বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ইশরাত নিশাত পদক পেলেন আট নাট্যকর্মী

আপডেট : ২০ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪:২৫

ইশরাত নিশাত নাট্য পুরস্কার পেলেন আট তরুণ নাট্যকর্মী। ১৯ জানুয়ারি রাতে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে মঞ্চনাটকের আটটি শাখায় এ পদক তুলে দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর অভিনেতা নির্দেশক আফজাল হোসেন ও হৃদি হকের সঞ্চালনায় পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান শুরু হয়।

পুরস্কারপ্রাপ্তরা হলেন—শ্রেষ্ঠ নির্দেশক মুক্তনীল (মাঙ্কি ট্রায়াল), শ্রেষ্ঠ নাট্যকার-বদরুজ্জামান আলমগীর (পুণ্যাহ), শ্রেষ্ঠ অভিনেতা-সুকর্ণ হাসান (রাজদ্রোহী), শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী মনামী ইসলাম কনক (পুণ্যাহ), শ্রেষ্ঠ সংগীত পরিকল্পক ইউসুফ হাসান অর্ক (পুণ্যাহ), শ্রেষ্ঠ আলোক পরিকল্পক অম্লান বিশ্বাস (রায়মঙ্গল), শ্রেষ্ঠ মঞ্চ পরিকল্পক ইউসুফ হাসান অর্ক (পুণ্যাহ)। আর শ্রেষ্ঠ প্রযোজনার পুরস্কার জিতে নেয় নাট্যদল বাতিঘরের ‘মাঙ্কি ট্রায়াল’।

ছবি: সংগৃহীত

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতিবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। তিনি বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

স্বাগত বক্তব্যে পুরস্কার কমিটির কো-চেয়ারম্যান নাসির উদ্দীন ইউসুফ বলেন, ‘ইশরাত নিশাত আমার কন্যা। ছোটবেলা থেকেই ওর বেড়ে ওঠা আমাদের হাত ধরেই। নিশাতের মা নাজমা আনোয়ার নাট্যচর্চায় যুক্ত ছিল। যার জন্য নিশাতও ছোট থেকেই থিয়েটারের সঙ্গেই বেড়ে উঠেছে।’

প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আজকের অনুষ্ঠান যাকে কেন্দ্র করে, সেই ইশরাত নিশাত মাত্র ৫৬ বছর বয়সে আমাদের বিশ্বব্রহ্মাণ্ড থেকে চলে গেলেন। দেশের নাট্যাঙ্গনকে বিরাটভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে তার অনুপস্থিতি। আমাদের আসলে জীবিতাবস্থায় ইশরাত নিশাতকেই পুরস্কার প্রদান করা দরকার ছিল। কেউ মারা গেলে আমরা তাকে পুরস্কৃত করি, সম্মান জানাই। আমাদের এ সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।’

ছবি: সংগৃহীত

উপস্থিত বরেণ্য অভিনেত্রী ফেরদৌসী মজুমদার বলেন, ‘বাতাস খুব ভারী লাগছে। বেশি কিছু বলব না। যিনি চলে গেছেন তিনি আসলে যাননি; আমাদের মাঝেই আছেন। ইশরাতকে নিয়েই আজকের এ আয়োজন। আমি আশা করব, তাকে নিয়ে এমন আরও আয়োজন হবে।’

আরও বক্তব্য দেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দীন ইউসুফ, আতাউর রহমান, অধ্যাপক আবদুস সেলিম, এসকেএস ফাউন্ডেশনের পরিচালক জোসেফ হালদার প্রমুখ।

উপস্থিত ছিলেন লাকী ইনাম, গোলাম কুদ্দুছ, ম. হামিদ, তারিক আনাম খান, সারা যাকের, মাসুম রেজা, বন্যা মির্জাসহ নাট্যাঙ্গনের অনেকেই। 

নোমিনেশন পেয়েছিলেন যারা

এ বছর পুরস্কারের জন্য গঠিত জুরিবোর্ড সদস্য ছিলেন- অধ্যাপক আব্দুস সেলিম (প্রধান), দেবপ্রসাদ দেবনাথ, ওয়াহিদা মল্লিক জলি, ইউসুফ হাসান অর্ক, কামালউদ্দিন কবির, মোহাম্মদ আলী হায়দার ও আইরিন পারভীন লোপা।

গত দুই বছর থিয়েটার চর্চা করছে—এমন দলের মঞ্চায়িত ১৭ নাটক থেকে এ পুরস্কার তুলে দেওয়া হলো। এবারের আয়োজনে সাত সদস্যের জুরি বোর্ডের প্রধান ছিলেন অধ্যাপক আবদুস সেলিম। আরও ছিলেন ওয়াহিদা মল্লিক জলি, দেবপ্রসাদ দেবনাথ, ড. ইউসুফ হাসান অর্ক, মোহাম্মদ আলী হায়দার, ড. কামালউদ্দিন কবির ও ড. আইরিন পারভীন লোপা। বাংলাদেশের মঞ্চনাটকের দীর্ঘ অভিযাত্রায় যাদের গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে, তাদের মধ্যে অন্যতম ইশরাত নিশাত। 

২০২০ সালের ২০ জানুয়ারি প্রয়াত হন তিনি। এই নাট্য পুরস্কার প্রবর্তন করা হয়েছে তার অবদানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে।

ইত্তেফাক/বিএএফ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন