শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

রাশিয়ার স্মৃতি ভুলে কাতারে এগোতে চায় জার্মানি

আপডেট : ২৩ নভেম্বর ২০২২, ১৯:০০

চার বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন তারা, ২০১৪ সালে ব্রাজিল বিশ্বকাপের দাপটের সঙ্গে শিরোপা হাতে তোলে জার্মানি। তবে ৪ বছর বাদেই রাশিয়া বিশ্বকাপটি হয়তো স্মৃতির পাতা থেকে মুছেই ফেলতে চাইবে জার্মানরা। ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন হিসেবে বিশ্বকাপে এসে গ্রুপ পর্ব থেকেই বাদ পড়ে যায় জার্মানি। গত বিশ্বকাপের স্মৃতি এবার আর মনে করতে চায় না ম্যানুয়েল নয়্যাররা।

গ্রুপ-ই'তে নিজেদের প্রথম ম্যাচে খালিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে আজ বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৭ টায় এশিয়ান পরাশক্তি জাপানের বিপক্ষে মাঠে নামবে জার্মানি। ৪ বছর আগের হতাশা কাটিয়ে এবার নিজেদের প্রমাণে মুখিয়ে আছে চার বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।
 
২০১৮ সালে রাশিয়া বিশ্বকাপে তৎকালীন  চ্যাম্পিয়ন হিসেবে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় ছিল জার্মানদের জন্য লজ্জাজনক। ব্রাজিলে জোয়াকিম লো'র অধীনে শিরোপা জয়ী দলটি রাশিয়াতে শিরোপা ধরে রাখার মিশনে ফেবারিটও ছিল। তবে সব আশা ভঙ্গ করে তারা বিদায় নেয় প্রথম পর্ব থেকেই।

বিশ্বকাপ থেকে বিদায়ের পর ২০২০ ইউরোপীয়ান চ্যাম্পিয়নশীপেও শেষ ১৬’র বাধা পার করতে পারেনি জার্মানরা। এর পরপরই দীর্ঘদিনের কোচ লো নিজে থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দেন। এরপর জাতীয় দলের দায়িত্ব নেন আরেক পরীক্ষীত কোচ হ্যান্সি ফ্লিক। এবারের আসরে আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল হট ফেবারিট হলেও ফ্লিকের অধীনে জার্মানি কতদূর এগিয়ে যায় তা সময়ই বলে দিবে।
 
এদিকে, শেষ আট ম্যাচে মাত্র দুটি জয় পাওয়ায় জার্মানদের আত্মবিশ্বাসে কিছুটা হলেও  ঘাটতি রয়েছে। ইতালি, ইংল্যান্ড ও হাঙ্গেরির সঙ্গে ন্যাশনস লিগের গ্রুপ পর্বে তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে জার্মানি। তবে বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতি ম্যাচে ওমানকে ১-০ গোলে হারিয়ে নিজেদের হারানো আত্মবিশ্বাস ফিরে পেতেই চেয়েছে জার্মানরা।
 
চারবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ইতালি যেহেতু এবারের আসরে অংশ নিতে পারেনি সে কারনেই একমাত্র জার্মানির সামনেই সুযোগ রয়েছে ব্রাজিলের পাঁচবারের শিরোপা জয়ের রেকর্ড স্পর্শ করার। কিন্তু গ্রুপ পর্বে জাপান, কোস্টারিকা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেই যাতার শুরু করতে হবে, এরপর রয়েছে নক আউট পর্ব। সাম্প্রতিক ফর্ম বিবেচনাই জার্মানদের নিয়ে খুব একটা আশাবাদী হওয়া যেমন যায় না, আবার দলটি জার্মানি বলে তাদের বাতিলের খাতাতেও ফেলে দেওয়া যায় না। 
 
এদিকে জাপানের এবারের বিশ্বকাপ দলে ইউরোপে খেলা কোন খেলোয়াড় নেই। ১৯৯৮ সালে বিশ্বকাপে অভিষেক হওয়া দলটিতে বেশীরভাগই ঘরোয়া জে-লিগ ও জার্মান ক্লাবের খেলোয়াড় রয়েছে। এই নিয়ে টানা সপ্তমবারের মত বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জণ করেছে ব্লু-সামুরাইরা। গত ২৪ বছর ধরে নিজেদের সেরাটা দেওয়ারই চেষ্টা করে গেছে এশিয়ান পরাশক্তিরা। 

এবারের দলটিতে জে-লিগে খেলা ৭ জন খেলোয়াড় রয়েছেন যার মধ্যে অন্যতম হলেন অভিজ্ঞ ফুল-ব্যাক ইউতো নাগামোতো। ৩৬ বছর বয়সী এই ডিফেন্ডার ইউরোপে ইন্টার মিলান, গ্যালাতাসারে ও মার্শেইর মত ক্লাবে ১১ বছর কাটানোর পার ফিরে এসেছেন জাপানে। এছাড়াও হিরোকি সাকাইও জার্মানি ও ফরাসি লিগে খেলেছেন। 

দলের ১৯ জন খেলোয়াড় এবারই প্রথমবারের মত বিশ্বকাপে খেলার অভিজ্ঞতা অর্জণ করবেন। আগের তিন বিশ্বকাপে জাপানকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া কেইসুকে হোন্ডা, শিনজি কাগাওয়া, শিনজি ওকাজাকি ও মাকোতো হাসেবের কাছ থেকে অনুপ্রেরণা নিয়েই নতুন প্রজন্ম এবারের আসরে ব্লু সামুরাইদের প্রতিনিধিত্ব করতে যাচ্ছে।

ইত্তেফাক/এসএস