সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

অস্ত্রের মহড়া দিয়ে বাড়ির চারপাশে বেড়া, অবরুদ্ধ পরিবার 

আপডেট : ২১ নভেম্বর ২০২২, ১৮:০৯

প্রকাশ্য দিবালোকে দেশি অস্ত্রের মহড়ায় মামুন সিকদার নামে এক পরিবারের বাড়ির চারপাশে বেড়া দিয়ে পুরো পরিবারকে অবরুদ্ধ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। কেটে দেওয়া হয়েছে বাড়ির পানির লাইন ও বিদ্যুৎ সংযোগ। 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ৯৯৯ এ ফোন করে পুলিশের সহযোগিতা চাওয়ায় সন্ত্রাসীরা ঐ পরিবারের সদস্যদের প্রাণ নাশের হুমকি দিয়েছে। ফলে পুরো পরিবারের সদস্যরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

সন্ত্রাসীদের ভয়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক শিক্ষিকা স্কুলে যেতে পারছে না। তার পুত্র এইচএসসি পরীক্ষা দিতে কেন্দ্রে যেতে পারছে না বলে জানিয়েছেন। 

সোমবার (২১ নভেম্বর) টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই শিল্পাঞ্চলের ১০ নং গোড়াই ইউনিয়নের গন্ধ্যবপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, পুরো পরিবারটি অবরুদ্ধ। 

ছবি: প্রতিনিধি

সোহাগপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা সাদিয়া আক্তার জানান, গোড়াই মৌজার ৮৫৫ খতিয়ানের ৫ দশমিক ৬৬ শতাংশ জমির তারা বৈধ মালিক। সেলিম ও তার পরিবারের নিকট থেকে ক্রয় করে তারা এই জমির মালিক হন। সমস্ত বৈধ দলিলসহ কাগজপত্র রয়েছে। জমির উপর তাদের বহুতল ভবন ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। যুগ যুগ ধরে এখানে বসবাস করে আসছেন। তার স্বামী বাড়িতে না থাকার সুযোগে আজ বেলা এগারটার দিকে পারিবারিক বিরোধকে কেন্দ্র করে একই এলাকার সেলিম, লাবু, মজিদ, আনোয়ার, সকু মিয়া, আরিফ, পাপ্পু, মজিবর ও সুব্রতসহ ২৫-৩০ জন ভাড়াটে সন্ত্রাসী বাহিনী দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বাড়ির চারপাশ ঘেরাও করে খুঁটি, বাঁশ ও কাঠ দিয়ে বেড়া দিয়ে তাদের অবরুদ্ধ করে ফেলে। সন্ত্রাসী এই বাহিনী বাসার পানির লাইন কেটে দেয়। বিদ্যুতের মিটার ভেঙ্গে লাইন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে। প্রাণ বাঁচাতে পরিবারটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ৯৯৯-এ পুলিশকে ফোন দিলে সন্ত্রাসীরা ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের প্রাণ নাশের হুমকি দেয়। 

স্কুল শিক্ষিকা সাদিয়া আক্তার আরও অভিযোগ করে বলেন, সন্ত্রাসীদের ভয়ে তিনি স্কুলে যেতে পারছেন না। তার ছেলে শিহাব এইচএসসি পরীক্ষার্থী। সেও কেন্দ্রে পরীক্ষা দিতেও যেতে পারছে না। বাড়ির চারপাশে বেড়া দেওয়ায় তারা অবরুদ্ধ জীবন যাপন করছে। সন্ত্রাসীদের হুমকিতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে জানিয়েছেন।
 
বাড়ির মালিক ও ব্যবসায়ী মামুন বলেন, সন্ত্রাসীরা দীর্ঘদিন ধরে তার পরিবারকে নির্যাতন করে আসছে। তিনি বাড়িতে না থাকায় এলাকার প্রভাবশালী মহলের যোগসাজসে সন্ত্রাসীরা বাড়ির চারপাশ বেড়া দিয়ে ঘেড়াও করে অবরুদ্ধ করে ফেলেছে। পরিবারের নিরাপত্তা ও ঘরবাড়ি রক্ষার জন্য তিনি বিকেলে টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপারের নিকট আবেদন জানিয়েছেন। 

ছবি: প্রতিনিধি

অভিযুক্ত সেলিম মিয়া ও লাবুর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে বলেন, মামুন ও এলাকার সেলিম, মজিদ ও আনোয়ারের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ রয়েছে। আমরা চেষ্টা করছি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে সঙ্গে নিয়ে জমি সংক্রান্ত বিরোধ মীমাংসা করার জন্য। 

মামুনের বাড়ি বেড়া দিয়ে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে কেন প্রশ্ন করলে বিষয়টি এড়িয়ে যান। এ বিষয়ে পরে কথা হবে বলে তারা ফোন কেটে দেন।

দেওহাটা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আইয়ুব হোসেন খান বলেন, ৯৯৯ এ ফোন পাওয়ার পর একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছিলো। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে কাউকে পায়নি। তবে বাড়ির চারপাশে বেড়া দেওয়ার পর প্রধান গেইটের কিছু অংশ বেড়া যাতায়াতের জন্য ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে। উভয় পক্ষকে কাগজপত্র নিয়ে থানায় ডাকা হয়েছে। এলাকার পরিবেশ এখন শান্ত।

ইত্তেফাক/পিও