডিক্যাল অক্সিজেন সিকিউরিটি-বিষয়ক গ্লোবাল হেলথ কমিশনে সহসভাপতিত্ব করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। এতে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবে আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআর,বি)।

গতকাল বুধবার (৯ নভেম্বর) মহাখালীর আইসিডিডিআর,বির সাসাকাওয়া অডিটোরিয়ামে বিশ্ব নিউমোনিয়া দিবস-২০২২ পালন উপলক্ষ্যে আয়োজিত ‘মেডিক্যাল অক্সিজেন নিরাপত্তা’ বিষয়ে সূক্ষ্ম আলোচনায় গবেষকেরা এসব তথ্য জানান। সাংবাদিকদের সঙ্গে প্রামাণিক এই মতবিনিময় অধিবেশনের আয়োজন করে আইসিডিডিআর,বি ও ডাটা ফর ইমপ্যাক্ট। 

আইসিডিডিআর,বির পক্ষ থেকে ডা. আহমেদ এহসানুর রহমান উল্লেখ করেন, হাইপক্সেমিয়ায় আক্রান্ত যে কোনো রোগীর জন্য চিকিৎসা হিসেবে অক্সিজেন থেরাপি প্রয়োজন। বিভিন্ন ধরনের শারীরিক পরিস্থিতিতে হাইপক্সেমিয়া ঘটতে পারে—শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত নবজাতক থেকে শুরু করে নিউমোনিয়া, ম্যালেরিয়া, সেপসিস এবং যক্ষ্মায় আক্রান্ত শিশু, প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রে ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ (সিওপিডি), হৃদরোগ, হাঁপানিসহ আরো অনেক। এনেস্থেশিয়াসহ প্রায় সব ধরনের বড় অস্ত্রোপচারকালে অজ্ঞান করার সময়ও মেডিক্যাল অক্সিজেন অপরিহার্য।

অনুষ্ঠানে বলা হয়, ২০২৪ সালে প্রকাশিত হতে যাওয়া মেডিক্যাল অক্সিজেন সিকিউরিটি-সংক্রান্ত ল্যানসেট গ্লোবাল হেলথ কমিশনে বাংলাদেশ সহসভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে। এতে কমিশনারদের একজন হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন আইসিডিডিআর,বির সিনিয়র ডিরেক্টর (এমসিএইচডি) ডা. শামস এল আরেফিন। আইসিডিডিআর,বির পক্ষ থেকে ডা. আহমেদ এহসানুর রহমান বলেন, এই কমিশন হাইপক্সেমিয়ার ওপর দৃষ্টিপাত করবে বলে আশা করা হচ্ছে। অর্থাৎ, কীভাবে অক্সিজেন অ্যাক্সেসকে সংজ্ঞায়িত ও পরিমাপ করতে হবে, কোন অক্সিজেন দ্রবণ কোন কোন পরিস্থিতিতে সবচেয়ে ভালো কাজ করে, তা নিয়ে কাজ করবে। এ ছাড়া কীভাবে অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সদিচ্ছা জাগরণের মাধ্যমে কাঙ্ক্ষিত পরিবর্তন আনা সম্ভব তা নিয়েও কাজ করা হবে। তিনি বলেন, এই কমিশন স্বাস্থ্যসেবার সব স্তরে যেমন—বাড়ি থেকে হাসপাতাল পর্যন্ত, নবজাতক থেকে বৃদ্ধ পর্যন্ত যেসব শারীরিক সমস্যায় হাইপক্সেমিয়ার ঝুঁকি রয়েছে এবং যে উপায়ে অক্সিজেনের অ্যাক্সেস বৃদ্ধির মাধ্যমে স্বাস্থ্যব্যবস্থা আরো শক্তিশালী হবে, তার সবকিছু নিয়েই কাজ করবে।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আইসিডিডিআর,বি এমসিএইচডি অ্যাসোসিয়েট সায়েন্টিস্ট ডা. আহমেদ এহসানুর রহমান। আলোচক ছিলেন আইসিডিডিআর,বির (হাসপাতাল) নিউট্রিশন অ্যান্ড ক্লিনিক্যাল সার্ভিসেস বিভগের সিনিয়র সায়েন্টিস্ট ডা. মোহাম্মাদ জোবায়ের চিশতি। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইউএসএইডের  সিনিয়র রিসার্চ, মনিটরিং, ইভালুয়েশন অ্যান্ড লিনিং অ্যাডভাইজার ড. কান্তা জামিল এবং ড. ফিদা মেহরান।

 

ইত্তেফাক/ইআ