মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

২০২৫ সালে চীন-যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধে জড়াবে: মার্কিন জেনারেল

আপডেট : ২৯ জানুয়ারি ২০২৩, ১৫:৩০

যুক্তরাষ্ট্র ও চীন ২০২৫ সালে একটি যুদ্ধে জড়িয়ে পড়বে, মার্কিন বিমান বাহিনীর চার তারকা জেনারেল মাইক মিনিহান এ ইঙ্গিত দিয়েছেন। ওয়াশিংটনের এই কর্মকর্তা কমান্ডারদের যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হতে বলেছেন। ওয়াশিংটন পোস্টের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এয়ার মোবিলিটি কমান্ডের প্রধান জেনারেল মাইক মিনিহান বলেছেন, 'যুক্তরাষ্ট্রের মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত প্রতিরোধ, প্রয়োজনে পরাজয়।' মাইক মিনিহান তার স্বাক্ষরিত একটি অভ্যন্তরীণ মেমোতে এই মতামত ব্যক্ত করেন। পেন্টাগন মেমোর সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

যুক্তরাষ্ট্র ও চীন ২০২৫ সালে একটি যুদ্ধে জড়িয়ে পড়বে, মার্কিন বিমান বাহিনীর চার তারকা জেনারেল মাইক মিনিহান এ ইঙ্গিত দিয়েছেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে এই মেমো। এনবিসি নিউজই প্রথম এই মেমোর খবর প্রকাশ করে। মেমো বা চিঠির তারিখ দেওয়া ১ ফেব্রুয়ারি। সেই মেমোতে কয়েকটি বিষয় তুলে ধরা হয়েছে। তার মধ্যে দুইটি বিষয়ের শিরোনাম 'শেষ দৃশ্যকল্প' ও 'ঝুঁকি'। 

মিনিহান বলেন, 'যা ভাবছি, আশা করি ভুল হবে। কিন্তু আমার অনুমান বা ধারণা হলো, ২০২৫ সালে আমরা চীনের সঙ্গে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ব।'

চীন আগামী বছর তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দিকে নজর রাখবে কারণ এটি প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংকে এই অঞ্চলে সামরিক আগ্রাসন বাড়ানোর একটি প্রস্তাব করবে।

তিনি জানান, চীন আগামী বছর তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দিকে নজর রাখবে কারণ এটি প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংকে এই অঞ্চলে সামরিক আগ্রাসন বাড়ানোর একটি প্রস্তাব করবে। একই বছর যুক্তরাষ্ট্রেও নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ফলে যুক্তরাষ্ট্রও নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়বে। চীন সেই সুযোগ নিতে পারে।

মিনিহানের দ্বারা উল্লেখিত 'শেষ দৃশ্যকল্প' শিরোনামে একটি চীনের আগ্রাসন ও একটি দ্বীপপুঞ্জের বিজয়কে উল্লেখ করেছে। সেসব দ্বীপ সম্পর্কে স্পষ্ট কিছু বলেননি তিনি। যেখানে দক্ষিণ চীন সাগর ঘিরে চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

একই বছর যুক্তরাষ্ট্রেও নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

মেমোটিতে এয়ার মোবিলিটি কমান্ড (এএমসি) এবং অন্যান্য এয়ার ফোর্স অপারেশনাল কমান্ডারসহ এয়ার উইং কমান্ডারদের সম্বোধন করা হয়েছে। নির্দেশে বলা হয়েছে, '২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে তাদের চীনের বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তুতিমূলক কার্যক্রম সম্পর্কে জেনারেলকে রিপোর্ট করতে হবে।'

মার্চের মধ্যে সাধারণ এএমসি  কর্মীদের তাদের ব্যক্তিগত সমস্যাগুলো বিবেচনা করতে এবং তারা আইনত প্রস্তুত তা নিশ্চিত করতে তাদের পরিষেবা প্রদানকারী বেস আইনি অফিসে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। নির্দিষ্ট ঝুঁকির জন্য কর্মীদের প্রশিক্ষণ প্রয়োজন। 

মেমোটিতে এয়ার মোবিলিটি কমান্ড (এএমসি) এবং অন্যান্য এয়ার ফোর্স অপারেশনাল কমান্ডারসহ এয়ার উইং কমান্ডারদের সম্বোধন করা হয়েছে।

বলা হয়েছে, 'ইচ্ছাকৃতভাবে দৌড়ান, বেপরোয়াভাবে নয়। আপনি যদি প্রশিক্ষণের পদ্ধতিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন তবে আপনি যথেষ্ট ঝুঁকি নিচ্ছেন না।' এএমসির প্রায় ৫০ হাজার পরিষেবা সদস্য ও প্রায় ৫০০টি প্লেন রয়েছে। যুদ্ধক্ষেত্রে রসদ ও জ্বালানি সরবরাহের দায়িত্বও বিমানবাহিনীর।

জেনারেল মিনিহান ইঙ্গিত দিয়েছেন, বাণিজ্যিক ড্রোনের ব্যবহারও মার্কিন সামরিক সক্ষমতার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠবে। চীনের সঙ্গে সংঘর্ষের ক্ষেত্রে এই ড্রোন ব্যবহার বিবেচনা করা হবে। একটি প্লেন থেকে ১০০ চালকবিহীন ড্রোন (ইউএভি) সরবরাহ করা যায়, সেজন্য কেসি-১৩৫ ইউনিটগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। জেনারেল মিনিহান প্রথম আট মাসের জন্য নিজের নির্দেশনা হিসেবে এগুলো উপস্থাপন করেন।

এএমসির প্রায় ৫০ হাজার পরিষেবা সদস্য ও প্রায় ৫০০টি প্লেন রয়েছে।

শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) বিষয়টি নিশ্চিত করে এএমসির এক মুখপাত্র জানান, অধস্তন কমান্ড দলকে তার নির্দেশ থেকে মেমো এসেছে। তার আদেশটি এয়ার মোবিলিটি কমান্ডের গত এক বছরে এয়ার মোবিলিটি ফোর্সেসকে ভবিষ্যতের সংঘাতের জন্য প্রস্তুত করার প্রচেষ্টার উপর ভিত্তি করে তৈরি করে।

এ প্রসঙ্গে মার্কিন বিমানবাহিনীর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল প্যাট্রিক রাইডার এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, চীনের সঙ্গে সামরিক প্রতিদ্বন্দ্বিতা একটি বড় চ্যালেঞ্জ। যুক্তরাষ্ট্র এখনও একটি শান্তিপূর্ণ ও মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিকের জন্য মিত্রদের সঙ্গে কাজ করার দিকে মনোনিবেশ করছে।

ইত্তেফাক/ডিএস