বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

গ্রন্থলোক

জীবনের প্রয়োজনেই ছুটে চলা

আপডেট : ১৬ জানুয়ারি ২০২৩, ২৩:৪৩

জীবন ও কাল বহমান। মহাকালের যাত্রী হওয়ার আগে জীবনপথের নাতিদীর্ঘ রাস্তা বহুকিছুর সাক্ষী বানায় আমাদের! কত শত চড়াই-উতরাই, আনন্দ-বেদনা সঙ্গী হয় আমাদের! জীবন ও চারপাশ ঘিরে থাকে অজস্র পাওয়া-না পাওয়া। জীবনের একটা পর্যায়ে এসে প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির এই জটিল অঙ্ক মেলাতে চেষ্টা করি আমরা—বৈচিত্র্যময় মানবজীবনের এ যেন সহজাত প্রবৃত্তি! যাপিত জীবনের খেরোখাতার কঠিন হিসাব মিলুক-না মিলুক, ফেলে আসা জীবনস্মৃতি মনে এনে দেয় এক চিলতি প্রশান্তি। জীবনতরির যাত্রী হয়ে দেশ-বিদেশে ভেসে চলা এমনই একজন মানুষ সৈয়দ নূর হোসেন। পড়াশোনার পাট চুকিয়ে কর্মজীবনে প্রবেশ করে দেশ-বিদেশ দাপিয়ে বেড়িয়েছেন তিনি। গ্রামীণ শৈশব-কৈশোরের ডানায় চড়ে নগর জীবনে পা। অতঃপর উচ্চশিক্ষা লাভের পর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চাকরির সুবাদে দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিদেশ। কত ঘটনা, কত রোমাঞ্চ, কত বাঁক—চলার পথের সেই জীবনে! নূর হোসেন এসবের জীবন্ত চিত্র এঁকেছেন ‘কখনো স্বদেশ কখনো বিদেশ’ বইয়ে।

একজন অ্যাম্বাসেডরের লেখা বইয়ে কাটখোট্টা, ভাবগাম্ভীর্যে ভরা, কঠিন শব্দ চয়নের বাড়াবাড়ি থাকবে বলে মনে হয়েছিল। সত্যি বলতে, বইটা হাতে পাওয়ার পর যখন পৃষ্ঠা ওলটানো শুরু করলাম, যেন ভেসে চললাম নূর হোসেনের জীবনভেলায়!

কী নেই তাঁর স্মৃতির আঙিনায়? দুরন্ত শৈশব—গ্রামময় চষে বেড়ানো। শহরের অলিগলিতে উকিঝুঁকি! স্বপ্নের চাকরি। বিদেশি-জীবন। প্রেম-বিরহ। অধরা স্বপ্নগুলোর বাস্তব হয়ে ধরা দেওয়া। রোমাঞ্চ-চ্যালেঞ্জে ভরা কর্মজীবনের সফল সমাপ্তি। দেশে ফেরা। স্মৃতির তাড়নায় ‘ফিরে ফিরে যাওয়া’ ফেলে আসা বিদেশের মাটিতে, যেখানে কেটেছে জীবনের লম্বা সময়।

‘কখনো স্বদেশ কখনো বিদেশ’ এক অর্থে সৈয়দ নূর হোসেনের আত্মজীবনী। এতে সব বিষয় ছাপিয়ে বড় হয়ে ওঠে বিভিন্ন ঘটনায় লেখকের সরল স্বীকারোক্তি—রুটিনে বাঁধা জীবনে প্রেমেপড়া, প্রিয়জনের বিরহবিচ্ছেদ ও অবশেষে তাকে জীবনসঙ্গী হিসেবে পাওয়া। শখের প্রসাধনসামগ্রী কিনে কর ফাঁকি দিয়ে তা চোরাইপথে বাসায় আনার পর নবীন সরকারি অফিসার হিসেবে আত্মোপলব্ধির টানাপড়েন অথবা তত্কালীন ‘উড়ে এসে জুড়ে বসা পররাষ্ট্র কর্মকর্তাদের হম্বিতম্বি’ সংক্রান্ত ঘটনাগুলো লেখকের সফেদ মনের পরিচয় প্রকাশ করে সহজেই। ফটোগ্রাফির নেশা, খেলাধুলা, চাকরিজীবনের প্রশিক্ষণ পর্বের দিনগুলো, শখের গাড়ি কেনার ঘটনাপ্রবাহ কিংবা অ্যাম্বাসেডর হিসেবে কাটানো হোটেলের দীর্ঘ জীবনের নানা অধ্যায়—রান্নাবান্না থেকে শুরু করে নববিবাহিতা স্ত্রীর সঙ্গে কাটানো মুহূর্তগুলো—খালি চোখে নিতান্ত ক্ষুদ্র বিষয় মনে হলেও এর মধ্য দিয়ে উঠে এসেছে একটা সময়ের প্রতিচ্ছবি। লেখার ভাঁজে ভাঁজে কাব্যের সংমিশ্রণে অন্দর-বাহিরের বিভিন্ন ঘটনা ফুটিয়ে তুলেছেন লেখক।

জীবনের প্রয়োজনেই আমাদের নিত্য ছুটে চলা। কখনো দেশ, কখনোবা বিদেশ—এই তো জীবন! এই জীবন বাঁক বদল করে। বদলায় চারপাশ। আজকের পৃথিবীও বদলে গেছে এভাবেই। কয়েক দশক আগেকার চীন, জাপান, সুইডেন, ব্রাজিল, মালয়েশিয়া এমনকি পার্শ্ববর্তী ভারতের সঙ্গে আজকের দিনের তফাতটা বেশ চওড়া। লেখকের চোখ দিয়ে এর বাস্তব রূপ দেখা যায়। বাংলাদেশও বদলেছে আমূল। কী দেশে, কী বিদেশে—আধুনিকতার নিচে চাপা পড়ে গেছে নির্মল প্রকৃতি, সরল জীবন!

 

কখনো স্বদেশ কখনো বিদেশ

সৈয়দ নূর হোসেন

প্রকাশক : অনন্যা

মূল্য : ৭০০ টাকা

ইত্তেফাক/এসটিএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন