শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

খুলনায় ১০ দফা দাবিতে নৌযান শ্রমিকদের অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি

আপডেট : ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১৬:২১

খুলনায় নৌযান শ্রমিকদের বেতন-মজুরি বৃদ্ধিসহ ১০ দফা দাবিতে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি শুরু হয়েছে। গতকাল শনিবার (২৬ নভেম্বর) মধ্যরাত থেকে এ কর্মবিরতি শুরু হয়। ফলে খুলনা থেকে লঞ্চ চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে উপকূল অঞ্চলের যাত্রীরা। 

এদিকে, ১০ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে রোববার (২৭ নভেম্বর) সকালে নগরীর বিআইডব্লিউটিএ লঞ্চ ঘাটে বিক্ষোভ মিছিল করেছে শ্রমিকরা।

১০ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে, শ্রমিকদের সর্বনিম্ন মজুরি ২০ হাজার টাকা নির্ধারণ, কর্মস্থলে ও দুর্ঘটনায় মৃত্যুজনিত ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ, কন্ট্রিবিউটরি প্রভিডেন্ট ফান্ড ও নাবিককল্যাণ তহবিল গঠন, ভারতগামী শ্রমিকদের ল্যান্ডিংপাস প্রদান, বাল্কহেডের রাত্রিকালীন চলাচলের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা শিথিলকরণ, বাংলাদেশের বন্দরসমূহ থেকে পণ্য পরিবহন নীতিমালা ১০০ ভাগ কার্যকর করা, চট্টগ্রাম বন্দরে প্রোতাশ্রয় নির্মাণ ও চরপাড়া ঘাটের ইজারা বাতিল এবং চট্টগ্রাম থেকে পাইপলাইনে জ্বালানি তেল সরবরাহের চলমান কার্যক্রম বন্ধ।

নৌযান শ্রমিক আকবর ও হাসমত আলী জানান, দীর্ঘদিন ধরে বেতন-মজুরি বৃদ্ধির দাবি জানিয়ে আসছি। কিন্তু কর্তৃপক্ষ আমাদের দাবি মানছে না। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের এই কর্মবিরতি চলবে।

খুলনা নৌযান শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের সদস্য মো. ফারুক হোসেন বলেন, বর্তমানে একজন শ্রমিক সর্বনিম্ন ৭ হাজার ৭৫০ টাকা মজুরি পাচ্ছে। প্রতিদিন ২৩৩ টাকা তাদের মজুরি। বর্তমান বাজারে দ্রব্যমূল্যের উর্দ্ধগতিতে শ্রমিকরা সংসার চালাতে পারছে না। তারা বার বার মালিকদের কাছে দাবি জানিয়ে আসলেও তাতে কর্ণপাত করছে না।
 
বাংলাদেশ লঞ্চ লেবার অ্যাসোসিয়েশনের খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন বলেন, ৭-৮ বছর আগের বেতন কাঠামো এখনো চলছে। বর্তমান দ্রব্যমূল্যের বাজার সম্পর্কে সবার জানা আছে। শ্রমিকদের পিঠ দেওয়ালে ঠেকে গেছে। সংগ্রাম-কর্মবিরতি করা ছাড়া শ্রমিকদের আর কোনো গতি নেই। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত নৌযান শ্রমিকরা কর্মবিরতি চালিয়ে যাবে।

ইত্তেফাক/পিও