বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

হুমায়ূন আহমেদ সাহিত্য পুরস্কার পেলেন আনোয়ারা সৈয়দ হক ও মৌরি মরিয়ম

আপডেট : ১৩ নভেম্বর ২০২২, ০১:৩৭

‘হুমায়ূন আহমেদ সাহিত্য পুরস্কার ২০২২’ পেলেন আনোয়ারা সৈয়দ হক ও মৌরি মরিয়ম। সাহিত্যে সামগ্রিক অবদানের জন্য আনোয়ারা সৈয়দ হক এবং নবীন সাহিত্যশ্রেণিতে ‘ফানুস’ উপন্যাসের জন্য মৌরি মরিয়ম এ পুরস্কার পান। তারা পুরস্কার হিসেবে পেয়েছেন যথাক্রমে ৫ লাখ এবং ১ লাখ টাকা। এছাড়া তাদের প্রদান করা হয়েছে ক্রেস্ট, উত্তরীয় এবং সার্টিফিকেট।

গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় বাংলা একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে ‘এক্সিম ব্যাংক- অন্যদিন হুমায়ূন আহমেদ সাহিত্য পুরস্কার’ প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন কৃষি মন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক । সম্মানীয় অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন পুরস্কারের জন্য গঠিত বিচারকমণ্ডলীর সভাপতি, খ্যাতিমান কথাশিল্পী ও শিক্ষাবিদ সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন অন্যদিন সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম। শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করেন এক্সিম ব্যাংকের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহ মো. আব্দুল বারী, সংগীতশিল্পী ও নির্মাতা, হুমায়ূন-পত্নী মেহের আফরোজ শাওন। শংসাবচন পাঠ করেন বিচারকমণ্ডলীর সম্মানিত সদস্য শিক্ষাবিদ সৈয়দ আজিজুল হক ও কথাশিল্পী বিশ্বজিৎ চৌধুরী।

কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, হুমায়ূন আহমেদ গভীরভাবে দেশকে দেখেছেন, তার লেখায় নাটক ও সিনেমায় হাওর অঞ্চলকে তুলে ধরেছেন। তার ভেতরে ছিল দেশপ্রেম মানুষের প্রতি ভালোবাসা। সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেন, হুমায়ুন আহমেদের লেখা আবালবৃদ্ধ সবাইকে মনোমুগ্ধ করে।  সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, এ সাহিত্য পুরস্কার যোগ্য লোকদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। মেহের আফরোজ শাওন বলেন, গত আট বছরে হুমায়ূন আহমেদের সাহিত্য পুরস্কারে অনেক প্রিয় মুখ এসেছিলেন। আজকে তাদের অনেকেই নেই।

অনুভূতি প্রকাশে আনোয়ারা সৈয়দ হক বলেন, আজ আমার জীবনের একটি বিশেষ দিন। এত মোটা অঙ্কের পুরস্কার আমি আগে কখনো পাইনি। এই পুরস্কারের টাকা আমি আমার শৈশবের স্কুলের গরিব বাচ্চাদের দান করব। মৌরি মরিয়ম বলেন, হুমায়ূন আহমেদে শুধু আমার প্রিয় লেখক নন তিনি আমার অবসেশন। তার নামে পদক পেয়ে আমি ধন্য।  অনুষ্ঠানের শুরুতে শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা ‘আজ জোত্স্না রাতে সবাই গেছে বনে’ ও ‘দূরে কোথায় কোথায় দূরে দূরে’ রবীন্দ্রনাথ সংগীত গেয়ে শোনান।

 

ইত্তেফাক/ইআ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন