বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৯ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

জেলা প্রশাসন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শুভ উদ্বোধন করলেন স্পিকার 

আপডেট : ২০ জানুয়ারি ২০২৩, ২০:১২

মাদারীপুরে জেলা প্রশাসন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে। শুক্রবার (২০ জানুয়ারি) সকালে প্রধান অতিথি হিসেবে এই স্কুল এন্ড কলেজের শুভ উদ্বোধন করেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। 

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ ও মাদারীপুর-১ (শিবচর) আসনের ৬ বারের সফল সংসদ সদস্য নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন, মাদারীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য শাজাহান খান, মাদারীপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুস সোবাহান গোলাপ, টাঙ্গাইল-২ আসনের সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোট মনির, সংরক্ষিত আসনের নারী সদস্য তাহমিনা বেগম। 

জেলা প্রশাসন স্কুল অ্যান্ড কলেজের সভাপতি ও মাদারীপুর জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন এর সভাপতিত্বে এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুনির চৌধুরী,পুলিশ সুপার মাসুদ আলম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (এডিএম) পল্লব কুমার হাজরা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ঝোটন চন্দ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) শামীমা শরমিন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) মনিরুজ্জামান ফকির, মাদারীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাবুদ্দিন আহমেদ, উপজেলা চেয়ারম্যান কালু খান,পৌর মেয়র খালিদ হোসেন ইয়াদ, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাইনউদ্দিন, শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রাজিবুল ইসলাম, মাদারীপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনোয়ার হোসেন চৌধুরীসহ সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ রাজনৈতিক সামাজিক বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ছাড়াও আরও অনেকেই।

জেলা প্রশাসন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শুভ উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর দেশে দরিদ্রের হার শতকরা ৪০ ভাগ থেকে ২১ ভাগে নেমে এসেছে। হতদরিদ্র মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য সারা দেশে ব্যাপক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। যারা এখনো দারিদ্র্যসীমার নিচে রয়েছে তাদের নানা রকম ভাতা দেওয়া হচ্ছে। যা আগামীতে আরও ব্যাপকভাবে পরিচালনা করা হবে। বিনা মূল্যে শিক্ষার্থীদের মধ্যে বই বিতরণ এবং মোবাইল ফোনের মাধ্যমে শিক্ষাভাতা পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। তৃণমূল পর্যায়ে দারিদ্র্য বিমোচনের যে কার্যক্রম চলছে তা আগামী দিনেও অব্যাহত থাকবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘স্মার্ট বাংলাদেশের লক্ষ্য হচ্ছে কেউ পিছিয়ে থাকবে না। পিছিয়ে পড়া সব জনগোষ্ঠী-নারী-শিশুদের নিয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলা হবে।’

ইত্তেফাক/এএএম