বুধবার, ২৬ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

বাকেরগঞ্জে জমিসহ আশ্রয়ণের ঘর পাচ্ছে ২৭৭ ভূমিহীন পরিবার

আপডেট : ১৯ মার্চ ২০২৩, ১৩:০৭

গৃহহীনমুক্ত পরিবারের আওতাভুক্ত হতে যাচ্ছে বরিশাল জেলার বাকেরগঞ্জ উপজেলা। বুধবার (২২ মার্চ) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করবেন ৪র্থ পর্যায়ের ২৭৭টি ঘর। যার মাধ্যমে হাসি ফুটবে আরও ২৭৭টি পরিবারের মুখে। একইসঙ্গে বাকেরগঞ্জ হবে ভূমিহীন-গৃহহীনমুক্ত উপজেলা। সেই খুশিতে উপজেলার গৃহহীনদের মাঝে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ।

ইতিমধ্যেই ১ম পর্যায়ে ১২০টি, ২য় পর্যায়ে ৫০টি এবং ৩য় পর্যায়ে ৯৬টি গৃহহীন পরিবারকে দুই শতাংশ জমিসহ ঘর হস্তান্তর করা হয়েছে। ৪র্থ পর্যায়ে আরও ২৭৭টি ঘর আগামী ২২ মার্চ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করবেন। সেদিনই 'ক' শ্রেণির ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত হবে বাকেরগঞ্জ উপজেলা।

দেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না— প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণা বাস্তবায়নে উপজেলায় দুই শতাংশ করে খাস জমি বন্দোবস্ত প্রদানপূর্বক প্রান্তিক গৃহহীন পরিবারকে একক গৃহ নির্মাণের মাধ্যমে বরাদ্দ প্রদান করা হচ্ছে। প্রতিটি আশ্রয়ণ প্রকল্পে সমবায়ভিত্তিক কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে চলছে রেজিস্ট্রেশনের কাজ। আশ্রয়ণের বাসিন্দাদের সুপেয় খাবার পানি ও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয়েছে।
 
নতুন ঘর পেতে যাওয়া রঙ্গশ্রী ইউপির আব্দুল খালেক হাওলাদার জানান, আগে পরিবার নিয়ে মাটির ঘর তৈরী করে অন্যের জমিতে বসবাস করতাম। এখন আমি প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর পাবো, এর চেয়ে বড় পাওয়া আমার জীবনে আর কিছুই নেই।

এর আগে পুনর্বাসিত ২৬৬টি পরিবারের সাথে কথা বলে জানা যায়, ঘর পাওয়ার আগে তারা অনেকেই অনাহারে-অর্ধাহারে দিনযাপন করতেন। প্রধানমন্ত্রী তাদের জন্যে নতুন ঘরের ব্যবস্থা করেছেন, শিখিয়েছেন নতুন করে বাঁচতে। অনেকেই ঘরের আঙিনায় শাকসবজির চাষাবাদ করছেন। কেউ কেউ হাঁস-মুরগি প্রতিপালনে জীবিকা নির্বাহ করছেন।

বাকেরগঞ্জ উপজেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার সজল চন্দ্র শীল জানান, জাতির পিতা স্বপ্ন দেখতেন সোনার বাংলার প্রতিটি মানুষ খুঁজে পাবে নিরাপদ আশ্রয়। আশ্রয়ণ প্রকল্প যেনো সেই নিরাপদ আশ্রয়ের চূড়ান্ত রূপ। সারাদেশের মতো বাকেরগঞ্জে আশ্রয়ণের ঘর পাবে ২৭৭টি পরিবার। তাদেরকে দুই শতাংশ জমির মালিকানা সংক্রান্ত সকল কাগজপত্র ওইদিন বুঝিয়ে দেওয়া হবে।

তিনি আরো বলেন বরিশালের জেলা প্রশাসক মো: জাহাঙ্গীর হোসেনের নির্দেশনায় ও মুজিববর্ষ উপলক্ষে একক গৃহ নির্মাণ ও পরিকল্পনা সংক্রান্ত ম্যানুয়াল অনুসারে প্রকল্পের কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।

ইত্তেফাক/আর