শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

নয়াপল্টনকে অস্থিতিশীল করতে নাশকতা চলছে: ফখরুল

আপডেট : ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ১৬:০২

নয়াপল্টনকে অস্থিতিশীল করতে নাশকতা চলছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, চক্রান্ত থেমে নেই। নয়াপল্টনকে অস্থিতিশীল করতেই সরকারের এজেন্সিগুলো নানা ধরনের নাশকতা ঘটাতে অবতীর্ণ হয়েছে। গতকাল এই কার্যালয়ের সামনে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এই বিস্ফোরণের পর পুলিশ আকস্মিকভাবে নেতা-কর্মীদের পাইকারি হারে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে যাচ্ছে।

রোববার (৪ ডিসেম্বর) দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জরুরি সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, মতিঝিলে পরিত্যক্ত বিআরটিসি বাসে আগুন দিয়ে বিএনপির ওপর দায় চাপাতে গিয়ে হাতে-নাতে ধরা খেয়ে চুপসে গেছেন ওবায়দুল কাদের সাহেব। অথচ তিনি বিএনপিকে দায়ী করে নাশকতার কথা বলে যাচ্ছেন। বিএনপির গণসমাবেশের কর্মসূচি জনমনে বিভ্রান্তি তৈরি করার জন্য প্রায় মাসখানেক আগে ঢাকা জেলা আদালতে জঙ্গি নাটকের অবতারণা করা হয়। বেশকিছু দিন চুপ থেকে এখন সেই জঙ্গি ধরার নামে মেস, আবাসিক হোটেল ও বাসাবাড়িতে পুলিশ ব্লক রেইড দিচ্ছে। পুলিশের এই হানা মূলত বিএনপির নেতা-কর্মীদেরকে পাইকারি হারে গ্রেপ্তার, হয়রানির ও আতঙ্ক সৃষ্টির জন্য। আমি এই চক্রান্তের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের বাসার সমানে বালির ট্রাকের কায়দায় চেকপোস্ট ব্যারিকেড দিয়ে পুলিশ অবরোধ করে রেখেছে। এটি দেশনেত্রীর ওপর নিপীড়নের নতুন আরেকটি মাত্রা।

তিনি আরও বলেন, রাজশাহীর সমাবেশ শেষে ঢাকায় আসার পথে কেন্দ্রীয় যুবদলের সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু ও সহ-সভাপতি নুরুল ইসলাম নয়নকে আমিনবাজার থেকে ডিবি উঠিয়ে ঢাকার দারুস সালাম থানায় নিয়ে যায়। তাদের বিরুদ্ধে মামলা, অভিযোগ কিছুই নেই। শুধুমাত্র জনগণের আন্দোলনকে দমিয়ে ফেলার জন্য, ত্রাস সৃষ্টি জন্য বেআইনিভাবে তাদের তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত গাড়ি এবং চালকের কোনো খবর আমরা পাইনি।

ইত্তেফাক/এসকে