শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

আয়কর প্রদানের সক্ষম লোকের সংখ্যা প্রায় ১ কোটি ১৬ লাখ

আপডেট : ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০০:৩২

বর্তমানে দেশে কর শনাক্তকরণ নম্বর বা টিনধারীর সংখ্যা ৮৩ লাখ, যদিও গত অর্থবছরে আয়কর রিটার্ন দাখিল হয়েছে মাত্র ২৫ লাখ ৩০ হাজার, বিষয়টি মোটেই আশাব্যঞ্জক নয়। আয়কর রিটার্ন দাখিলের ব্যাপারে ব্যক্তি পর্যায়ে আরো উদ্যোগী হওয়া ও সচেতনতা বাড়ানোর প্রতি গুরুত্ব দিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (আয়কর তথ্য ব্যবস্থাপনা ও সেবা) মোহাম্মদ জাহিদ হোসেন।

তিনি বলেন, দেশে আয়কর প্রদানের সক্ষম লোকের সংখ্যা প্রায় ১ কোটি ১৬ লাখ, যদিও এ বিপুল জনগোষ্ঠীর একটি বড় অংশ এনবিআরের কর ব্যবস্থাপনার বাইরে রয়েছে, তবে করজাল সম্প্রসারণে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড সারা দেশে কর অঞ্চলের অফিস বাড়ানোর উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।   

ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) আয়োজিত ‘কাস্টমস, ভ্যাট অ্যান্ড ইনকাম ট্যাক্স ম্যানেজমেন্ট’ বিষয়ক কর্মশালায় গতকাল প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ডিসিসিআইয়ে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্যে ঢাকা চেম্বারের সভাপতি রিজওয়ান রাহমান বলেন, ২০২২-২৩ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটে করজাল বৃদ্ধির জন্য ৩৮টি ক্ষেত্রে রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। তাছাড়া ভ্যাটের কেন্দ্রীয় নিবন্ধন বাধ্যতামূলক করা, স্থানীয় পর্যায়ে কেমিক্যাল উত্পাদন ৬ শতাংশ ভ্যাট ছাড়, মূসক ফরম-এ পরিবর্তন এবং কম্পিউটার যন্ত্রাংশ আমদানিতে ভ্যাট বৃদ্ধিসহ বেশকিছু পরিবর্তন করা হয়েছে। এ ধরনের পরিবর্তন সম্পর্কে ব্যবসায়ী সম্প্রদায়কে অবশ্যই অবগত থাকতে হবে। 

ডিসিসিআই সভাপতি জানান, বিগত বছরের ন্যায় ‘ট্যাক্স গাইড ২০২২-২৩’ প্রকাশ করেছে ঢাকা চেম্বার, বইটিতে আয়কর, ভ্যাট এবং কাস্টমস আইনের বিস্তারিত বিবরণী সন্নিবেশন করা হয়েছে, যা ঢাকা চেম্বারের সদস্যবৃন্দের পাশাপাশি দেশের ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের কাজে আসবে। কর্মশালায় দুটি মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ডিসিসিআইয়ের কাস্টমস, ভ্যাট অ্যান্ড এনবিআর-বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির উপদেষ্টা স্নেহাশিষ বড়ুয়া এবং যুগ্ম-আহ্বায়ক এমবিএম লুত্ফুল হাদী, এফসিএ।

ইত্তেফাক/ইআ