শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

৫১৩ কোটি ডলার জানুয়ারিতে রপ্তানি আয়

রেমিট্যান্সের পর রপ্তানি আয়েও সুবাতাস

আপডেট : ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০২:০০

রেমিট্যান্সের পর এবার রপ্তানি আয়ও বেড়েছে। সংকটের মধ্যেও পণ্য রপ্তানিতে প্রবৃদ্ধি ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। গত জানুয়ারি মাসে ৫১৩ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়েছে। এ আয় গত বছরের একই মাসের তুলনায় ৫ দশমিক ৮৯ শতাংশ বেশি।  আবার জানুয়ারিতে ১৯৫ কোটি ৮৮ লাখ ডলারের প্রবাসী আয় এসেছে বাংলাদেশে। এর আগের মাস অর্থাৎ গত ডিসেম্বরে দেশে প্রবাসী আয় এসেছিল ১৬৯ কোটি ৯৭ লাখ ডলার।

পণ্য রপ্তানির এ হালনাগাদ পরিসংখ্যান গতকাল বৃহস্পতিবার রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) প্রকাশ করেছে। তথ্যানুযায়ী, ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে (জুলাই-জানুয়ারি) ৩ হাজার ২৪৪ কোটি ৭৫ লাখ ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়েছে, যা দেশীয় মুদ্রায় ৩ লাখ ৩৪ হাজার ২০৯ কোটি টাকার সমান। এই রপ্তানি গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ৯ দশমিক ৮১ শতাংশ বেশি।

ইপিবির তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, চলতি অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে তৈরি পোশাক, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, চামড়াবিহীন জুতা, প্লাস্টিক পণ্যের রপ্তানি বেড়েছে। তবে এ সময়ে পাট ও পাটজাত পণ্য, কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য, হোম টেক্সটাইল এবং হিমায়িত খাদ্যের রপ্তানি কমেছে।

গত বছর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর দেশে দেশে মূল্যস্ফীতি জেঁকে বসে। ভোক্তাদের ক্রয়ক্ষমতা হ্রাস পায়, ফলে ক্রয়াদেশ কমতে থাকে। বছরের মাঝামাঝি সময়ে দেশে গ্যাস-বিদ্যুতের সংকট প্রকট হয়। লোডশেডিংয়ের কারণে দিনের একটি বড় সময় উৎপাদন ব্যাহত হয়। এমনও হয়েছে, গ্যাসের অভাবে ১২ ঘণ্টা উৎপাদন বন্ধ ছিল শিল্পকারখানায়। এত সংকটের মধ্যেও পণ্য চলতি অর্থবছরের শুরুতে রপ্তানিতে জোরালো প্রবৃদ্ধি হয়।

অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে, অর্থাৎ জুলাই-আগস্টে ৮৫৯ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়। প্রবৃদ্ধি ছিল ২৫ শতাংশ। যদিও সেপ্টেম্বরে রপ্তানি কমে ৬ দশমিক ২৫ শতাংশ। অক্টোবরে রপ্তানি ৭ দশমিক ৮৫ শতাংশ। তবে নভেম্বরে আবার ইতিবাচক প্রবৃদ্ধির ধারায় ফেরে রপ্তানি। ডিসেম্বরে রপ্তানি হয় ৫৩৭ কোটি ডলারের পণ্য। এটিই দেশের ইতিহাসে এক মাসে সর্বোচ্চ পণ্য রপ্তানি।

ইপিবির প্রকাশ করা তথ্য বলছে, চলতি অর্থবছরের জুলাই-জানুয়ারি সময়ে ২ হাজার ৭৪১ কোটি ডলারের তৈরি পোশাক রপ্তানি হয়েছে। এ রপ্তানি গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ১৪ দশমিক ৩১ শতাংশ বেশি। আলোচ্য সময়ে নিট পোশাকের রপ্তানিতে ১২ দশমিক ৭০ শতাংশ এবং ওভেন পোশাকে ১৬ দশমিক ৩০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে।

এ ছাড়া চলতি অর্থবছরের প্রথম ৭ মাসে ৭৩ কোটি ডলারের চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য রপ্তানি হয়েছে। এ রপ্তানি গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৭ দশমিক ৩৭ শতাংশ বেশি।

অন্যদিকে চলতি অর্থবছরের জুলাই-জানুয়ারি সময়ে ৬৯ কোটি ডলারের হোম টেক্সটাইল পণ্য রপ্তানি হয়েছে। এ রপ্তানি গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ১৬ দশমিক ৬৫ শতাংশ কম। আবার ৫৫ কোটি ডলারের কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য রপ্তানি হলেও তা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ২৫ দশমিক ৮৬ শতাংশ কম।

এদিকে, চলতি বছরের প্রথম মাস জানুয়ারিতে ১৯৫ কোটি ৮৮ লাখ ডলারের প্রবাসী আয় এসেছে বাংলাদেশে। জানুয়ারি মাসে যে প্রবাসী আয় এসেছে, বাংলাদেশি মুদ্রায় (প্রতি ডলার ১০৭ টাকা হিসাবে) তার পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় ২১ হাজার কোটি টাকা। এর আগের মাস অর্থাৎ গত ডিসেম্বরে দেশে প্রবাসী আয় এসেছিল ১৬৯ কোটি ৯৭ লাখ ডলার।

ইত্তেফাক/এমএএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন