শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

পরমাণু যুদ্ধের হুঁশিয়ারি মেদভেদেভের

আপডেট : ১৯ জানুয়ারি ২০২৩, ২১:২৮

সাবেক রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট মেদভেদেভ বলেছেন প্রচলিত যুদ্ধে পারমাণবিক ক্ষমতাধর রাশিয়ার পরাজয় পারমাণবিক যুদ্ধের সূত্রপাত ঘটাতে পারে। বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযানের কথা উল্লেখ করে একটি টেলিগ্রাম পোস্টের মাধ্যমে তিনি এ কথা বলেন ।

ন্যাটোর ইউক্রেনীয় সামরিক বাহিনীর  সমর্থন নিয়ে আলোচনা করে টেলিগ্রামের একটি পোস্টে  মেদভেদেভ বলেন, ‘পরমাণু শক্তিগুলি কখনই বড় কোনো দ্বন্দ্বে হারে নি,কারণ এর উপর তাদের ভাগ্য নির্ভর করে।’

মেদভেদেভ আরও বলেন, ‘ন্যাটো এবং পশ্চিমের অন্যান্য প্রতিরক্ষা নেতারা শুক্রবার জার্মানির রামস্টেইন বিমান ঘাঁটিতে বৈঠকে মিলিত হয়ে যুদ্ধের কৌশল ও ইউক্রেনে রাশিয়াকে পরাজিত করার পশ্চিমের প্রচেষ্টার সমর্থনের ব্যাপারে কথা বলবেন। তবে তাদের নীতির ঝুঁকির বিষয়েও চিন্তা করা উচিত।’

এখন পর্যন্ত বিশ্বের শীর্ষ দুই পারমাণবিক অস্ত্রধারী রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হাতে বিশ্বের প্রায় ৯০শতাংশ পারমাণবিক ওয়ারহেডের দখল রয়েছে। রাশিয়ার পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা কেবল প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের হাতে রয়েছে।

রাশিয়ার ওপর প্রচলিত সামরিক শ্রেষ্ঠত্ব ন্যাটোর থাকলেও পারমাণবিক অস্ত্রের হিসেবে ইউরোপের জোটের তুলনায় মস্কোর পারমাণবিক শক্তি বেশি রয়েছে।

সাবেক রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট মেদভেদেভ।

ইউক্রেনে রাশিয়ার বিশেষ সামরিক অভিযানকে আগ্রাসী এবং দাম্ভিক পশ্চিমের বিরুদ্ধে অস্তিত্বের লড়াই বলে অভিহিত করেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। একই সঙ্গে যেকোনো আগ্রাসী শক্তির বিরুদ্ধে নিজেকে এবং দেশের জনগণকে রক্ষায় রাশিয়া তার সম্ভাব্য সব উপায়ের ব্যবহার করবে বলেও হুঁশিয়ার করে দিয়েছেন তিনি।

গত বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ইউরোপে সবচেয়ে ভয়াবহ এক সংঘাত এবং ১৯৬২ সালের কিউবার ক্ষেপণাস্ত্র সংকটের পর মস্কো ও পশ্চিমের মধ্যে সবচেয়ে বড় সংঘর্ষের সূত্রপাত করেছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্ররা ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণকে সাম্রাজ্যবাদী ভূমি দখলের প্রচেষ্টা হিসাবে উল্লেখ করে এর নিন্দা জানিয়েছে। আর ইউক্রেন তার ভূখণ্ড থেকে শেষ রুশ সৈন্যকে বিতাড়িত না করা পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাওয়ার অঙ্গীকার করেছে।

ইত্তেফাক/এফএস/এএএম