বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৬ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

টিকিট কাটতে হচ্ছে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে

মেট্রোরেলের ভেন্ডিং মেশিন হঠাৎ হঠাৎ বিগড়ে যাচ্ছে!

আপডেট : ০৭ জানুয়ারি ২০২৩, ০৫:১৫

মেট্রোরেলে যাত্রীরা টিকিট ভেন্ডিং মেশিনে (স্বয়ংক্রিয় টিকিট বিক্রয় সিস্টেম) টিকিট কাটতে গেলে হঠাৎ হঠাৎ বিগড়ে যাচ্ছে। যার কারণে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতেই ভরসা করতে হচ্ছে যাত্রীদের। এতে যাত্রীদের দীর্ঘ লাইন লেগে যাচ্ছে স্টেশনে। গতকাল মেট্রোরেলের আগারগাঁও ও উত্তরা স্টেশনে এমন চিত্র দেখা গেছে।

গতকাল ঘুরে দেখা যায়, সকাল থেকেই ছিল যাত্রীর চাপ। প্ল্যাটফরমে উঠে টিকিট কাটতে গিয়ে যাত্রীরা বিপাকে পড়ে। স্বয়ংক্রিয় মেশিনগুলো ঠিকমতো কাজ করছিল না। বারবার অকেজো হয়ে পড়েছিল টিকিট ভেন্ডিং মেশিনগুলো। টিকিট কাটতে যাত্রীদের যেমন সময় বেশি লাগছিল, তেমনই বিরক্তি প্রকাশ করছিলেন কেউ কেউ।

টিকিট মেশিনের পাশে দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিরা জানান, নতুন অবস্থায় অনেক যাত্রীকে টিকিট কাটার সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া সময় নিয়ে বোঝাতে হচ্ছে। তারা আরও বলেন, টিকিট মেশিনে ৫০০ টাকার ভাংতি দিতে সমস্যা হয় বিধায় আমরা যাত্রীদের খুচরা নোট ব্যবহারের অনুরোধ করছি। টিকিট কাটার মেশিন বারবার নষ্ট হওয়ার জন্য তারা যাত্রীদের চাপ ও ব্যবহারে অনভিজ্ঞতার কথা জানান।

আগারগাঁও মেট্রো স্টেশনে রাসেল নামে এক যাত্রী বলেন, ‘সবাইকেই দেখলাম ঠিক ঠিক টিকিট নিতে, আমার সময় এসেই দেখি মেশিন নষ্ট। কিছুক্ষণ অপেক্ষার পর আবার ঠিক হয়েছে।’ আগারগাঁওয়ে তিনটি মেশিনের মধ্যে একটি পুরোপুরি বন্ধ ছিল। বাকি দুটির একটি ঠিকমতো চললেও আরেকটি একটু পরপর অকেজো হচ্ছিল। একই অবস্থা উত্তরা স্টেশনেও। উত্তরার একটি মেশিন বিকল হয়ে পড়ায় সেখানকার যাত্রীদের হাতে টিকিট কাটার জন্য অন্য লাইনে গিয়ে দাঁড়াতে দেখা গেছে। এছাড়া কোনো মেশিনই ৫০০ টাকার নোট নিচ্ছিল না। 

রহমান নামে উত্তরার এক মেট্রোযাত্রী বলেন, ‘আমি জানতাম না ৫০০ টাকার নোটে টিকিট পাওয়া যায় না। প্রায় ১০ মিনিট লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে মেশিনের কাছে এসে দেখি ৫০০ টাকার নোট মেশিন নিচ্ছে না। তিনটা টিকিট নেব তাও সম্ভব হবে না। এখন গিয়ে আবারও হাতে হাতে টিকিট নেওয়ার জন্য লাইনে দাঁড়াতে হবে। এইটা খুবই খারাপ লাগছে।’

ইত্তেফাক/এমএএম