বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

রম্য

বই: আমারও একটা আছে!

আপডেট : ০৪ জানুয়ারি ২০২৩, ১০:৩২

অমর একুশে বইমেলা। বাঙালির প্রাণের মেলা। আপামর বাঙালির মাসব্যাপী এক মিলন উত্সব। বইমেলার জনপ্রিয়তাসূত্রে সম্প্রতি দেশের কয়েকটি জেলায় আঞ্চলিক বইমেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মেলাপ্রাঙ্গণে সরকারি-বেসরকারি নানা স্টলে রকমারি বইয়ের সমারোহ। স্টলগুলোতে দর্শক-শ্রোতা-পাঠকের উপচেপড়া ভিড়।

প্রেমিক-প্রেমিকা, কিশোর-কিশোরী, ভাইবোন, বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়স্বজন, বাবা-মা-সন্তান, শিক্ষক-শিক্ষার্থী—নানা বাহারি যুগলে বিকেল-সন্ধে-রাত হরদম বিভিন্ন স্টলে বিচিত্র বই দেখা। কেবলই দেখা। ইংরেজিতে যাকে বলে, ‘উইনডো শপিং’। কোনো বিপ্রতীপ বা সম বন্ধের দ্বিত্বের ‘সফটওয়ারে’ বই ছাড়া আর সবকিছুই যেন ক্রয়যোগ্য। ‘শব’-এর মতো সব বই। বিপুল পাঠকের মেলাপ্রাঙ্গণ যেন সরব শশ্মানপুরী!

অত্যুত্সাহী পাঠক-শ্রোতা আকাশের চাঁদ-সূর্যের মতো স্টলে বই দেখছে। আর নির্বাক দৃষ্টিতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কথিত ‘তুমি কি কেবলই ছবি’ হয়ে যাচ্ছে। সৌরজগতের গ্রহ-উপগ্রহের মতো বইও যেন সাধারণের ক্রয়ক্ষমতা-বহির্ভূত। কিংবা বলা যেতে পারে, নোবেল বিজয়ী বিজ্ঞানী আলফ্রেড নোবেল আবিষ্কৃত ডিনামাইটের মতো ‘এক্সপ্লোসিভ’ এবং প্রাচীন মিশরের  প্যাপিরাস কাগজের ন্যায় ‘এক্সক্লুসিভ’।

সত্যিই বিচিত্র এই বাংলাদেশ! বোরখা, সালোয়ার-কামিজ-ওড়না, জিনস-টপস বা শাড়ি পরিহিতা কিশোরী-যুবতী-বৃদ্ধা কিংবা পাজামা-পাঞ্জাবি, শার্ট-প্যান্ট বা জিনস-টি শার্টময় কিশোর-যুবক-বৃদ্ধ বইমেলার স্টলের চারপাশে বৃত্তাকারে, একা বা সদলে ঘুরছে। আর রূপসী বাংলার কবি জীবনানন্দের আক্ষেপিত ‘বিপন্ন বিস্ময়’-এ স্টলগুলোতে কেবল বই দেখছে আর দেখছে।

বইমেলায় আগত সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-বর্ণ-ধর্ম-পেশা নির্বিশেষে পাঠকের কাছে বই হচ্ছে যেন ব্যাংকের ‘চেক বই’ বা ‘ক্যাশ বই’। আর বর্তমান বিশ্বে তথ্যপ্রযুক্তির বিস্ময়কর কল্যাণে সবার মুঠোফোনে ‘ইউটিউব’, ‘গুগল’, ‘ফেইসবুক’, ‘মেসেঞ্জার’, ‘ইনস্ট্রাগ্রাম’, ‘হোয়াটসঅ্যাপ’—কত আয়োজন! তাই পাঠকের কাছে বই কিনে ‘বুদ্ধিজীবী; বা ‘চিরজীবী’ হওয়ার চেয়ে মোবাইলের  ইন্টারনেট চালনার জন্য ৮, ১০ বা ২০ ‘জিবি’ই যথেষ্ট। কিংবা প্রখ্যাত সাহিত্যিক সৈয়দ মুজতবা আলীর কথিত ‘ও বই’—আমারও একটা আছে!

বইমেলায় ক্রয়-বিক্রয়ের এমন হতাশার মাঝেও ঈশান কোণে আশা উঁকি দেয়। মেলার শুরুতে কিংবা শেষদিনে বিরল প্রজাতির পক্বকেশ বৃদ্ধ-বৃদ্ধা, কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, বই-ব্যবসায়ী, এজেন্ট কিংবা বইপ্রেমীরা আপ্রাণ চেষ্টায় দুষ্প্রাপ্য-দুর্মূল্য বইটি সংগ্রহ করছে। ‘আশায় বাঁচে চাষা’র মতো সবেধন-নীলমণি সাত রাজার ধন এই নির্দিষ্ট শ্রেণির জন্যই দুর্দশাগ্রস্ত স্থানীয় বা আঞ্চলিক বইমেলা এখনো চিরনবীন।

দেশব্যাপী আঞ্চলিক বইমেলার এমন দুরবস্থা সত্ত্বেও এ কথা সত্য যে, ফেব্রুয়ারি মাসব্যাপী ঢাকায় অনুষ্ঠিত অমর একুশে বইমেলা কিংবা প্রতিবেশী দেশ ভারতের কলকাতা বইমেলায় পাঠক-ক্রেতা-বিক্রেতার নিরন্তর আগমন লক্ষণীয়। আর দুটি মেলায় কোটি কোটি টাকার বিক্রিত বইয়ের ক্রয়ের ক্ষেত্রে পাঠক-ক্রেতার সিংহভাগ জুড়ে আছে দুই দেশ তথা বহির্বিশ্বের বাংলা ভাষাভাষী নানা মানুষ।

ইত্তেফাক/এসটিএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন