বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

স্পেনের বিপক্ষে ঘুরে দাঁড়াতে চায় জাপান

আপডেট : ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৫:২৭

কাতার বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে জার্মানিকে হারিয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলো এশিয়ার পাওয়ার হাউজ জাপান। তবে পরের ম্যাচেই কোস্টারিকার বিপক্ষে হেরে নক-আউটে ওঠার সুযোগ হারয়েছে তারা। আজ নক আউটে ওঠার লড়াইয়ে গ্রুপে নিজেদের শেষ ম্যাচে এশিয়ার পরাশক্তিরা মুখোমুখি হচ্ছে ইউরোপের জায়ান্ট স্পেনের।

বাংলাদেশ সময় আজ দিবাগত রাত ১টায় খালিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে নিজেদের শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হবে স্পেন ও জাপান। গ্রুপ-ই’র শীর্ষে থাকা স্প্যানিশরা এই ম্যাচে অন্তত ড্র করতে পারলেই নক আউট পর্বের টিকিট পাবে। তবে ব্লু সামুরাইদের বিপক্ষে জয় তাদের গ্রুপের শীর্ষ দল হিসেবে পরের রাউন্ডে পৌঁছে দিবে।
 
এই সুযোগটি পুরোপুরি কাজে লাগাতে চায় লা রোজারা। কারণ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে পরের রাউন্ডে উঠলে সেখানে তাদের জন্য অপেক্ষায় থাকবে গ্রুপ-এফ’র রানার্স-আপ দল। আর সেই দলটি ক্রোয়েশিয়া, মরক্কো কিংবা বেলজিয়ামের মধ্যে যেকোন একটি দল হতে পারে। 

এবারের আসরে দ্বিতীয় অঘটনের জন্ম দিয়ে ইতোমধ্যেই চারবারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানিকে পরাজিত করে  শঙ্কায় ফেলে দিয়েছে জাপান। উজ্জীবিত জাপানিজরা অবশ্য দ্বিতীয় ম্যাচে লড়াই করেও কোস্টারিকার কাছে ১-০ গোলে হেরে গেছে। এই মুহূর্তে স্পেনের থেকে এক পয়েন্ট পিছিয়ে যথাক্রমে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে রয়েছে জাপান ও কোস্টারিকা। সে কারণেই স্পেনকে হারাতে পারলে শীর্ষ দল হিসেবে জাপান পৌঁছে যাবে পরের রাউন্ডে। আর যদি স্পেন হেরে যায় ও হ্যান্সি ফ্লিকের দল জয়ী হয় তবে গ্রুপের দ্বিতীয় স্থানে জন্য এই দুই দলের মধ্যে গোল ব্যবধান বিবেচনা করা হবে।  এ কারনে শেষ ম্যাচে জার্মানি যেন কোস্টারিকার কাছে হেরে বিদায় নেয় সেটাই এখন কাম্য স্পেন ও জাপানের।
 
স্প্যানিশ অভিজ্ঞ মিডফিল্ডার কোকে আজকের ম্যাচ সামনে রেখে স্থানীয় গণমাধ্যমের কাছে বলেছেন, ‘আমাদের একমাত্র পরিকল্পনা হচ্ছে অল-আউট ফুটবল খেলা ও জাপানের বিপক্ষে জয় নিশ্চিত করা। আমরা আগেও এমন পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠেছি। যদিও আমরা প্রতিপক্ষকে ছোট করে দেখছি না। এই একটি পন্থায় আমাদের কাল মাঠে নামতে হবে এবং পরের রাউন্ড নিশ্চিত করতে হবে।’

স্পেন যদি গ্রুপ পর্বের বিজয়ী দল হিসেবে পরের রাউন্ডে গিয়ে শেষ ১৬ জিততে পারে তবে কোয়ার্টার ফাইনালে তাদের সম্ভাব্য প্রতিপক্ষ হিসেবে ব্রাজিলকে দেখা যেতে পারে। কোকে অবশ্য এতটা দুরের চিন্তা এখনই করছেন না।

স্প্যানিশ এই মিডফিল্ডার বলেন, ‘আমার মনে হয়না কোন দলকে আমরা ভয় পাই। সব আন্তর্জাতিক দলের প্রতি আমাদের সমান শ্রদ্ধা আছে। এই মুহূর্তে আমরা কোয়ার্টার ফাইনাল নিয়ে চিন্তা করছি না। কারণ আগে আমাদের জাপানের বিরুদ্ধে জিততে হবে। ম্যাচ বাই ম্যাচ এগিয়ে যাওয়াই এখন আমাদের মূল লক্ষ্য। কোয়ার্টার ফাইনালে যদি ব্রাজিলকে প্রতিপক্ষ হিসেবে পাই তবে সেই ম্যাচ নিয়ে ভিন্ন পরিকল্পনা থাকবে। প্রতি ম্যাচেই জয়ের অভিন্ন পরিকল্পনা আমাদের থাকে।’

গ্রুপে এই মুহূর্তে জাপানের পজিশন সত্যিই প্রশংসার দাবীদার। জার্মানি ও স্পেনের সঙ্গে একই গ্রুপে থাকার পরও শেষ ম্যাচের আগে দ্বিতীয় স্থানে থাকাটাও অনেক বড় বিষয় জাপানের জন্য। যদিও কোস্টারিকার কাছে হেরে তারা এক ম্যাচ হাতে রেখে পরের রাউন্ডে যাওয়ার সুবর্ণ সুযোগ হারিয়েছে। স্পেনের সঙ্গে অন্তত এক পয়েন্ট হলেই পরের রাউন্ড নিশ্চিত হবে এশিয়ান জায়ান্টদের। আর সেটা হলে টানা দ্বিতীয়বারের মতো জাপান এই কৃতিত্ব অর্জন করবে।

জাপানের কোচ মোরিইয়াসু অবশ্য স্পেনকে বিশ্বের অন্যতম সেরা দল হিসেবে বিবেচনা করেই মাঠে নামতে যাচ্ছেন। তবে তিনি বিশ্বাস করেন জার্মানির বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক জয় আরো একবার সমর্থকদের উপহার দেওয়া সময়ের ব্যপার। এ নিয়ে মোরিইয়াসু বলেন, ‘স্পেন বিশ্বের সেরা দল। আমরা জিততে চাই এবং তাদেরকে পিছনে ফেলতে চাই।  আমরা এই মুহূর্তে এমন এক পরিস্থিতিতে আছে যা পুরো দলকে আবেগি করে তুলেছে। আগের দুই ম্যাচে জয়-পরাজয় এখন অতীত। এই ম্যাচে আমরা সম্পূর্ণ নতুন এক দলের বিপক্ষে মাঠে নামতে যাচ্ছি। জার্মানির সঙ্গে যা হয়েছে স্পেনের সঙ্গেও সেটা হতে পারে। পুরোটাই আমাদের নিজেদের ওপরই নির্ভর করছে।’

ইত্তেফাক/এসএস