বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

'মস্কোর কাছে ভূপাতিত ড্রোন ব্যর্থ হামলার চেষ্টা'

আপডেট : ০১ মার্চ ২০২৩, ১১:২৮

রাশিয়ার দক্ষিণে দুইটি অঞ্চলে রাতারাতি ড্রোন হামলা চালানোর জন্য ইউক্রেনকে অভিযুক্ত করেছে মস্কো। বেসামরিক অবকাঠামোকে লক্ষ্য করে ড্রোন হামলা চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। কিন্তু তা ব্যর্থ হয়। মস্কোর অভিযোগের বিষয়ে ইউক্রেন কোনো মন্তব্য করেনি। বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

মস্কো অঞ্চলের গভর্নর আন্দ্রেই ভোরোবিভ একটি টেলিগ্রাম পোস্টে জানিয়েছেন, মস্কোর কাছে যে ড্রোনটি ভূপাতিত করা হয়েছিল সেটি সম্ভবত একটি বেসামরিক সুবিধায় আক্রমণ করার জন্য পাঠানো হয়েছিল।

রাশিয়ার দক্ষিণে দুইটি অঞ্চলে রাতারাতি ড্রোন হামলা চালানোর জন্য ইউক্রেনকে অভিযুক্ত করেছে মস্কো।

মস্কো থেকে প্রায় ১০০ কিলোমিটার দূরে গুবাস্তোভো গ্রামের কাছে রাশিয়ার শীর্ষস্থানীয় জ্বালানি সংস্থা গ্যাজপ্রমের একটি কারখানা রয়েছে। সেখানে ড্রোনটি বিধ্বস্ত হয়। তবে গ্যাজপ্রম জানিয়েছে, তাদের কার্যক্রম ব্যাহত হয়নি।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, কিয়েভ কর্তৃপক্ষ ক্রাসনোদর ও অ্যাডিজিয়া অঞ্চলে বেসামরিক অবকাঠামো লক্ষ্য করে রাতে ড্রোন হামলা চালানোর চেষ্টা করেছিল। কিন্তু অ্যান্টি-ড্রোন সিস্টেম দ্রুত আক্রমণ পাল্টে দেয়। হামলা ব্যর্থ হওয়ায় কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। দুইটি ড্রোনই নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি মাঠে অবতরণ করে।

মস্কো থেকে প্রায় ১০০ কিলোমিটার দূরে গুবাস্তোভো গ্রামের কাছে রাশিয়ার শীর্ষস্থানীয় জ্বালানি সংস্থা গ্যাজপ্রমের একটি কারখানা রয়েছে।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থাগুলো জানিয়েছে, ক্রিমিয়া থেকে ২৪০ কিলোমিটার দূরে ক্রাসনোদর অঞ্চলে একটি তেলের ডিপোতে আগুন লেগেছে। এর আগে সেখানে আকাশে ড্রোন উড়তে দেখা গেছে।

দ্য গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত সোমবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) কিছু সময়ের জন্য সেন্ট পিটার্সবার্গের আকাশে বিমান চলাচল বন্ধ করে দেয় রুশ কর্তৃপক্ষ। মস্কো জানিয়েছে, আকাশ প্রতিরক্ষা মহড়ার জন্য আকাশসীমা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। 

ক্রিমিয়া থেকে ২৪০ কিলোমিটার দূরে ক্রাসনোদর অঞ্চলে একটি তেলের ডিপোতে আগুন লেগেছে।

তবে বেশ কয়েকটি রাশিয়ান মিডিয়ার প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, বিমানবন্দরের কাছে একটি অজ্ঞাত বস্তু শনাক্ত হওয়ার পরে বিমানবন্দরটি দ্রুত বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। তবে এই প্রতিবেদনের সত্যতা যাচাই করা যায়নি।

এদিকে ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ জানিয়েছেন, রাশিয়া সংঘাতের অবসানে আলোচনার জন্য উন্মুক্ত। কিন্তু ইউক্রেনকে নতুন আঞ্চলিক বাস্তবতা মেনে নিতে হবে। এ বিষয়ে মস্কো কখনোই আপস করবে না। 

ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ

গত বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে হামলা শুরুর পর থেকে দেশটির এক-পঞ্চমাংশের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে রাশিয়া। বর্তমানে দেশটির দক্ষিণাঞ্চলের বাখমুত শহরের নিয়ন্ত্রণ নিতে ইউক্রেন ও রুশ বাহিনীর মধ্যে তুমুল যুদ্ধ চলছে। রাশিয়া পূর্ব ইউক্রেনের বাখমুত শহর ঘেরাও করার চেষ্টা করছে। 

রাশিয়ান বাহিনী ছোট খনির শহরকে লক্ষ্য করে হামলা জোরদার করেছে। তবে বসন্তের শুরুতে বৃষ্টির কারণে রণক্ষেত্র কর্দমাক্ত হয়ে পড়েছে। শহরটির নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা বা ধরে রাখার জন্য উভয় পক্ষই মাথা ঘামায়। 

গত বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে হামলা শুরুর পর থেকে দেশটির এক-পঞ্চমাংশের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে রাশিয়া।

বাখমুত শহরটি ডোনেটস্ক অঞ্চলে অবস্থিত। এটি ডোনেটস্কের পাশের লুহানস্ক সীমান্তবর্তী একটি শহর। রাশিয়ান বাহিনী বেশ কিছুদিন ধরেই শহরটির নিয়ন্ত্রণ নিতে মরিয়া চেষ্টা করছে। বাখমুত ছাড়া ডোনেটস্কের প্রায় পুরোটাই রুশ বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে। এদিকে, ইউক্রেন বাহিনী শহরের নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে লড়াই করছে। 

বাখমুত শহরটি ডোনেটস্ক অঞ্চলে অবস্থিত।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি সোমবার বলেছেন, 'বাখমুতের পরিস্থিতি দিন দিন কঠিন হয়ে উঠছে। শত্রু ক্রমাগত সবকিছু ধ্বংস করছে, যা আমাদের অবস্থান সুরক্ষিত ও রক্ষা করতে ব্যবহার করা যেতে পারে। বাখমুতে যুদ্ধরত আমাদের সেনারা প্রকৃত বীর।'

ইত্তেফাক/ডিএস